প্রশাসন একে অপরকে দুষছেন প্রশাসন একে অপরকে দুষছেন - ajkerparibartan.com
প্রশাসন একে অপরকে দুষছেন

2:20 pm , July 23, 2021

সরকারী নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে ফেরি ও ট্রলারে করে ভোলার মেঘনা পার হচ্ছে যাত্রীরা

মোঃ আফজাল হোসেন, ভোলা ॥ সরকারী নিষেধাজ্ঞা মানছে না খোদ স্থানীয় প্রশাসনই। ভোলায় ঈদ-পরবর্তী লকডাউনে কোস্টগার্ড ও নৌ-পুলিশের সামনে তাদের সহযোগীতায় ফেরি এবং ট্রলারে যাত্রী পারাপার করছে। সরকার ঘোষিত ১৪ দিনের কঠোর বিধি নিষেধের প্রথম দিন আজ শুক্রবার। তবে সকাল থেকেই ঢাকা ও চট্রগ্রামমুখী ভোলার শত শত মানুষের ঢল নামে ইলিশা ফেরি ঘাটে।এসব মানুষেরা তাদের কর্মস্থলে ফিরতে মরিয়া। এসব মানুষ ভোলার ইলিশা থেকে লক্ষিপুর যাবার জন্য ফেরিত করে পারাপারের জন্য অপেক্ষা করে। এক পর্যায় ফেরি কাউন্টারের একজন স্টাফ এসে স্থানীয় ভাবে দ্বায়িত্বপ্রাপ্ত কোস্টগার্ড এর সাথে কথা বলার পরে ছেড়ে দেয়া হয় সকল যাত্রীদের। ফলে কোষ্টগার্ড ও নৌ-পুলিশ সদস্যদের উপস্থিতে ফেরিতে যাত্রী বোঝাই করে লক্ষীপুরের উদ্দেশ্য ছেড়ে যায়। শুধু তাই নয় পাশাপাশি জীবনের ঝুঁকি নিয়ে উত্তাল মেঘনা পাড়ি দিয়ে ট্রলার ও স্পিডবোটে করে ভোলা-থেকে লক্ষ্মী পুরে যাচ্ছেন যাত্রীরা। এসব বিষয় যাত্রীদের সাথে আলাপ কালে তারা বলেন, তাদের যেতেই হবে। রাস্তায় মাইক্রো,মাহেন্দ্র,রিক্সা ও এ্যাম্বুলেন্সে করে এসেছেন। লক্ষিপুর থেকে একই ভাবে যেতে হবে বলে চরফ্যাশনের যাত্রী মো কাইয়ুম ও তজুমদ্দিন থেকে আসা চট্রগ্রামমুখী আকরাম এসব কথা বলেন। এদিকে এবিষয় বিআইডবি¬উটির ফেরির ঘাট ম্যানেজার মো পারভেজ খান বলেন, এটা আমাদের দেখার বিষয় নয়,প্রশাসনের দেখার দ্বায়িত্ব। তার পরেও আমি খোজ নিয়ে দেখছি। কোস্টগার্ড এর উর্ধতন কর্মকর্তাদের ফোন দিলে তারা মুঠোফোন রিসিফ করেনি। অপরদিকে ভোলার জেলা প্রশাসক মো তৌফিক-ই-লাহী চৌধুরী বলেন,আমাদের মোবাইল টিম মাঝ মাঝে যাচ্ছে ইলিশাতে। তবে এটা বিআইডবি¬উটি’র দেখার বিষয় আমি তাদেরকে জানাচ্ছি।

এই বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT