রোগীর চাপে হিমশিম খাচ্ছে ডাক্তার ও নার্স রোগীর চাপে হিমশিম খাচ্ছে ডাক্তার ও নার্স - ajkerparibartan.com
রোগীর চাপে হিমশিম খাচ্ছে ডাক্তার ও নার্স

3:03 pm , May 9, 2022

শেবাচিমে চিকিৎসক সংকট চরমে

আরিফ আহমেদ, বিশেষ প্রতিবেদক ॥ অর্থোপেডিক্স, মেডিসিন আর জরুরী বিভাগে রোগীর চাপে হিমশিম খাচ্ছে ডাক্তার ও নার্স। ১০০০ শয্যার বরিশাল শের-ই বাংলা চিকিৎসা মহাবিদ্যালয় (শেবাচিম) হাসপাতালে এখন প্রায় ১৫০০ রোগী ভর্তি আছে। অথচ এই রোগীদের চিকিৎসা সেবায় রয়েছেন মাত্র ৮৭ জন চিকিৎসক। সবচেয়ে অদ্ভুত সত্য হচ্ছে এখানে কোনো বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক নেই বলে স্বীকার করেন স্বয়ং হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। সরেজমিনে সোমবার শেবাচিম ঘুরে দেখা গেছে অস্থির ও অমানবিক কিছু চিত্র। প্রবেশ পথের জরুরী বিভাগে রোগীর ছটফটানি ও শিক্ষানবিশ চিকিৎসকদের ছুটোছুটি বলে দেয় বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক ছাড়া তারা কতটা অসহায় এখানে। চরমোনাই থেকে আগত আহত রোগীর অভিভাবক চরমোনাই ১ নং ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য ও প্যানেল মেয়র সূর্য জানান, এলাকায় জমি সংক্রান্ত বিবাদের জের ধরে প্রতিপক্ষের হামলার শিকার তার তিনজন রোগীকে নিয়ে হাসপাতালে এসেছেন। জরুরী বিভাগে আনা হলে এখানকার ডাক্তার খুব আন্তরিকতার সাথেই চিকিৎসা দেয়ার চেষ্টা করেন। পরে দুইজনকে জরুরী অর্থোপেডিক্স ও একজনকে ৫ নং ওয়ার্ডে মেডিসিন বিভাগে ভর্তি করেছেন। কিন্তু বড় ডাক্তার না আসলে রোগীর অবস্থা নিয়ে কিছু বলতে পারবেন না বলে জানিয়েছেন এই চিকিৎসকরা। তাদের স্যার আসার অপেক্ষা করছি। একই অবস্থা দেখা গেল ভিতরে অর্থোপেডিক্স ও মেডিসিন বিভাগে। বিছানা না পেয়ে ফ্লোরে রোগীদের জায়গা দিয়েছেন কর্তৃপক্ষ। এই মূহুর্তে ১ হাজার ৩৭৬ জন রোগী ভর্তি আছে বলে জানালেন হাসপাতালের তথ্য কর্মকর্তা মাসুম ও এমি। এমি বলেন, এই হিসেব ৮ মে সকাল আটটা থেকে ৯ মে সকাল আটটা পর্যন্ত। এখন বেলা ১ টায় যে রোগী এসেছেন, সে হিসাব আগামীকাল (আজ) পাবেন। তবে আনুমানিক ৫০০ জন হবে। এমি ও মাসুমের দেয়া তথ্য অনুযায়ী এই মূহুর্তে শেবাচিমে রোগী ভর্তি প্রায় ২ হাজার জন। স্বাভাবিক কারণেই বেড সংকট তৈরি হয়েছে। ফ্লোরে রেখে হলেও চিকিৎসা সুবিধা দেয়ার চেষ্টা করছেন এখানের ডাক্তাররা। এদিকে গত জানুয়ারিতে শেবাচিম থেকে একযোগে আট চিকিৎসককে বদলি করার পর আজ পর্যন্ত কোনো বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক আসেনি। হাসপাতাল পরিচালক ডাঃ সাইফুল ইসলাম বলেছেন, ৫০০ শয্যার চিকিৎসা ব্যবস্থা দিয়ে চলছে এই হাসপাতাল।। পরিচালক ডা. এইচএম সাইফুল ইসলাম আরো বলেন, হাসপাতালে তীব্র চিকিৎসক সংকট চলছে। এর মধ্যেই একযোগে আট বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের বদলিতে নতুন সংকট তৈরি হয়েছে। কেননা দক্ষিণাঞ্চলের সব উপজেলার রোগীই এ হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে আসেন। পরিচালক বলেন, আমি আমাদের হাসপাতালে সংকটের বিষয়টি নিয়ে মন্ত্রণালয়ের সচিবের সঙ্গে কথা বলেছি। তিনি বিষয়টি দেখবেন বলে আশ্বাস দিয়েছেন।

এই বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০৩১  
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT