এবার রাজধানীমুখী ভিড় সামলাতে হিমশিম নদী বন্দর কর্তৃপক্ষের এবার রাজধানীমুখী ভিড় সামলাতে হিমশিম নদী বন্দর কর্তৃপক্ষের - ajkerparibartan.com
এবার রাজধানীমুখী ভিড় সামলাতে হিমশিম নদী বন্দর কর্তৃপক্ষের

3:17 pm , May 6, 2022

বিশেষ প্রতিবেদক ॥ পবিত্র ঈদুল ফিতরের ছুটি শেষ। ঘরমুখো মানুষের ভিড় বদলে গিয়ে এবার রাজধানীমুখী হয়েছে গত বুধবার থেকেই। তবে একদিন ঐশ্বিক ছুটির কারণে ৯ মে থেকে পুরোদমে কর্মস্থলে ফিরতে চায় কর্মজীবী মানুষ। আর সে কারণে বরিশাল নদীবন্দরে শুক্রবার সকাল থেকেই যাত্রীদের উপচে পরা ভিড় সামলাতে হিমশিম খেতে হয় প্রশাসনকে। আর এ ভিড় ছিলো দিবা লঞ্চ অ্যাডভেঞ্চার ও গ্রীনলাইনের জন্য। আর সন্ধ্যার পর নিয়মিত লঞ্চে ছিলো ডেক ও ছাদ দখলের লড়াই। যদিও গত বুধবার (৪ মে) থেকেই ঢাকার উদ্দেশে যাত্রীদের ভিড় হবার কথা জানালেন কর্তৃপক্ষ। গত বৃহস্পতিবারও (৫ মে) রাতে বরিশাল নদীবন্দর থেকে নয়টি লঞ্চ যাত্রী নিয়ে ঢাকার উদ্দেশে গিয়েছে আর শুক্রবার এ সংখ্যা আরো বাড়িয়ে ১০টি করা হয়েছে । এছাড়া দিবা সার্ভিসে তিনটি ও বিআইডব্লিউটিসির একটি জাহাজ বরিশাল থেকে যাত্রীদের নিয়ে ঢাকার উদ্দেশে যথা সময়ে চলাচল করছে বলে জানান নদী বন্দর কর্তৃপক্ষ। তারা জানান, ঈদের ছুটি শেষ হওয়ায় প্রতিটি লঞ্চেই যাত্রীর চাপ এখন অনেকটা বেশি। তবে চাপ সামলাতে বর্তমানে ২৮টি লঞ্চ চলাচল করছে। প্রয়োজনে আরো বাড়ানো হবে। লঞ্চ প্রস্তুত আছে। এদিকে লঞ্চে একজন কেবিন যাত্রীর সাথে শুক্রবার সন্ধ্যায় কথা বলে জানা যায়, তিনি সরকারি চাকরিজীবী হবার সুবাদে ধরে-কয়ে কেবিন পেয়েছেন। আগাম বুকিং নেয়া থাকায় পরিবারের সঙ্গে ঈদ করতে এসেছিলেন ও চলে যাচ্ছেন। তিনি বলেন, ছুটি শনিবার পর্যন্ত থাকলেও কেবিন আজকের পেয়েছিলাম, তাই একদিন আগেই ঢাকা যাচ্ছি। এছাড়া একটু আগে ভাগে যাওয়ার কারণে আগামী দুদিনের ভিড়ের মুখ দেখতে হবে না হয়তো। এক কথায় ঝামেলা এড়াতে আজই যাচ্ছি। মমতা নামে একজন গৃহিনী বলেন, আমার স্বামী একটি প্রাইভেট কোম্পানিতে চাকরি করে। তার ছুটি শেষ তাই স্বামীর সঙ্গে বাচ্চা নিয়ে রওনা দিয়েছি। কেবিন পাই নাই তাই ডেকে বিছানা পেতে যেতে হচ্ছে। বিছানা কিনতে হয়েছে কিনা? এ প্রশ্নের উত্তরে তিনি মাথা নেড়ে না জানালেন। তবে কেবিনগুলোর ফাঁকে তোষক বিছানো দেখা গেছে ও ৫০০ টাকা দরে বিক্রি হতেও দেখা গেছে তা। এছাড়াও স্টাফ কেবিন বিক্রি চেষ্টা রয়েছে আড়ালে আবডালে। বিআইডব্লিউটিএ বরিশালের নৌ নিরাপত্তা ও ট্রাফিক ব্যবস্থাপনা বিভাগের পরিদর্শক কবির হোসেন বলেন, রাতে বরিশাল নদীবন্দর থেকে শুক্রবার রাতে এমভি পারাবাত, সুন্দরবন , কুয়াকাটা, কীর্তনখোলা, সুরুভী, অ্যাডভেঞ্চার এবং মানামীসহ ১৪ টি লঞ্চ নদীবন্দরের ঘাট ছাড়বে। এছাড়া দুটি ভায়া লঞ্চ বরিশাল নদীবন্দর হয়ে ঢাকায় যাওয়ার কথা রয়েছে। পাশাপাশি ডে সার্ভিসের মধ্যে দুটি ক্যাটাম্যারান এমভি গ্রিন লাইন ৩ ও অ্যাডভেঞ্চার ৬ এবং এমভি রাজার হাট সি নামে একটি লঞ্চ বরিশাল থেকে ঢাকার উদ্দেশে ছেড়ে গেছে। তিনি বলেন, আজকে যাত্রীদের চাপ মোটামুটি। কারণ এখনও একদিন ছুটি রয়েছে। শনি ও রবিবার যাত্রীর চাপ আজকের থেকে কয়েক গুণ বেশি হবে। কবির হোসেন বলেন, আমরা সার্বক্ষণিক তদারকি করছি যাতে অতিরিক্ত যাত্রী নিয়ে কোনও লঞ্চ না ছাড়ে। এছাড়া আমাদের সার্বিক সহায়তায় আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ও ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা রয়েছে। এদিকে নদী বন্দরে যাত্রীদের নিরাপত্তায় সার্বক্ষণিক আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সঙ্গে র‌্যাব-৮, নৌ-পুলিশ, কোস্টগার্ড, আনসার, ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্সের সদস্যরাও রয়েছে বলে জানালেন বিআইডব্লিউটিএর যুগ্ম পরিচালক ও বরিশাল নদীবন্দর কর্মকর্তা মো. মোস্তাফিজুর রহমান। তিনি বলেন, সকালে অ্যাডভেঞ্চার পরিপূর্ণ যাত্রী নিয়ে ছেড়ে গেছে, দুপুর তিনটায় গ্রীনলাইনও পরিপূর্ণ ছিলো শুক্রবার এবং শনিবার আমরা অতিরিক্ত যাত্রী চাপ আসা করেছি। সেভাবেই নিরাপত্তা নিশ্চিত করা হয়েছে। এখন পর্যন্ত কোনো অভিযোগ আসেনি বলে জানান এই কর্মকর্তা।

এই বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০৩১  
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT