দক্ষিণাঞ্চলে ডায়রিয়ার বিস্তৃতি অব্যাহত জনমনে উদ্বেগ বাড়ছে দক্ষিণাঞ্চলে ডায়রিয়ার বিস্তৃতি অব্যাহত জনমনে উদ্বেগ বাড়ছে - ajkerparibartan.com
দক্ষিণাঞ্চলে ডায়রিয়ার বিস্তৃতি অব্যাহত জনমনে উদ্বেগ বাড়ছে

3:34 pm , April 22, 2022

বিশেষ প্রতিবেদক ॥ দক্ষিনাঞ্চলে ডায়রিয়া পরিস্থিতির কোন উন্নতি লক্ষণীয় নয়। প্রতিদিনই ৪শ থেকে ৫শ জন ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়ে সরকারী হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য আসছে। গত এক সপ্তাহে এ অঞ্চলের ৬টি জেলার ৪২ উপজেলা হাসপাতালে আরো প্রায় সাড়ে ৩ হাজার ডায়রিয়া রোাগী চিকিৎসার জন্য এসেছে। এ নিয়ে গত ৩ মাসে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ২৫ হাজার ছাড়িয়েছে। এরমধ্যে গত এক মাসেই ডায়রিয়া আক্রান্তের সংখ্যা ১০ হাজারের বেশী। লাগাতার অনাবৃষ্টির সাথে দুঃসহ গরম ও বিশুদ্ধ পানির সংকট পরিস্থিতির উন্নতি ব্যাহত করছে। গত বছরও মার্চ থেকে জুলাই পর্যন্ত দক্ষিণাঞ্চলের বিভিন্ন সরকারী হাসপাতাল গুলোতে ৭৫ হাজারের বেশী ডায়রিয়া আক্রান্ত নারী-পুরুষ ও শিশু চিকিৎসা নিয়েছে। মৃত্যু হয়েছিল প্রায় ২৫ জনের। এবার পটুয়াখালীতে দুজনের মৃত্যুর কথা বলা হলেও স্বাস্থ্য বিভাগের মতে, ‘তারা ডায়রিয়ায় মারা যায়নি’। পিরোজপুর ও ভোলার পরিস্থিতিও গত কয়েকদিন ধরে অবনতিশীল। তবে গত তিন মাসে মোট আক্রান্তের মধ্যে বরিশালই শীর্ষে। এ জেলার প্রায় ৮ হাজার ডায়রিয়া রোগী সরকারী হাসপাতালগুলোতে চিকিৎসার জন্য এসেছে। দ্বীপজেলা ভোলাতেও মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৫ হাজারের বেশী। পটুয়াখালীতে প্রায় সাড়ে ৪ হাজার ও পিরোজপুরে প্রায় ৩ হাজার ৮শ ডায়রিয়া আক্রান্ত চিকিৎসার জন্য হাসপাতালগুলোতে আসলেও বরগুনাতেও প্রায় আড়াই হাজার ও ঝালকাঠীতে ২ হাজার ডায়রিয়া আক্রান্ত মানুষ চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে এসেছে। তবে গত এক সপ্তাহে ভোলাতে সহ¯্রাধিক ও পিরোজপুরে ৮ শতাধিক ডায়রিয়া আক্রান্ত সরকারী হাসপাতালগুলোতে চিকিৎসার জন্য এসেছে। তবে এ হিসেবের আরো অন্তত দ্বিগুন ডায়রিয়া আক্রান্ত রোগী বিভিন্ন বেসরকারী হাসপাতাল ও ক্লিনিক সহ চিকিৎসকের তত্ত্বাবধানে নিজ ঘরে চিকিৎসা নিয়েছেন বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকগন। গোটা দক্ষিণাঞ্চলেই গত কয়েক বছর ধরে মার্চের শুরু থেকে ডায়রিয়া ছড়িয়ে পড়তে শুরু করে। মূলত বিশুদ্ধ পানির সংকটই পানি বাহিত এ রোগের মূল কারণ বলে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকগন জানিয়েছেন। এরসাথে বাসি ও পঁচা খাবার সহ রমজানের এ সময়ে অতি মাত্রায় নি¤œ মানের ভাজা পোড়া খাবারও ডায়রিয়া বিস্তৃতির অন্যতম কারণ বলেও জানা গেছে। বরিশাল বিভাগীয় স্বাস্থ্য দপ্তরের মতে, এ অঞ্চলের ৪২টি উপজেলার প্রায় সবগুলোতেই ইতোমধ্যে ডায়রিয়া ছড়িয়ে পড়লেও ৪১৩টি মেডিকেল টিম কাজ করছে। তবে ৩-৪টি মেডিকেল টিম একজন চিকিৎসকের তত্ত্বাবধানে কাজ করলেও টিমগুলোতে ১ জন করে মেডিকেল এ্যসিষ্ট্যান্ট রয়েছে বলে বিভাগীয় পরিচালক-স্বাস্থ্য জানিয়েছেন। উপরন্তু বরিশাল বিভাগের ৬টি জেলা সহ উপজেলাগুলোতে ১ হাজার সিসি’র লক্ষাধীক ব্যাগ ও ৫শ সিসি’র আরো প্রায় ৭০ হাজার ব্যাগ আইভি স্যালাইন মজুদের কথা জানিয়েছে বিভাগীয় স্বাস্থ্য দপ্তর।
করোনা মহামারী সংকট স্থিমিত হবার মধ্যেই গোটা দক্ষিণাঞ্চল জুড়েই ডায়রিয়া দাপিয়ে বেড়াতে শুরু করায় জনমনে নতুন উদ্বেগ বৃদ্ধি করছে। তবে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকগন ডায়রিয়া প্রতিরোধে বিশুদ্ধ পানি পান করা ছাড়াও বর্তমানের দুঃসহ গরম ও রোজায় তেলে ভাজা খাবার এড়িয়ে সহজ পাচ্য আহারের পরামর্শ দিয়েছেন। পাশাপাশি ডায়রিয়া দেখা দিলে পানি শূণ্যতা প্রতিরোধে দ্রুত খাবার স্যালাইন পান করা সহ চিকিৎসকের পরামর্শ গ্রহনেরও তাগিদ দিয়েছেন। এদিকে বরিশাল মহানগরীর ১শ শয্যার জেনারেল হাসপাতালটিতে ৪ শয্যার ডায়রিয়া ওয়ার্ডে এখন প্রতিদিনই ২০-২৫ জন রোগী চিকিৎসাধীন থাকছে। কিন্তু ১ হাজার শয্যার শের এ বাংলা মেডিকেল করেজ হাসপাতালটিতে কোন ডায়রিয়া ওয়াডর্ই নেই। শুধুমাত্র শিশু বিভাগে ১০ শয্যার একটি আইসোলেশন ওয়ার্ডে ডায়রিয়া আক্রান্ত শিশুদের চিকিৎসা মিললেও নারী ও পুরুষদের সেখানে ভর্তি করা হয়না। বিষয়টি নিয়ে ইতোমধ্যে হাপাতাল কতৃপক্ষ ও বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালক ও সিভিল সার্জনের মধ্যে একাধীক বৈঠক হলেও দক্ষিনাঞ্চলের সর্ববৃহত এ হাসপাতালে ডায়রিয়া ওয়ার্ড চালুর কোন সুরাহা হয়নি। গত বছর শের এ বাংলা হাসপাতালে ভর্তি হতে না পেরে জেনারেল হাসপাতালে যাবার পথে এক ডায়রিয়া রোগীর মৃত্যুর পরে টনক নড়েনি স্বাস্থ্য অধিদপ্তর ও মন্ত্রনালয়ের।

এই বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০৩১  
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT