দর্শনার্থী খরায় ভুগছে জাদুঘর দর্শনার্থী খরায় ভুগছে জাদুঘর - ajkerparibartan.com
দর্শনার্থী খরায় ভুগছে জাদুঘর

3:43 pm , February 15, 2022

 

কাজী মিজানুর রহমান ॥ ২০১৫ সালের ৮ জুন বৃহত্তর বরিশালের ইতিহাস ও ঐতিহ্য সংগ্রহ, সংরক্ষণ, প্রদর্শন ও গবেষণার জন্য একটি প্রাণবন্ত পরিসর হয়ে উঠবে এই লক্ষ্যে বরিশাল বিভাগীয় জাদুঘরের উদ্বোধন করেন তৎকালিন সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর এমপি। মূলত প্রতœমনস্ক জাতি গঠন এবং চেতনা বিকাশ এর অন্যতম উদ্দেশ্য। ১৮০১ সালে জেলা সদর বাকেরগঞ্জ থেকে বরিশালে স্থানান্তর হয়। বিশ বছর পর ১৮২১ সালে দ্বিতল কালেক্টরেট ভবন নির্মিত হয়। ১৯৯০ সালে নতুন কালেক্টরেট ভবনে দপ্তর স্থানান্তর হলে পুরাতন কালেক্টরেট ভবন” নামে এটি পরিচিতি পায়।
এর আগে ১৯৮৪ সালে ভবনটি পরিত্যক্ত ঘোষনা করা হয়। বিভিন্ন প্রক্রিয়া শেষে ২০০৪ সালে দ্বিতল ভবনটি সংরক্ষিত পুরাকীর্তি ঘোষনার বিজ্ঞপ্তি জারির পর বরিশাল পুরাতন কালেক্টরেট ভবন এখন সরকারের প্রতœতত্ত্ব অধিদপ্তরের অধীনে প্রয়োজনীয় সংস্কার এবং সংরক্ষণ শেষে জাদুঘরে রুপান্তর হয়েছে। ঔপনিবেশিক স্থাপত্য ঐতিহ্যের স্মারক হিসাবে সংরক্ষিত এই ভবনটি বাংলাদেশে নির্মিত প্রথম প্রশাসনিক ভবন। এই জাদুঘরে ভবনের ইতিহাস, স্থাপত্যিক বৈশিষ্টের বিবরণ, আলোকচিত্র ও নির্মান উপকরণসহ বিভিন্ন ধরনের নিদর্শন উপস্থাপন করা হয়েছে।
ধান, নদী, খাল এই তিনে বরিশালে ইদানীং ইলিশের কীর্তিও যোগ হয়েছে। বরিশাল নামের নাব্য জনপদটিতে জালের মত ছড়িয়ে আছে অসংখ্য নদী। সামাজিক, অর্থনৈতিক ও সাংস্কৃতিক ক্ষেত্রেও নদ- নদীগুলোর প্রচ্ছন্ন প্রভাব রয়েছে। এই জনপদে কীর্তনখোলার কোল ঘেষে কালেক্টরেট ভবনটির মৌলিক আদল ঠিক রেখে ভগ্ন ও পরিত্যক্ত দশা থেকে উদ্ধার করে সংরক্ষণ করা হয়েছে।তদানিন্তন লালরঙ এর বহিবর্ন ভবনটিতে দেশীয় ও বহিরাগত বিভিন্ন স্থাপত্যশৈলী ও উপাদানের সংমিশ্রণ ঘটেছে।
বরিশাল বিভাগীয় জাদুঘরে বিভাগের ভৌগলিক ও প্রাকৃতিক পরিচিতি উপস্থাপন করা হয়েছে। বরিশাল অসংখ্য কীর্তিমান ব্যক্তির উর্বরভূমি হিসাবে পরিচিত। বিভাগের কীর্তিমান ব্যক্তিবর্গের তথ্য ও আলোকচিত্র প্রদর্শন করা হয়েছে। সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য ও শিল্পকলায় বরিশালের রয়েছে গৌরবময় সমৃদ্ধ ইতিহাস।
সংগৃহীত প্রাচীন নিদর্শন থেকে দর্শনার্থীগণ বরিশালের গৌরবময় সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য ও লোকশিল্প কলা সম্পর্কে ধারনা পাবেন।
দোতালায় সজ্জিত ৯ টি গ্যালারিতে ফারসি হরফে উৎকীর্ন মুসলিম যুগের শিলালিপি, গুপ্ত যুগের পোড়ামাটির নিদর্শন, প্রস্তর নির্মিত পালযুগের বুদ্ধমূর্তি, পদ্মখচিত সুলতানি যুগের পোড়ামাটির ফলকচিত্র, মাটির সামগ্রী, তৈজসপত্র, গ্রামোফোন রেকর্ডার (কলের গান),আসবাব পত্র , শিবলিঙ্গ, মারীচী মূর্তি, কৃষ্ণ মূর্তি, হরগৌরি মূর্তি, মহাদেব মূর্তি, ব্রোঞ্চ এর বদনা, পাথরের মালাসহ অনেক মূল্যবান, দুস্পাপ্য ও আকর্ষনীয় নিদর্শন প্রদর্শনের জন্য উন্নত পরিবেশে বিন্যস্তভাবে রাখা হয়েছে।
জাদুঘরের সাপ্তাহিক ছুটি রবিবার, সোমবার অর্ধদিবস খোলা। প্রবেশমূল্য ১০ টাকা; স্কুল ছাত্রদের ৫টাকা।
এত আয়োজন যাদের জন্য সেই দর্শনার্থী খরায় ভুগছে বিভাগীয় জাদুঘর। দিনে ২৫ /৩০ জনের বেশি দর্শনার্থী আসে না।
প্রতিষ্ঠার পর প্রায় ৭ বছর ছুঁই ছুঁই হলেও বরিশাল জাদুঘর পূর্ণতা পায়নি। এখনও বরিশাল জাদুঘর খুলনার আঞ্চলিক পরিচালকের আওতাধীন। এখানে দ্রুত আঞ্চলিক পরিচালক, পদস্থাপন করা দরকার। প্রশাসনিক এবং আর্থিক ক্ষমতাসম্পন্ন কর্তৃপক্ষের উপস্থিতি কাজে গতিশীলতা আনতে সক্ষম। অচেনা কোন লোক সামনে দিয়ে হেঁটে গেলেও জাদুঘর চেনার কোন উপায় নেই।
ডিজিটাল প্রচার প্রচারনা,পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি, স্থানীয় বেতারযোগে প্রচার, হ্যান্ডবিল দর্শনার্থী আকৃষ্ট করবে। স্কুল,কলেজ কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের আগ্রহী করে তোলা যায়।প্রদর্শনের জন্য আরও আকর্ষনীয় সামগ্রীর সমাহার ঘটানো জরুরি। নিয়মিত পরিকল্পিত প্রতœতাত্ত্বিক অনুসন্ধান ও জরিপ পরিচালনার প্রয়োজন অনস্বীকার্য। ব্যক্তিগত সংগ্রহে থাকা প্রতœতত্ত্ব নিদর্শন উপহার দেওয়ার জন্য বিভিন্ন মাধ্যমে আহবান জানালেও সংগ্রহ সমৃদ্ধ হতে পারে।
জাদুঘরে মুক্তিযুদ্ধ ও বঙ্গবন্ধু কর্নার, কফিশপ স্থাপন দর্শনার্থীদের আগ্রহ বাড়াবে।
সংস্কৃত বিষয়ক মন্ত্রনালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত মন্ত্রী এবং উর্ধ্বতনগণের পরিদর্শন, ব্যাপক প্রচার ইত্যাদি দর্শনার্থী আকর্ষনে সহায়ক হতে পারে।
বরিশাল বিভাগে আরও কয়েকটি জাদুঘর আছে।চাখারে শের-ই-বাংলা জাদুঘর, বীর শ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর স্মৃতি জাদুঘর, বীর শ্রেষ্ঠ মোস্তফা কামাল স্মৃতি জাদুঘর,পটুয়াখালি পানি জাদুঘর।
যথাযথ প্রচারনার অভাবে অনেকেই এসম্পর্কে খুব বেশি জানেন না। জাদুঘর প্রতিষ্ঠার উদ্যেশ্য সফল করতে সকলের এগিয়ে আসা উচিৎ।নগরীতে সুন্দর, সমৃদ্ধ জাদুঘর প্রতিষ্ঠার জন্য সরকার সাধুবাদ পেতেই পারে।
দর্শনার্থীগণের পদচারনায় মুখরিত হলে তবেই জাদুঘর প্রতিষ্ঠার স্বার্থকতা। লেখক : পরিবেশ ও সমাজকর্মী।

এই বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০৩১  
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT