নবম শ্রেনীর ছাত্র খুন ॥ চরমোনাইতে কালাবাগান থেকে মরদেহ উদ্ধার নবম শ্রেনীর ছাত্র খুন ॥ চরমোনাইতে কালাবাগান থেকে মরদেহ উদ্ধার - ajkerparibartan.com
নবম শ্রেনীর ছাত্র খুন ॥ চরমোনাইতে কালাবাগান থেকে মরদেহ উদ্ধার

2:48 pm , October 5, 2021

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ নিখোঁজের দুইদিন পর বরিশাল সদর উপজেলায় চরমোনাই ইউনিয়নের রাজারচর গ্রামের চরকান্দা এলাকার একটি কলাবাগান থেকে স্কুল ছাত্র মো. সাকিবের (১৭) মরদেহ উদ্ধার করেছে কোতোয়ালী মডেল থানা পুলিশ। নিহত সাকিব রাজারচর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির ছাত্র ছিল এবং ওই এলাকার আনোয়ার হোসেনের ছেলে। পুলিশের ধারণা সাকিবকে হত্যার পর মরদেহ কলাবাগানে ফেলে রাখে দুর্বৃত্তরা। নিহতের পরিবারের সদস্যরা জানান, গত ৩ অক্টোবর সন্ধ্য্য়া এক কিশোর বাড়ি থেকে সাকিবকে ডেকে নিয়ে যায়। রাতে সাকিব আর বাড়ি ফেরেনি। পরে অনেক খোঁজাখুঁজি করেও তাকে আর পাওয়া যায়নি। এমনকি বিভিন্ন স্বজনের বাড়ি থেকে শুরু করে সাকিবের বন্ধুদের বাড়িতেও খোজ নিয়ে তার সন্ধান মেলেনি। মঙ্গলবার দুপুরে বাড়ি থেকে কিছু দূরে কলাবাগানের একটি ঝোপের মধ্যে মরদেহ দেখে স্থানীয়রা সাকিবের বাড়িতে খবর দেয়। এরপর সাকিবের স্বজনরা সেখানে গিয়ে মরদেহ সনাক্ত করেন। খবর পেয়ে বিকেলে কোতোয়ালী মডেল থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে মরদেহের সুরতহাল করেন। সাকিবের একাধিক বন্ধু ও স্থানীয়রা বলেন, সাকিবের সঙ্গে এক কিশোরীর প্রেমের সম্পর্ক নিয়ে আরেক কিশোরের সাথে দ্বন্দ্ব চলছিল দীর্ঘদিন ধরে। এছাড়া সাকিবের সাথে গ্রামের কোন ছেলেদের দ্বন্দ্ব নেই। তাদের ধারণা ওই প্রেমের জের ধরে সাকিবকে হত্যা করা হতে পারে। মরদেহ উদ্ধারকারী কোতোয়ালী মডেল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) লোকমান হোসেন জানান, মরদেহে পচন ধরেছে। প্রাথমিকভাবে ধারনা করা হচ্ছে সাকিবকে হত্যা করে মরদেহ কলাবাগানে ফেলে রাখা হয়। এ ঘটনায় সন্দেহভাজন একজনকে আটকে জিজ্ঞাসাবাদ চলছে। ময়নাতদন্তের জন্য মরদেহ বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

এই বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০৩১  
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT