করোনাকালীন সময়ে ভোলায় ২২ হাজার শিক্ষার্থী বাল্য বিবাহের শিকার করোনাকালীন সময়ে ভোলায় ২২ হাজার শিক্ষার্থী বাল্য বিবাহের শিকার - ajkerparibartan.com
করোনাকালীন সময়ে ভোলায় ২২ হাজার শিক্ষার্থী বাল্য বিবাহের শিকার

3:22 pm , April 17, 2022

মো. আফজাল হোসেন, ভোলা ॥ করোনার ভয়াবহতা ফুটে উঠেছে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের চিত্র দেখে। এই সময় অন্তত ২২ হাজারের বেশি শিক্ষার্থী বাল্য বিয়ের শিকার হয়েছে। ভূয়া জন্ম নিবন্ধন, কাজীদের অর্থলোভী মনোভাব, ইভটিজিংয়ের ফলে নিরাপত্তার অভাব, প্রশাসনের উদাসীনতা আর সামাজিক অবক্ষয় এর অন্যতম কারন বলে ধারনা গবেষকদের। করোনাকালীন সময়ের বাল্য বিয়ে মহামারির সাথেও তুলনা করেছেন শিক্ষকরা। কাজীরা কতটা যে অর্থলোভী আর অনিয়ম করে তার প্রমান মিলে ভোলার দৌলতখান উপজেলার ২নং মেদুয়া ইউনিয়নের কাজী এ্যাডভোকেট মো: মহিউদ্দিন এর আচরনে। তার বক্তব্য নিতে নিজস্ব চেম্বারে গেলে ম্যানেজ করার চেস্টা করে ক্যামেরার লেন্সে হাত দিয়ে বলেন, এটা রাখেন আপনার সাথে কথা বলি। তিনি তজুমদ্দিন উপজেলার ৩নং ওয়ার্ডের ৮মশ্রেনীতে পড়ুয়া শিক্ষার্থীর বিয়ে পড়িয়েছে গত ৮ মার্চ। ঐ মেয়েটির প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষার প্রশংসা পত্র অনুযায়ী ২০০৯ সালের ৫ জানুযারী তার জন্ম। অথচ কাবিন নামায় বয়স দেখানো হয়েছে ২০০৪ সালের ৫ জানুয়ারী। ৩ লাখ টাকা কাবিন করা হয়। তবে তার পরের দিন ৯ মার্চ একটি নোটারী করা হয়। যেখানে কাজী অফিস মেদুয়ার কথা উল্লেখ না করে ভোলা সদরের কথা বলা হয়েছে। এছাড়া ৩ লাখ টাকার স্থলে ৫ লাখ টাকা উল্লেখ করা হয়। নিকাহনামার রেজিস্টেশন নাম্বার হচ্ছে ৩২/২০২২ইং। এটাই শেষ নয়। এভাবেই কাজীরা অর্থলোভী হয়ে হাজারো বিয়ে পড়িয়ে যাচ্ছেন। এই বিয়েটি এলাকায় বেশ ধুমধাম করে করা হয়। যে অনুষ্ঠানে অনেক জনপ্রতিনিধিরা পর্যন্ত অংশগ্রহন করেছেন বলে খবর পাওয়া গেছে। বিষয়টি তজুমদ্দিন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মরিয়ম বেগম, ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মো. রাসেল ও ইউনিয়ন পরিষদ সচিব মো: মেজবাউদ্দিনসহ অনেক জনপ্রতিনিধিরাই জানতেন। তবে কেউ বিষয়টিকে গুরুত্ব না দিয়ে যে যার মত করেই এড়িয়ে গেছেন। আর এভাবেই একের পর এক বাল্য বিয়ের কাজ হচ্ছে। যে কাজী করিয়েছেন মো: মহিউদ্দিন। যিনি আইনজীবি ও কাজী হিসেবে বিবাহের কাজ করে থাকেন। দৌলতখান উপজেলার ২নং মেদুয়া ইউনিয়নের কাজী হলেও বিবাহ করিয়ে থাকেন যে কোন স্থানের। শহরের উকিলপাড়ায় তার বসার স্থান। তজুমদ্দিন উপজেলার ৮ম শ্রেনীতে পড়ুয়া নুপুর এর গোপনে বিয়ে পড়ান এই কাজীই। তিনি বিভিন্ন আইনজীবিদের অনুরোধে বিয়ে পড়িয়ে থাকেন বলেও জানা গেছে। বাল্য বিয়ে পড়ানোর কথা স্বীকার করে বলেন, আমার এই ক্ষতি করা আপনার ঠিক হবে না। এক পর্যায় তিনি চেম্বার ছেড়ে দ্রুত চলে যান। যদিও ভোলার শিক্ষা ব্যবস্থায় মেয়েরা বেশ এগিয়ে থাকলেও পিছিয়ে পড়েছে করোনাকালীন এবং বাল্য বিয়ের ফলে। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকাকালীন সময়। সামাজিক অবক্ষয়, অভিভাবকদের অসচেতনতায় ঝড়ে পড়া ও বাল্য বিয়ের মধ্যদিয়ে। ৭ম থেকে ১০ম শ্রেনীর মেয়েরা বাল্য বিয়ের শিকার হয়েছে সব চেয়ে বেশি। ১১ বছর থেকে শুরু করে কেউ বাদ যাচ্ছে না বাল্য বিয়ে থেকে। তজুমদ্দিন উপজেলার চাচরা ইউনিয়নের একটি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ৯ম শ্রেনীর শিক্ষার্থী মোসা: লামিয়া, মোসা: আরিফা আক্তার বলেন, আমাদের অনেকেই বাল্যবিয়ের কারনে চলে গেছে। আমরা তাদেরকে হারিয়েছি। আমরা তাদের হারাতে চাই না। বাল্যবিয়ে মুক্ত দেশ গড়তে চাই। অভিযোগ করে বলেন, বাল্য বিয়ে প্রতিরোধে শিক্ষার্থীরা জন্ম নিবন্ধন কার্ডে বয়স বৃদ্ধির মাধ্যমে বিয়ে হচ্ছে বলেও দাবী করেন। ইউনিয়ন পরিষদ সচিবরা জন্মনিবন্ধন কার্ডে বয়স বৃদ্ধি করে প্রিন্ট বের করে দিচ্ছে। যা দিয়ে বাল্য বিয়ে হচ্ছে। এছাড়া অর্থলোভী কাজীরা কোন কিছুর তোয়াক্কা না করেই বাল্যবিয়ে পড়াচ্ছে। একই ইউনিয়নের একটি ফাজিল মাদ্রাসার ছাত্রী মোসা: কারিমা আক্তার ও নুসরাত সুলতানা রিমা অভিযোগ করে বলেন, আমরা বাল্যবিয়ে মুক্ত দেশ গড়তে চাই। এটা সম্ভব হচ্ছে না কিছু অসৎ লোকের জন্য। টাকার বিনিময় পুলিশ প্রশাসনসহ সবাই ম্যানেজ হয়ে চলে যায়। ফলে বাল্যবিয়ে আরো বৃদ্ধি পায়। এছাড়া শিক্ষার্থীরা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে আসা যাওয়ার পথে ইভটিজিংয়ের শিকার হচ্ছে উল্লেখ করে বলেন, মান সম্মান রক্ষায় বাবা-মা সন্তানকে বাল্য বিয়ে দিয়ে দিচ্ছে। তবে প্রশাসনকে অবহিত করা হলে টাকা নিয়ে চলে যায় বলেও অভিযোগ তুলেন এসব শিক্ষার্থীরা। একই সাথে মেয়েরা নেট দুনিয়ায় প্রবেশের ফলে অনৈতিক কাজে জড়িয়ে পড়ার কথাও স্বীকার করে নেন। এদিকে তজুমদ্দিন উপজেলার শম্ভুপুর ইউনিয়ন পরিষদে গেলে সচিবের রুমে দেখা হয় মোসা: আসমা বেগম এর সাথে। এক সন্তানের জননী আসমার বিয়ে হয় ২০২০ সালের ১৯ মে। দুই বছর আগে হুজুর ডেকে বিয়ে হলেও হয়নি কোন কাবিন। দুই বছর পর এক সন্তানের জননী মোসা: আসমা আক্তার ইউনিয়ন পরিষদে আসেন জন্ম নিবন্ধনকার্ড করতে। বাল্যবিয়ে নিয়ে কাজ করে এমন সংস্থার একজন কর্মী ফারজানা জাহান বলেন, বাল্যবিয়ে হলে আমাদের কিছু করার নেই। আমরা প্রশাসন ও জনপ্রতিনিধি এবং প্রতিষ্ঠান প্রধানকে অবহিত করি। কটা বাল্যবিয়ে বন্ধ করতে পেরেছেন জানতে চাইলে চুপ থেকে বলেন, এটা আমাদের কাজ নয়। আমরা মেয়েদের সচেতন করি। সাচড়া আদর্শ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষীকা মোসা: ইতি বেগম বলেন, বাল্যবিয়ে সমাজ উন্নয়নে বাধাগ্রস্থ্য হচ্ছে। যে বাল্যবিয়ের শিকার সে তার সন্তানদেরকেও বাল্যবিয়ে দিবে বলে আশংকা করছেন। সচেতন করছেন, তার পরেও নিজেদের ব্যর্থতা স্বীকার করে বলেন, না জানিয়ে বিয়ে দিয়ে দিচ্ছে, সেক্ষেত্রে কিছু করার থাকে না। উত্তর চাচড়া মোহাম্মদীয়া ফাজিল ডিগ্রি মাদ্রাসার উপাধাক্ষ্য মো: নুরউদ্দিন, শম্ভুপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো: জামাল উদ্দিন, কোড়ালমারা বাংলাবাজার মাধ্যমিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো: কামরুল ইসলাম এবং ভোলা সদর উপজেলার বন্ধুজন মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো: হারুন বাল্যবিয়েকে একটি মহামারীর সাথে তুলনা করেন। চরম ক্ষোভ প্রকাশ করে এসব প্রধান শিক্ষকরা বলেন, প্রশাসনকে অবহিত করি। তারা আসেন টাকা নিয়ে আবার চলে যান। পরে বুক ফুলিয়ে সামনে দিয়ে হেটে যায়। ইউনিয়ন পরিষদ সচিবরা এর সাথে জড়িত। আমাদের স্বাক্ষর নেয়ার কথা থাকলেও তারা সেটা করছে না। অনিয়মটা পরিষদ ও কাজীরা মিলে করছেন। এভাবে চলতে থাকলে স্কুল শুন্য হয়ে যাবে। একই সাথে বাল্যবিয়ে এক সময় সরকারকে সামাজিক স্বীকৃতি দিতে হবে। আবার প্রতিষ্ঠান প্রধানরা মনে করছেন শিক্ষার্থীদের অনৈতিক একটা বিষয় থাকে। যে কারনে বাবা-মা দ্রুত বিয়ে দিয়ে চিন্তা মুক্ত হচ্ছে বলেও মনে করেন। রাজনৈতিক চাঁপের কথাও স্বীকার করে নিলেন প্রতিষ্ঠান প্রধানগন। জনপ্রতিনিধি হিসেবে তজুমদ্দিন উপজেলার শম্ভুপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মো: রাসেল বলেন, যারা বাল্য বিয়ে দিবে ঐ ধরনের পরিবারকে বয়স্ক ভাতা, বিধভা ভাতা, ভিজিডি ও ভিজিএফসহ সরকারী সকল ধরেনর সুযোগ সুবিধা থেকে বঞ্চিত করার পাশাপাশি নাগরিক সনদ বন্ধ করা হয় বলে মন্তব্য করেন। তবে আদালতের বয়স নির্ধারনের কাগজ দেখিয়ে বাল্য বিয়ে হয়ে থাকে বলেও মন্তব্য করেন এই চেয়ারম্যান। জেলার সাত উপজেলার ৫৫০টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ২ লাখের বেশি শিক্ষার্থী রয়েছে। যার মধ্যে অন্তত ২২ হাজার এর বেশি শিক্ষার্থী বাল্য বিয়ের শিকার হয়েছে বলে স্বীকার করেন জেলা শিক্ষা গবেষনা কর্মকর্তা মো: নুরে আলম সিদ্দিকী। তিনি বলেন, বাল্য বিয়ে রোধ করতে পারলে শিক্ষার্থীরা ঝড়ে পরতো না। সামাজিক অবক্ষয়, বিদ্যালয় নিরাপদে আসা যাওয়া করতে না পারাকে দায়ী করে অভিভাবকদের সচেতন এবং মেয়ের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার প্রতি জোর দিয়েছেন জেলা শিক্ষা গবেষনা বিষয়ক এই কর্মকর্তা। অপরদিকে তজুমদ্দিন উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা মরিয়ম বেগম বাল্য বিয়ের ক্ষেত্রে জাল সার্টিফিকেট তৈরির কথা স্বীকার করে শুধু মাত্র বাবা-মা ও পরিবার এর মধ্যে সচেতনতা সৃস্টির প্রতি জোর দেন। বলেন এর ফলেই বাল্য বিয়ে প্রতিরোধ করা সম্ভব। তিনি সম্প্রতি নুপুর নামের ৮ম শ্রেনীর শিক্ষার্থীর বাল্যবিয়ের কথা স্বীকার করে বলেন, এটা খোজ নিতে ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও সচিবকে বলেছিলাম।

এই বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০৩১  
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT