১৪ জুন ২৮ তম মৃত্যুবার্ষিকীর শ্রদ্ধাঞ্জলি সংকীর্ণতা বিবর্জিত ব্যক্তিত্ব অমৃত লাল দে ১৪ জুন ২৮ তম মৃত্যুবার্ষিকীর শ্রদ্ধাঞ্জলি সংকীর্ণতা বিবর্জিত ব্যক্তিত্ব অমৃত লাল দে - ajkerparibartan.com
১৪ জুন ২৮ তম মৃত্যুবার্ষিকীর শ্রদ্ধাঞ্জলি সংকীর্ণতা বিবর্জিত ব্যক্তিত্ব অমৃত লাল দে

3:27 pm , June 12, 2021

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ মাঝে মাঝে ত্যাগী ও সৎ মানুষের জন্ম হয়। এসব মানুষ প্রজ্ঞাবান, প্রেমবান। আর এসব মানুষের মধ্যে যিনি অনন্যÑ যার মহিমা গগন চুম্বী, চিন্তা-চেতনায়, মননে মানসিকতায়, সত্য-সাধনায়, প্রেম-কল্যাণে, যিনি মানুষের জন্য অনুপম আদর্শ, তিনি অমৃত লাল দে। সত্য, শ্রেয়, পূর্ণতা জয়ী ব্যক্তিত্ব অমৃত লাল দে। সংকীর্ণতা বিবর্জিত মানবহিতৈষী জনহিতকর কাজের জন্য তিনি প্রশংসনীয় এবং সর্বস্তরের জনসাধারণের কাছে সমাদৃত।
খুব ছোট থেকে নিজেকে বড় করে ভুলে যাননি তাঁর অতীত। দক্ষিণ বাংলায় কর্মসংস্থানমূলক প্রতিষ্ঠান প্রতিষ্ঠা করে হাজার হাজার বেকার, দুঃস্থ নর-নারীর কাজের সংস্থান করে দিয়েছেন। তাঁর সুদক্ষ পরিচালনায় এবং শ্রমিক ও কর্মচারীদের প্রতি ভ্রাতৃত্বসুলভ আচরণের জন্য তিনি সবার কাছে পরিচিত হন বড় কাকু হিসেবে। সমাজের সার্বিক কল্যাণের জন্য তাঁর নিঃস্বার্থ কর্মকা- দুস্থজনকে উৎসাহিত করেছে। লোকহিতৈষী, সত্যপরায়ণ অমৃত লাল দে মননশীল দৃষ্টিভঙ্গি নিয়ে জাতি-ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে মসজিদ-মন্দির-শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অর্থ প্রদানে কার্পণ্য করেননি। অমৃতভাষী, সদানন্দময়, অমায়িক ব্যক্তি প্রাকৃতিক দুর্যোগ বা অন্য কোন কারণে কেউ বিপদগ্রস্ত হলে তার সাহায্যে কুণ্ঠাবোধ করেননি। অনাথ অবিবাহিতা মেয়েদের বিয়ের ব্যাপারে আর্থিক সাহায্য দিয়ে কন্যাদায়গ্রস্ত অসংখ্য পিতা-মাতাকে মুক্ত করেছেন। মানুষের মঝে ঈশ্বর অধিষ্ঠিত একথা তিনি বুঝিয়েছেন সমাজসেবামূলক কাজ দিয়ে।
অমৃত লাল দে ছিলেন প্রত্যয়দীপ্ত সার্থক কর্মবীর। কষ্টার্জিত অর্থে বহু শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের উন্নতিকল্পে সহযোগিতা করেছেন অকাতরে। তাঁর কর্মজীবনে স্থানীয় সরকার ও জন প্রতিনিধিত্ব মূলক বহু সংস্থায় তিনি সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন। জনকল্যাণমূলক সেবা প্রতিষ্ঠানের সর্বোচ্চ পদে তিনি আসীন ছিলেন। অমৃত লাল দে তাঁর কর্ম জীবনে যে অসাধারণ নিষ্ঠা, আত্মপ্রত্যয় ও কর্মদক্ষতা দেখিয়েছেনÑ শূন্য থেকে পূর্ণের যে নজির তিনি সৃষ্টি করেছেন কর্মের মধ্য দিয়ে নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ নিবাচনে প্রার্থী কোন দলের, বর্ণের বা ধর্মের তা বিবেচ্য বিষয় নয়; আমাদের কাজ হলো সবাইকে সমান সুযোগ দিয়ে সুষ্ঠু নির্বাচন সম্পন্ন করা। এই নির্বাচন এপ্রিলে হওয়ার কথা থাকলেও করোনার কারণে পিছিয়ে দেওয়া হয়েছিল। নির্বাচন হলো জনগণের গণতান্ত্রিক অধিকার। এখন বর্ষা মৌসূম শুরু হলেও পাশাপশি করোনার প্রার্দুভাবের মধ্যেই আমাদের পৌরসভা ও ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন করতে হচ্ছে বলেন- প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নূরুল হুদা। গতকাল শনিবার বেলা ১১ টায় সার্কিট হাউসের সভাকক্ষে নির্বাচন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের উপস্থিতিতে আইন শৃঙ্খলা সংক্রান্ত এই সভা হয়। প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি বলেন, এর আগেও বরিশাল বিভাগের কর্মকর্তারা নির্বাচন সম্পন্নের ক্ষেত্রে যথেষ্ট ভূমিকা রেখেছেন। তিনি আশা করছেন এবারও তারা তাদের দায়িত্ব পালন করবেন। এজন্য আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারীদের প্রতি আহবান করেন, এই নির্বাচনে তারা যেন বিধি বর্হিভূত কোন কাজ না করেন। এসময় তিনি আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সহযোগিতা ছাড়া কোন ভাবেই নির্বাচন সুষ্ঠু করা সম্ভব হবে না বলে উল্লেখ করেন। নির্বাচনে যেন কোন ধরনের পক্ষপাতিত্ব কাজ না করে সেদিকে সবাইকে সজাগ থাকার আহবান করার পাশাপাশি কঠোরভাবে দায়িত্ব পালন করার আহবান করেন। জেলা প্রশাসক জসীম উদ্দীন হায়দারের সভাপতিত্বে বরিশাল সার্কিট হাউজ ধানসিঁড়ি মিলনায়নতন সভা কক্ষে অনুষ্ঠিত আইন শৃঙ্খলা সংক্রান্ত সভায় বিশেষ অতিথি ছিলেন বিভাগীয় কমিশনার (অতিরিক্ত) সচিব মো. সাইফুল হাসান বাদল, নগর পুলিশ কমিশনার মো. শাহাবুদ্দিন খান, ডিআইজি এস এম আক্তারুজ্জানসহ নির্বাচন কমিশনের যুগ্ম সচিব ফরহাদ আহম্মদ খান, বরিশাল অঞ্চল আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা মোঃ আলাউদ্দীন সহ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা। পরে প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নুরুল হুদা আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য ও নির্বাহী বিভাগের কর্মকর্তাদের সাথে এক রুদ্ধদার বৈঠকে বসেন।তার তুলনা মেলা ভার। স্বল্পভাষী, সদাপ্রফুল্ল এই অসাধারণ মানুষটি বরিশালবাসীর মনে যে সম্মান ও শ্রদ্ধার আসনে প্রতিষ্ঠিত তার মূলে রয়েছে কর্মযোগ।
মহৎপ্রাণ অমৃত লাল দে-এর জীবন মানবিক আদর্শ। তাঁর কর্ম সৎজীবন গঠনের অনুপ্রেরণা। মানব প্রেমের বন্ধনে মানুষে মানুষে সম্মিলন তাঁর ভাবনা। দুস্থ মানবতার সেবা তাঁর অভ্যাস। সর্বজীবের প্রতি দয়া তাঁর অলংকার। শিক্ষা তাঁর একাগ্র ইচ্ছা। ধর্ম তাঁর কাছে মানবাত্মার সাথে ঈশ্বরাত্মার মিলন। ত্যাগ তাঁর ভূষণ। লোভ-মোহ-হিংসায় তাঁর ঘৃণা। বৈরাগ্য-সরলতা ছিল তাঁর অহংকার।
১৩৩১ বঙ্গাব্দের ১৩ আষাঢ়/ ১৯২৪ খ্রিস্টাব্দের ২৭ জুন শরিয়তপুর জেলার নড়িয়া থানার চ-ীপুরের পাঁচগাঁও গ্রামে অমৃত লাল দে-এর জন্ম। পিতার নাম রাসমোহন দে। মা সারদা সুন্দরী দে। তাঁর সহধর্মিনী ছিলেন শ্রীমতি যোগমায়া দে। ১৪০০ বঙ্গাব্দের ৩০ জৈষ্ঠ্য/ ১৯৯৩ সালের ১৪ জুন ঊনসত্তর বছরে তিনি ইহলোক ত্যাগ করেন।
তাঁর ২৮তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে আগামী ১৪ জুন সোমবার অমৃত লাল দে মহাবিদ্যালয় প্রাঙ্গনে অবস্থিত সমাধি মন্দিরে পারিবারিকভাবে পুষ্পার্ঘ্য অর্পন এবং ধর্মীয় অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে।২৮ তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে মহৎপ্রাণ অমৃত লাল দে-এর প্রতি জানাই শ্রদ্ধাঞ্জলি।

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT