তালতলীতে কালভার্ট ও সড়ক নির্মাণে অনিয়ম তালতলীতে কালভার্ট ও সড়ক নির্মাণে অনিয়ম - ajkerparibartan.com
তালতলীতে কালভার্ট ও সড়ক নির্মাণে অনিয়ম

3:24 pm , March 14, 2021

 

এম সাইফুল ইসলাম, বরগুনা ॥ বরগুনার তালতলীতে এলজিইডি’র আওতায় একটি বক্স কালভার্ট ও সড়ক নির্মাণে অনিয়মের অভিযোগ পাওয়া গেছে। নির্মাণ কাজে নি¤œমানের ইট ও নরম কাঁদা মাটির উপর ঢালাইয়ের কাজ, খালের নোনা পানি দিয়ে সিমেন্ট ও বালির মিশ্রণ করে ঢালাই, রাস্তায় বিটুমিন না দিয়ে কার্পেটিং কাজ করা সহ নানা অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে।উপজেলার কড়াইবাড়ীয়া ইউনিয়নের ঝারাখালী গ্রামে ফকির বাড়ী সংলগ্ন রাস্তা ও কালভার্ট নির্মাণে এমন অভিযোগ উঠেছে। এলাকাবাসীর অভিযোগ, রাস্তা নির্মাণ কাজে নি¤œমানের খোয়া ও মাটির উপরে পিচ ঢালাই দিয়ে রাস্তার কাজ করছে। আর কালভার্টের জন্য আট ফুটের বেশি আছে নরম মাটি কিন্তু ঠিকাদার ও ইঞ্জিনিয়ারের যোগসূত্রে ৩ ফুট বাশের বললি ও পাঁচ ফুট কাঠের বললি মাটিতে পুঁতে তার উপরে ঢালাইয়ের কাজ করার চেষ্টা করছে। কিন্তু শক্ত মাটির স্তর পৌঁছাতে প্রায় ৮ ফুট মাটি খনন করতে হবে। এ সময় স্থানীয়রা একটি বলি কাদা মাটির মধ্যে বসান, যেটি ৮ ফুটের বেশী মাটিতে ঢুকে গেছে। এছাড়া অত্যন্ত নি¤œমানের ইট দিয়ে নির্মাণ করা হচ্ছে কালভার্ট। কিন্তু ইঞ্জিনিয়ার আহম্মদ আলী বারবার এসে দেখে গেলেও এ ব্যপারে কোনো ব্যবস্থা নিচ্ছে না। ঝারাখালী গ্রামের জামাল মোল্লা, ওমর ফারুক, মজিবুর রহমান, জসিম মোল্লা, আবুল কাসেম গাজী, আব্দুর রহিম ফকির সহ কয়েকজন স্থানীয়রা জানান, আগে এখানে একটি আয়রন ব্রিজ ছিল ওই ব্রিজটিও নির্মাণের সময় নি¤œমানের সামগ্রী ও মাটি খনন কম করে নরম মাটির উপরে ঢালাই দিয়ে ব্রিজ নির্মাণ করছে, যার কারণে ব্রিজ নির্মাণের দুই বছর পরে দেবে গিয়ে ভেঙে গেছে। এ তে এলাকাবাসীকে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। রাস্তা নির্মাণের নি¤œমানের সামগ্রী ও পিচ না দিয়েই নির্মাণ করছে যার কারণে রাস্তা বেশিদিন টেকসই হবে না। এলাকাবাসী আরও বলেন, ’এই রকমের কালভার্ট ও সড়ক আমরা চাই না, এই কালভার্ট ও সড়ক আমাদের কোনো কাজে আসবে না’। এ বিষয়ে ঠিকাদার বাদশার কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আপনারা ইঞ্জিনিয়ার আহম্মদ আলীর এর কাছে থেকে জেনে নেন। এলজিইডির উপজেলা প্রকৌশলী আহম্মদ আলীর কাছে জানতে চাইলে তিনি সাংবাদিকদেরকে বলেন ’আপনারা অফিসে আসেন’, অফিসে গিয়ে জানতে চাইলে তিনি ক্ষোভের সাথে বলেন, ’ওই কাজ আমি এখনই বন্ধ করে দিচ্ছি, ওখানে কোন কাজ হবে না, কাজটি আমি দিয়েছিলাম এখন আমি বন্ধ করে দিচ্ছি’। এক পর্যায় সাংবাদিকদের তিনি চা খেতে বলেন এর পর বলেন, ’আপনারা বৃহস্পতিবার আসেন এখন আমার অফিস সহকারি সঞ্জীব অফিসে নেই, তিনি অসলে তথ্য দেয়া যাবে’। গত ১১ মার্চ ওই অফিসে গেলে আহম্মদ আলীর অফিস কক্ষ তালাবদ্ধ দেখা যায়। সাংবাদিক দেখে অফিসের পিয়ন শাকিল সাংবাদিকদের সাথে রেগে গিয়ে বলেন, আপনারা কেন আসছেন, কি জন্য আসছেন ? এসব কথা বলে সাংবাদিকদের সাথে বাক-বিতন্ডা করে। এক পর্যায়ে পাশের কক্ষের এক সহকারী ওই কক্ষে ডেকে নেয়, এসময় পিয়ন শাকিল প্রকৌশলী আহমদ আলীকে ফোন দেয়, ফোন কেটে দিয়েই সাংবাদিক শাহাদাতকে কিল ঘুষি ও লাথি মারে, তাকে উদ্ধার করতে গেলে তালতলী সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি ইউছুফকেও কিল ঘুষি মারে পিয়ন শাকিল। এবং শাহাদাতকে কক্ষে আটকে রেখে দরজা বন্ধ করে দেয়ার চেষ্টা করে চাদাবাজী মামলা দেয়ার জন্য পুলিশে সংবাদ দেয়। শাহাদাত হোসেনের ডাকচীৎকারে স্থানীয় সাংবাদিক ও লোকজন এসে তাকে উদ্ধার করে।এ ঘটনায়, থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী ও ১২ মার্চ শুক্রবার সাংবাদিকরা হামলার প্রতিবাদে ও এলজিইডির উপজেলা প্রকৌশলী আহম্মদ আলী সহ তার পিয়ন শাকিলকে গ্রেপ্তারের দাবীতে মানববন্ধন করেন। যা বিভিন্ন জাতীয় ও স্থানীয় গনমাধ্যমে প্রকাশিত হয়। এ ব্যপারে এলজিইডির নির্বাহি প্রকৌশলী এস কে আরিফুল ইসলামের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ’বিষয়টি আমার জানা নেই, আপনাদের কাছে শুনেছি এখন আমি খোজ খবর নেব’।

এই বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০  




মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT