অভিযান ও বিতরন নিয়ে অসঙ্গতি বিপুল পরিমান জাটকাসহ আটক-২ অভিযান ও বিতরন নিয়ে অসঙ্গতি বিপুল পরিমান জাটকাসহ আটক-২ - ajkerparibartan.com
অভিযান ও বিতরন নিয়ে অসঙ্গতি বিপুল পরিমান জাটকাসহ আটক-২

2:18 pm , November 24, 2021

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ বরিশাল-পটুয়াখালী সড়কের বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনে থেকে যাত্রীবাহী বাস ও ট্রাক থেকে বিপুল পরিমান জাটকা উদ্ধার করেছে নৌ-পুলিশ। মঙ্গলবার রাত ১২টার পর এ অভিযান করা হয়। এ সময় দুই জনকে আটক করা হয়েছে। তারা হলো- কলাপাড়া উপজেলা বাসিন্দা হাসান সিকদার ও গলাচিপা উপজেলার নান্নু মৃধা। উদ্ধার করা জাটকা গতকাল বুধবার বিতরন করা হয়েছে। এ সময় জাটকা নিতে আসা মানুষদের উপর পুলিশ লাঠিচার্জ করেছে। এ বিষয়ে নৌ-পুলিশের বরিশাল অঞ্চলের পুলিশ সুপার কফিল উদ্দিন জানান, উদ্ধারকৃত জাটকা অসহায়দের মাঝে বিতরণ করা হয়েছে। আর আটককৃতদের বিরুদ্ধে নিয়মিত মামলা দায়ের করা হয়েছে। মাছ নিতে আসা অসহায় মানুষদের উপর নৌ-পুলিশের লাঠিচার্জ করার বিষয়টি অস্বীকার করেছেন। বরিশাল সদর নৌ-থানার দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এসআই নূরুল আমীন জানিয়েছেন, কলাপাড়া থেকে বরিশাল পোর্টরোডের উদ্দেশ্যে জাটকা নিয়ে রওনা হয় ব্যবসায়ীরা। সুর্নিদিষ্ট তথ্যের ভিত্তিতে মঙ্গলবার দিবাগত রাত ১২টার পরে কুয়াকাটা-বরিশাল মহাসড়কের বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনে অভিযান করা হয়। এ সময় একটি ট্রাক এবং কয়েকটি বাস থেকে ১০০ মণ জাটকা উদ্ধার করা হয়েছে। গতকাল বেলা ১১টার পর থেকে জাটকা অসহায়দের মাঝে বিতরণ করা হয়। এ ঘটনায় আটকা হাসান সিকদার ও নান্নু মৃধার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হচ্ছে। তিনি আরো জানান, মাছগুলো আসছিল। অভিযান চালালে সাথে অন্য কিছু মাছ, কাকড়া পাওয়া গেছে। তা মাছ মালিককে বুঝিয়ে দেওয়া হয়েছে। তবে বরিশাল জেলা মৎস পাইকারী বাজারের ব্যবসায়ী শাহীন জানান, অবৈধ জাটকা মাছের সাথে অন্যান্য মাছও আটক রাখা হয়। দুপুর দেড়টার দিকে সেই মাছ দেয়া হয়েছে। এতে মাছ পঁচে গেছে। ট্রাক আটক হওয়ার পর কাকড়া, গজাল, পাবদা, পুটি, চিংড়ি মাছ মালিকানা বৈধতায় ফেরত দেয়ার অনুরোধ জানিয়েছি। কিন্তু তারা মাছ দেয়নি। এই ব্যবসায়ী বলেন, জাটকার পাশাপাশি বড় সাইজের ইলিশ ছিল। ওই সাইজের ইলিশ শিকার বা পরিবহন করা অবৈধ নয়। সেই মাছ বিলিয়ে দিয়েছে। পোর্ট রোড বাজারের শ্রমিক সেন্টু বলেন, বৈধ মাছ আটকে নষ্ট করে ফেলেছে। আবার বড় ইলিশও বিলিয়ে দিয়ে ব্যবসায়ীদের ব্যবসার ক্ষতি করেছে নৌ-পুলিশ। সরেজমিনে বেলা সাড়ে ১১টায় দেখা গেছে, মাছ বিতরণের খবর পেয়ে রসুলপুর, আমানতগঞ্জ, পলাশপুর, কেডিসি, ভাটারখাল কলোনীর তিন শতাধিক মানুষ ব্যাগ নিয়ে ভিড় করেছে থানার গেটে। কিছুলোক লাইনে দাড় করিয়ে মাছ বিতরণ করা হয়। এ সময় বেশকিছু মানুষের ওপর লাঠিচার্জ করে নৌ-পুলিশ। মাছ নিতে আসা আমানতগঞ্জের হারুণ বলেন, পুলিশ অনেককে পিটিয়ে আহত করেছে। তাকেও কয়েকবার ধাওয়া দিয়েছে। এতে সে পড়ে গিয়ে পা কেটে গেছে। কান্নাজড়িত কণ্ঠে হারুন বলেন, গরিব মানুষকে মাছ না দিয়ে পুলিশ তাদের পরিচিত লোকজনকে মাছ দিয়েছে। গরিব মানুষ কাছে গেলেই পিটিয়ে বের করে দিয়েছে। নাম প্রকাশ না করে জানিয়েছেন, শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের স্টাফ, কোতয়ালী থানার স্টাফ, কয়েকজন সাংবাদিক, ওয়ার্ডের দলীয় নেতা, নৌ-পুলিশের কর্মকর্তাদের কার্যালয়ের কনস্টেবলকে ব্যাগ ভরে মাছ নিয়ে যেতে দেখেছেন তিনি। প্রত্যক্ষদর্শী ইউসুফ হোসেন বলেন, থানার মাঝি পরিচয় দেওয়া অলি, কালামসহ আরো কয়েকজন কনস্টেবলের সহায়তায় কিছু মাছ লুকিয়ে রাখা হয়েছিল। সাংবাদিকরা আসার পরে তারা সেগুলো বের করেছে। শেষে মাছ মালিকের কাছে বুঝিয়ে দিয়েছে। এ বিষয়ে জেলা মৎস কর্মকর্তা (ইলিশ) বিমল চন্দ্র দাস বলেন, জাটকা উদ্ধারের বিষয়ে তিনি কিছুই জানেন না। বিষয়টি তাদের অবহিত করাসহ জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটগনের মতামত নেয়ার প্রয়োজন ছিলো।

এই বিভাগের আরও খবর

বসুন্ধরা বিটুমিন

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০  
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT