কাউখালী হাসপাতালে জরুরী বিভাগের ওয়ার্ড বয়ের দায়িত্ব পালন করে মালি ও পরিচ্ছন্নতা কর্মী কাউখালী হাসপাতালে জরুরী বিভাগের ওয়ার্ড বয়ের দায়িত্ব পালন করে মালি ও পরিচ্ছন্নতা কর্মী - ajkerparibartan.com
কাউখালী হাসপাতালে জরুরী বিভাগের ওয়ার্ড বয়ের দায়িত্ব পালন করে মালি ও পরিচ্ছন্নতা কর্মী

3:00 pm , January 3, 2022

ডাক্তার, কর্মকর্তা ও কর্মচারীসহ ৭২টি পদ শূন্য

রিয়াদ মাহমুদ সিকদার, কাউখালী ॥ দেড় লক্ষাধিক মানুষের একমাত্র চিকিৎসার আশ্রয়স্থল কাউখালী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে। এ হাসপাতালের পরিবেশ ভুতুরে অবস্থায় পৌছেছে। এখানে তিন যুগেও কোনো ভবন নির্মান হয়নি। ভাঙ্গা ও জরাজীর্ন ভবনে যুগের পর যুগ চিকিৎসা প্রদান করছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। হাসপাতালের এ অবস্থা দেখে কোন চিকিৎসক এসে চিকিৎসা সেবা দিতে চায় না। হাসপাতালের চিকিৎসকদের থাকার কোন কোয়ার্টার নেই। একজন চিকিৎসকের বসবাস উপযোগী বাসভবন নেই উপজেলায়। তাই এখানে এসে কোন চিকিৎসক দায়িত্ব পালন করতে চায় না। এতে হাসপাতালের চিকিৎসা সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে উপজেলাবাসী। হাসপাতালের ১০৫টি পদের অধিকাংশ শূন্য রয়েছে। জুনিয়র কনসালটেন্ট সার্জারি, মেডিসিন, গাইনি, এনেসথেসিয়া ও মেডিকেল অফিসারের ৫ টি পদ শুণ্য রয়েছে। মেডিকেল টেকনোলজিস্টের (ফার্মা ও ল?্যাব) ৪টি পদ, হিসাব রক্ষক, ভান্ডার রক্ষক, অফিস সহকারী, স্বাস্থ্য পরিদর্শক, স্বাস্থ্য সহকর্মী, টিএলসিএ সহ মোট ১৬ পদে নেই কোনো জনবল। এছাড়াও ওয়ার্ড বয় ও আয়ার তিনটির মধ্যে রয়েছেন ১ জন করে। কুক পদের দুইটি শুন্য রয়েছে। এমএলএসএস পদের ৪ জনের পরিবর্তে রয়েছে মোট ১ জন। ঝাড়ুদার ৫ পদের দুটি শুন?্য রয়েছে। এ নিয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ১০৫ টি পদের মধ্যে ৭২ টি পদ শুন?্য রয়েছে। অতি জরুরি এ সমস্ত পদ গুলো শূন্য থাকায় স্বাস্থ্যসেবা চরমভাবে ব্যাহত হচ্ছে। সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, জনবল সংকটের কারণে মালি ধলু ও পরিচ্ছন্নতা কর্মী মাছুম হোসেন ওয়ার্ড বয়ের দায়িত্ব পালন করছেন। জরূরী বিভাগে কোনো রোগী ভর্তি হলে তার সেলাই, ব্যান্ডেজ সহ নানা কাজের চিকিৎসকের সহযোগী হিসাবে তারা কাজ করছেন। এ বিষয়ে মালি ধলু জানান, ওয়ার্ড বয় না থাকায় তার কাজের বাইরেও রোগীদের বাঁচানোর জন্য জরুরি বিভাগে সে নিজেই সেলাই ব্যান্ডেজ সহ নানা কাজে সহযোগিতা করেন। হাসপাতালে বহি.র্বিভাগের রোগী কাঠালিয়া নিবাসী ইমাম হোসেন জানান, হাসপাতালে ভবনের দুরবস্থা এবং জনবল সংকটের কারণে সঠিকভাবে চিকিৎসা পেতে অনেক সময় পার করতে হয়। হাসপাতাল এলাকার স্থানীয় বাসিন্দা পেয়ারু ও নয়ন সহ অনেকেই অভিযোগ করেন, উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. হাবিবুর রহমান মাসের সিংহভাগ দিন প্রশিক্ষন ও অফিসিয়াল কাজ সহ বিভিন্ন অযুহাতে ঢাকায় থাকেন। ফলে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের প্রশাসনিক ব্যবস্থা অনেকটা দূর্বল। এ ব্যাপারে উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. হাবিবুর রহমান জানান, জনবল কম থাকায় জরুরী বিভাগে সহায়তা করার জন্য পরিচ্ছন্ন কর্মী ও মালিকে কাজে লাগানো হয়েছে। রোগীদের জীবন রক্ষা করার জন্য এদের সহযোগিতা নিয়ে চলতে হয়।

এই বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০৩১
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT