ইয়াশ-এর প্লাবনে দক্ষিনাঞ্চলের প্রাণিসম্পদের ব্যাপক ক্ষতি ইয়াশ-এর প্লাবনে দক্ষিনাঞ্চলের প্রাণিসম্পদের ব্যাপক ক্ষতি - ajkerparibartan.com
ইয়াশ-এর প্লাবনে দক্ষিনাঞ্চলের প্রাণিসম্পদের ব্যাপক ক্ষতি

12:54 pm , June 3, 2021

বিশেষ প্রতিবেদক ॥ সাম্প্রতিক ঘূর্ণিঝড় ‘ইয়াস’এর প্রভাবে ফুসে ওঠা সাগরের জোয়ারে দক্ষিণ উপকূলের বিপুল সংখ্যক গরু-মহিষ ভেসে গেলেও তার সঠিক হিসেব এখনো প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের কাছে নেই। দ্বীপজেলা ভোলা ছাড়াও বরগুনা, পটুয়াখালী, পিরোজপুর ও বরিশালের বিভিন্ন চরাঞ্চল ইয়াস-এর জোয়ারে সয়লাব হয়ে যাওয়ায় প্রাণিসম্পদ খাতের ক্ষতি ব্যাপক। এমনকি সাগরের লবনাক্ত পানি পান করেও বিপুল সংখ্যক গরু মহিষ মারা গেছে। ভোলার ঢালচর, চর কুকরি-মুকরি সহ অনেক চরাঞ্চলে এখনো পঁচাগলা গবাদি পশুর দূর্গন্ধে এলাকার পরিবেশ বিপন্ন। অনেকেই এসব পশু মাটি চাঁপা দিতে না পাড়ায় জোয়রের পানিতে নদীতে ভাসিয়ে দিচ্ছেন। শুধু ভোলার ৫৭ টি ইউনিয়নে ৫ হাজার ৫৫৭টি গরু, সাড়ে ৩ হাজারের ওপর মহিষ ১১ হাজারেরও বেশী ছাগল ও দুই সহশ্রাধীক ভেড়া নিখোঁজ হয়েছে। এরমধ্যে ৫ শতাধীক গরু, মহিষ, ছাগাল ও ভেড়া ইতোমধ্যে মারা গেছে বলে জানা গেছে। ভোলার বিচ্ছিন্ন দ্বীপ ঢালচর ও চর কুকরি-মুকরী সহ বিস্তির্ণ চরাঞ্চলের গবাদীপশু নিয়ে চরম বিপদগ্রস্থ সেখানে বসবাসরত গৃহস্থিরা। ইয়াস-এর প্রবল জোয়ারে চোখের সামনে শত শত গবাদীপশু ভেসে যেতে দেখে অনেক গৃহস্থ মানষিকভাবেও বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছেন। প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের মতে ভোলাতে ৯৪টি গরু, ৯৭টি মহিষ, ৪৫টি ছাগল ও ১৭৬টি ভেড়া বানের পানির তোড়ে মারা গেছে। এছাড়া ৮ হাজার ১৮৪টি মুরগী ও ৩ হাজার ৮৪ টি হাাঁস মারা গেছে এ ঝড়ে। প্র্রবল জোয়ারে ৪ হাজার ৪৩৩ একর চারন ভূমিও ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে বলে জানিয়েছেন ভোলার প্রাণি সম্পদ কর্মকর্তা। আর বরিশাল বিভাগীয় প্রাণিসম্পদ দপ্তরের মতে দক্ষিণাঞ্চলের ৬ জেলায় সর্বশেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত জোয়ারের প্লাবনে ৮৯৫টি গরু, ৭৫৯টি মহিষ, প্রায় দেড় হাজার ছাগল, ২৬ হাজারেরও বেশী মুরগী ও ৮ হাজারের মত হাঁস ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। এরমধ্যে ৪টি মহিষ, ১টি ছাগল ১৫২টি হাঁস ও ৯০১টি মুরগী মারা গেছে বলে বিভাগীয় প্রাণিসম্পদ দপ্তর জনিয়েছে। এ ব্যপারে প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের বরিশাল বিভাগীয় পরিচালকের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জনান, আমরা ক্ষয়ক্ষতির তথ্য সংগ্রহ করে সদর দপ্তরে জানিয়েছি। তিনি প্রয়োজনে জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলারও পরার্মশ দেন। এদিকে দক্ষিণ উপকূলে এখনো দূর্যোগকালীন সময়ে একভাগ প্রাণিসম্পদের জন্যও নিরাপদ আশ্রয় নিশ্চিত করা যায়নি। ১৯৭০-এর প্রলয়ঙ্কারী ঘূর্ণিঝড় ‘হেরিকেন’এর পরে ভোলা, পটুয়াখালী ও বরগুনা উপকূলে ৫০টি মাটির কিল্লা নির্মান করা হলেও তার বেশীরভাগই ইতোমধ্যে বিনষ্ট হয়ে গেছে। তবে ‘মুজিব কিল্লা’খ্যাত এসব কিল্লা সম্প্রতিককালে সংস্কার সহ নতুন আরো বেশ কিছু আধুনিক কিল্লার নির্মান কাজও শুরু করতে যাচ্ছে সরকার। ভোলাতেই নতুন ৫০টি কিল্লা নির্মানের প্রস্তাবনা রয়েছে বরে জানা গেছে।

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT