শীতলাখোলায় সড়কের উপর স্থাপনা নির্মাণ শীতলাখোলায় সড়কের উপর স্থাপনা নির্মাণ - ajkerparibartan.com
শীতলাখোলায় সড়কের উপর স্থাপনা নির্মাণ

3:55 pm , May 29, 2021

 

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ নগরীর শীতলা খোলা এলাকায় সড়ক কেটে স্থাপনা নির্মান করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। অভিযোগ উঠেছে বিসিসি’র সড়ক পরিদর্শক’র (আরআই) মো: সোহেলের রহস্যজনক ভুমিকার কারনে সড়ক দখল করে স্থাপনা নির্মান করা হয়েছে। স্থানীয় বাসিন্দারা জানান, আড়াই মাস পূর্বে শীতলাখোলা পানির পাম্প সংলগ্ন বিসিসি মালিকানাধীন সড়ক দখল করে স্থায়ী স্থাপনা ও সিড়ি নির্মান কাজ শুরু করে বাসিন্দা বিভা বাড়ৈ। তখন এলাকাবাসীর পক্ষে ১৯ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর গাজী নঈমুল হোসেন লিটুকে অবহিত করা হয়। তিনি লিখিতভাবে অভিযোগ দেয়ার পরামর্শ দেন। এক পর্যায়ে সচিব জুয়েল খান ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। সে গিয়ে অবৈধস্থাপনাকারীকে তিরস্কার করেন । এছাড়াও সড়কের উপর নির্মান করা অংশ ভেঙ্গে ফেলে নির্দিষ্ট দুরত্ব বজায় রেখে পুনরায় স্থাপনা নির্মানের পরামর্শ দেন। কয়েকদিন সড়কের ওই স্থান পর্দা দিয়ে ঢেকে পুনরায় স্থাপনা নির্মান করেন বিভা বাড়ৈ। তখন বিষয়টি বিসিসি আর আই মো. সোহেলকে অবহিত করে এলাকাবাসী। তিনি ঘটনাস্থলে এসে পুনরায় কাজ বন্ধ করেন এবং বিসিসির নিয়ম মেনে কাজ করার নির্দেশ প্রদান করেন। কয়েকদিন যেতে না যেতেই বিভা বাড়ৈ ঐ নির্দেশনা অমান্য করে নির্মান কাজ চালিয়ে যায়। বর্তমানে সড়কের মধ্যে অবৈধ স্থাপনা নির্মান কাজ শেষ করেছে বিভা বাড়ৈ।
স্থানীয় বাসিন্দা চন্দন জ্যোতি শীল জানান, অবৈধ কাজের শুরুতেই বিসিসিকে অবগত করা হয়। কিন্তু গত প্রায় আড়াই মাসেও সড়ক দখল করে স্থাপনা নির্মানের বিষয়ে কোন ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। এমনকি এ বিষয়ে গত ১৫ এপ্রিল বিসিসির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে লিখিত অভিযোগ করা হয়। সেই অভিযোগের প্রায় দেড়মাস পার হয়েছে। কিন্তু কোন ব্যবস্থা না নেয়ায় বিসিসি মেয়রের কাছে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদে জন্য আবেদন করা হয়েছে।
প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ফারুক আহম্মেদ বলেছেন, বিষয়টি খোঁজ নিয়ে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এই বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT