মেয়র এবং পুলিশ-প্রশাসনের সমঝোতা মেয়র এবং পুলিশ-প্রশাসনের সমঝোতা - ajkerparibartan.com
মেয়র এবং পুলিশ-প্রশাসনের সমঝোতা

3:10 pm , August 23, 2021

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ নগরীর সদর উপজেলা কমপ্লেক্সে ও ইউএনও’র বাসভবনে গত বুধবার রাতে অপ্রীতিকর ঘটনা এবং পুলিশ ও আনসারের গুলিবর্ষনের ঘটনায় মামলা পাল্টা মামলা সহ চলমান অস্থিরতার অবসান হয়েছে। রোববার রাত সাড়ে ১০টা থেকে দেড়টা পর্যন্ত বরিশাল বিভাগীয় কমিশনারের বাসভবনে সিটি মেয়র, প্রশাসন ও পুলিশ বিভাগের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের বৈঠকে সমঝোতা হয়েছে বলে জানিয়েছেন একাধিক পক্ষ।
বৈঠকে দীর্ঘ আলোচনার পরে সব পক্ষ মামলা তুলে নেয়ার সিদ্ধান্তের প্রেক্ষিতেই সমঝোতা হয়েছে বলে জানা গেছে। সিটি করপোরেশন গভীর রাতে এক বিবৃতিতে ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ গড়ার লক্ষ্যে সবাই ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার অঙ্গীকার করেছে’ বলে জানিয়েছে।
এ বিষয়ে বিভাগীয় কমিশনার সাইফুল আহসান বাদল ও জেলা প্রশাসক জসিম উদ্দিন হায়দারের সাথে সেল ফোনে যোগোযোগের চেষ্টা করেও পাওয়া যায়নি। বিভাগীয় কমিশনার মো. সাইফুল হাসান বাদলের মধ্যস্থতায় নগরীর রাজা বাহাদুর সড়কে তাঁর সরকারী বাসভবনে সমঝোতা বৈঠকে সিটি মেয়র সেরনিয়াবাত সাদিক আবদুল্লাহ, মহানগর পুলিশ কমিশনার শাহাবুদ্দিন খান, ডিআইজি এসএম আক্তারুজ্জামান, জেলা প্রশাসক জসীম উদ্দীন হায়দার, পুলিশ সুপার মো. মারুফ হোসেন, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক তালুকদার মো. ইউনুস, মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি একেএম জাহাঙ্গীর হোসাইন, প্যানেল মেয়র গাজী নঈমুল হোসেন লিটুসহ প্রশাসনের অন্য কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।
বিষয়টি নিশ্চিত করে সমঝোতা সভায় অংশ নেয়া একজন আওয়ামী লীগ নেতা নাম প্রকাশ না করে বলেন, ‘সমঝোতার কিছু নেই। প্রশাসন এবং আমরা উভয়েই বুঝতে পারছি যে আমাদের মধ্যে দ্বন্ধের কারণে সরকারের বদনাম হচ্ছে। তাই আমরা চাই যেটা হয়েছে সেটা এ পর্যন্ত থেমে যাক।
তিনি বলেন, বিভাগীয় কমিশনার রাতে সকলকে চায়ের আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন। এ কারণে মেয়রসহ সকলে সেখানে উপস্থিত হয়েছিলাম। চা খেতে খেতে ১০-১৫ মিনিটের মতো আমাদের মধ্যে সমসাময়িক বিষয় নিয়ে কথা হয়। আসলে যা ঘটেছে, সেটা অনাকাঙ্খিত এবং ভুল বোঝাবুঝি। তাই বিষয়টি এ পর্যন্ত শেষ করা হয়েছে।
আওয়ামীলীগের এই নেতা জানিয়েছেন, সমঝোতার কারণে পুলিশ নেতাকর্মী বা বিসিসির কর্মীদের কোনো প্রকার হয়রানি করবে না। নেতা-কর্মীরাও কোনো প্রকার আন্দোলনে যাবে না। উভয় পক্ষের মামলার বিষয়টি আইনি প্রক্রিয়ায় সমাধান করা হবে। সমঝোতার বিষয়ে আওয়ামী লীগ এবং প্রশাসনের পক্ষ থেকে পৃথকভাবে প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে জানানো হবে বলেও আওয়ামী লীগের এই নেতা নিশ্চিত করেছেন।
উল্লেখ্য, গত বুধবার রাতে সদর উপজেলা পরিষদ কমপ্লেক্স ও ইউএনও’র বাসভবনে গোলযোগের ঘটনায় ইউএনও সিটি মেয়র সাদিক আবদুল্লাহ সহ ছাত্রলীগ ও যুব লীগের বিপুল সংখ্যক নেতা কর্মীদের বিরুদ্ধে এবং পুলিশ প্রথমে অজ্ঞাতনামা ৪শ নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে। পরবর্তীতে পুলিশ হত্যা চেষ্টার অভিযোগে মেয়র সহ বিপুল সংখ্যক নেতা কর্মীর বিরুদ্ধে আরো একটি মামলা দায়ের করে পুলিশ। এসব মামলায় ২৩ জন নেতা কর্র্মীকে গ্রেফতারও করা হয়েছে। রোববার সিটি করেপারেশনের প্যানেল মেয়র এবং স্টেট অফিসার সদর ইউএনও এবং কোতয়ালী থানার ওসির বিরুদ্ধে দুটি ভিন্ন মামলা দায়েরের পরে আদালত তা গ্রহন করে তদন্ত করে ২৩ সেপ্টেম্বরের মধ্যে পিবিআই’কে নির্দেশ দেয়।
রোববার দিনভরই সব পক্ষ থেকে সমঝোতার আভাস পাওয়া যাচ্ছিল। স্থানীয় সরকার মন্ত্রীও রোববার বিষয়টিকে ‘ ভুল বোঝাবুঝি’ বলে ‘দ্রুত সমাধান হয়ে যাবে’ বলেও জানিয়েছিলেন।’ সমঝোতার ঘটনাকে বরিশালবাসী শান্তির সু-বাতাস বলে আখ্যায়িত করেছেন।

এই বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০৩১  
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT