মহিপুরের হোটেল মালিকের বিরদ্ধে গৃহপরিচারিকাকে ধর্ষণ ও দেহব্যবসায় বাধ্য করানোর অভিযোগে মামলা মহিপুরের হোটেল মালিকের বিরদ্ধে গৃহপরিচারিকাকে ধর্ষণ ও দেহব্যবসায় বাধ্য করানোর অভিযোগে মামলা - ajkerparibartan.com
মহিপুরের হোটেল মালিকের বিরদ্ধে গৃহপরিচারিকাকে ধর্ষণ ও দেহব্যবসায় বাধ্য করানোর অভিযোগে মামলা

3:12 pm , February 15, 2022

 

আরিফ সুমন, কুয়াকাটা ॥ মহিপুরে হোটেল মালিক গৃহ পরিচারিকাকে নির্যাতন ও ধর্ষনের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এমন কি আবাসিক হোটেলে জোর করে করাতেন দেহ ব্যবসা, কথা না শুনলে শুরু হতো পৈশাচিক ও শারীরিক নির্যাতন। সরেজমিনে, মহিপুর আবাসিক হোটেল সোহন ও খাবার হোটেল খানাপিনা এর মালিক মোঃ আবু হানিফ হাওলাদারের বিরুদ্ধে নির্যাতন, ধর্ষন ও জোর করে দেহ ব্যবসা করানোর অভিযোগ করেন এক গৃহ পরিচারিকা। সোমবার সকাল আনুমানিক ১০ টার দিকে খোলা বাজারে শতাধিক মানুষের সামনে এই অভিযোগ করেন অসহায় ৩২ বছর বয়সী দুই সন্তানের জননী। ভুক্তভোগী নারী বলেন, গত দেড় মাস পূর্বে মোয়াজ্জেম পুর মৃত. নুর হোসেন হাওলাদারের ছেলে মোঃ আবু হানিফ হাওলাদারের বাসায় গৃহ পরিচালিকার কাজ নেয়। কাজের কিছুদিন পর মোঃ হানিফ হাওলাদার তাকে জোর পূর্বক ধর্ষন করে এবং তার মালিকানাধীন সোহান আবাসিক হোটেলে দেহ ব্যবসা করতে বাধ্য করেন। হানিফ হাওলাদারের কথা না শুনলে তার উপর শারীরিক ও পৈশাচিক নির্যাত করা হতো। তিনি আরও বলেন, এক একবার অনৈতিক কাজ শেষে আমাকে ১৫০ টাকা দিতো। সবশেষে তিনদিন আগে হানিফ নিজে ধর্ষণ করে। দিনদিন পরিস্থিতি খারাপ হওয়ায় তার স্ত্রীকে অবহিত করি এবং কাজ না করার শর্তে হোটেল থেকে চলে যাই। কিন্তু সোমবার বকেয়া বেতন নিতে গেলে মারধর করে এবং ভয় দেখায়। তাই বাধ্য হয়ে সবকিছু ফাঁস করেছি।
এ বিষয়ে অভিযুক্ত হানিফ বলেন, আমার সম্মানহানি করার জন্য একটি কুচক্রী মহল এই ষড়যন্ত্র করছে। আমি তাকে ধর্ষণ করিনি।
মহিপুর থানার ওসি খন্দকার আবুল খায়ের বলেন, এক নারীকে ধর্ষণ করা হয়েছে বলে স্বজনদের নিয়ে থানায় এসেছেন। পরে ভুক্তভোগী বাদী হয়ে মহিপুর থানায় মামলা দায়ের করেন ও অভিযুক্তকে গ্রেফতার করা হয়েছে বলে তিনি নিশ্চিত করেন।

এই বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০৩১  
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT