লকডাউনের মধ্যেও উজিরপুরে চলছে এনজিওর কিস্তি আদায় লকডাউনের মধ্যেও উজিরপুরে চলছে এনজিওর কিস্তি আদায় - ajkerparibartan.com
লকডাউনের মধ্যেও উজিরপুরে চলছে এনজিওর কিস্তি আদায়

2:58 pm , April 6, 2021

 

শাকিল মাহমুদ বাচ্চু, উজিরপুর ॥ শিকারপুর বন্দরে নরু সুন্দর পলাশ পোদ্দার (৩৫)। দোকান ও ভাড়া বাসায় বাস করতে হয় তাকে। লক ডাউনের কারনে গত দুই দিন ধরে সেলুন বন্ধ। আয় রোজগার নাই। বাসা ভাড়া দোকান ভাড়া সবই বাকী। কি করবেন তা নিয়ে বেশ চিন্তিত ! তার মধ্যে মঙ্গলবার সকালে কিস্তি’র টাকার জন্য গ্রামীন ব্যাংক কর্মী হাজির। নিজে পালিয়েও রক্ষা হয়নি। বাসায় লোক পাঠিয়ে কিস্তির তাগিদ দেয়ায় মান সম্মানের ভয়ে ধার করে টাকা দিতে হয়েছে পলাশ পোদ্দারকে। তার মত একই বাজারের ব্যবসায়ী আউয়াল মৃধা (৪০ ধার দেনা করে কিস্তি দিয়েছে। লকডাউনের মধ্যে উজিরপুর উপজেলার গ্রামাঞ্চলের মানুষের কাছ থেকে জোড় পূর্বক কিস্তি আদায় করছেন গ্রামীন ব্যাংক সহ বেশ কয়েকটি এনজিও। লকডাঊনের মধ্যে কর্মহীন গ্রামাঞ্চলের মানুষের কাছে এনজিও কর্মীদের কিস্তি আদায় বাড়তি আতংক হয়ে উঠেছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক ব্যাক্তি জানিয়েছেন, লকডাউনের মধ্যে কিস্তি আদায় ঘটনা অমানবিক। অনেকেই মান সম্মানের ভয়ে কিস্তি’র টাকা দিতে বাধ্য হচ্ছেন। মঙ্গলবার সকালে উজিরপুরের শিকারপুর বাজারের একটি কেন্দ্রে কিস্তি’র টাকা আদায়কালে গ্রামীন ব্যাংকের কর্মী নুর জাহান বেগম সাংবাদিকদের বলেন, আমরাও তো জীবনের ঝুকি নিয়ে গ্রামে গ্রামে গিয়ে কিস্তি আদায় করছি। সরকার বা আমাদের কর্মকর্তারা কিস্তি আদায় বন্ধ করার নির্দেশ দিলে আসতাম না। গ্রামীন ব্যাংক উজিরপুর ব্রাঞ্চ ম্যানেজার জাহিদুল হাসান জানিয়েছেন, ঋনের টাকার কিস্তি আদায়ের চেয়ে বিতরনে প্রধান্য দেয়া হচ্ছে। কিস্তি’র টাকা আদায়ের কথা স্বীকার করে তিনি বলেন, কারও কাছ থেকে জোর করে টাকা আদায় করা হচ্ছে না। উজিরপুর মডেল থানার ওসি জিয়াউল অহসান বলেন, করোনা বৃদ্ধি পাওয়ায় লক ডাউনের মধ্যে কিস্তি আদায় অমানবিক। কেউ যদি লিখিত অভিযোগ দেয় তা হলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে ।

এই বিভাগের আরও খবর

বসুন্ধরা বিটুমিন

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২
১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
২০২১২২২৩২৪২৫২৬
২৭২৮২৯৩০  
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT