বাকেরগঞ্জের গারুড়িয়া ইউপিতে শিবির নেতা জুলফিকারকে আ’লীগের মনোনয়ন না দেয়ার দাবীতে সংবাদ সম্মেলন বাকেরগঞ্জের গারুড়িয়া ইউপিতে শিবির নেতা জুলফিকারকে আ’লীগের মনোনয়ন না দেয়ার দাবীতে সংবাদ সম্মেলন - ajkerparibartan.com
বাকেরগঞ্জের গারুড়িয়া ইউপিতে শিবির নেতা জুলফিকারকে আ’লীগের মনোনয়ন না দেয়ার দাবীতে সংবাদ সম্মেলন

3:08 pm , March 6, 2021

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ তথ্য গোপন করে প্রতারনার মাধ্যমে আওয়ামী লীগের মনোনয়নে বাকেরগঞ্জ উপজেলার গারুড়িয়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন ছাত্র শিবির নেতা এএসএম জুলফিকার হায়দার। এমন অভিযোগ এনে গতকাল শনিবার সংবাদ সম্মেলন করা হয়েছে। শহীদ আব্দুর রব সেরনিয়াবাত বরিশাল প্রেসক্লাব মিলনায়তনে সংবাদ সম্মেলন করেন ওই ইউপির ২ নং ওয়ার্ডের নির্বাচিত (মেম্বর) সদস্য মো. আলাউদ্দিন হাওলাদার। সংবাদ সম্মেলনে তিনি অভিযোগ করেন তথ্য গোপন ও প্রতারনা করে ২০১৬ সালে আওয়ামী লীগের মনোনয়নে নৌকা প্রতীক নিয়ে নির্বাচনে বিজয়ী হয়ে জামায়াত-শিবির ও বিএনপিকে শক্তিশালী করার কর্মকান্ডে নিজেকে জড়িত করেন। এছাড়াও স্বজন প্রীতি ও অনিয়মের মাধ্যমে কর্মকান্ড করে দুর্নীতিবাজ চেয়ারম্যান হিসেবে খ্যাতি পেয়েছেন। যার ফলে তৃনমূল মানুষের জন্য সরকারের দেয়া সকল সাহায্য সহযোগিতা বঞ্চিত হয়েছে ইউনিয়নের সাধারন মানুষ। ইউপি মেম্বর আরো অভিযোগ করে বলেন, সরকারী গভীর নলকুপ নিতে নগদ ৩০ হাজার টাকা দিতে হয়। টাকা না দিলে নলকুপ মেলে না। গৃহহীনদের জন্য বরাদ্ধ ঘর নেয়ার জন্য নগদ টাকা দিতে হয় তাকে। ঘরের মালামাল গোপনে বিক্রি করার নজির রয়েছে। ভিজিএফ ও ভিজিডির চাল আত্মসাত করেছে চেয়ারম্যান জুলফিকার। বিধবা, প্রতিবন্ধী ও বয়স্কদের ভাতার কার্ড টাকার বিনিময়ে নিতে হয়েছে। চেয়ারম্যান জুলফিকারের এসব কর্মকান্ডে বিভিন্ন সময়ে এলাকাবাসী বিক্ষোভ মিছিল, মানববন্ধন সহ বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করেছে। তিনি আরো অভিযোগ করে বলেন, ইউনিয়ন পরিষদে প্রতিমাসে সদস্যদের নিয়ে একটি সভা করার সিদ্ধান্ত রয়েছে। গত ৫ বছরে একটি সভা করেন তিনি। এছাড়া গোপনে কতিপয় সদস্যদের স্বাক্ষর নিয়ে নিজের ইচ্ছে মত রেজুলেশন বানিয়ে পরিষদকে দূর্নীতির আতুড় ঘর বানিয়েছে। ইউনিয়নের উন্নয়নমূলক কর্মকান্ডে নির্বাচিত সদস্যদের সঠিকভাবে বরাদ্ধ বন্টন করেনি। ইউনিয়নে নির্বাচিত ইউপি নারী সদস্যদের জন্য প্রতিমাসের সম্মানী ৪ হাজার ৪শত টাকা গত ৫ বছরে একটি টাকাও দেননি চেয়ারম্যান। সকল দূর্নীতি, অনিয়ম ও অব্যবস্থার অভিযোগ উপজেলা প্রশাসনের কাছে তুলে ধরার পরও তার বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা গ্রহন করা হয়নি। তাই তিনি বেপরোয়াভাবে দুর্নীতি করছেন। ইউপি সদস্য মো. আলাউদ্দিন অভিযোগ করে বলেন চেয়ারম্যান জুলফিকার ১৯৮৫-৮৬ সালে বাকেরগঞ্জ থানার জামায়াত-শিবিরের সাথে যুক্ত ছিলেন। তারও প্রমান তুলে ধরেন সংবাদ সম্মেলনে। এমনকি ২০২০ সালে তিনি সহ কয়েকজন নারী ইউপি সদস্য বাদী হয়ে জজ আদালতে মামলা করেন। মামলায় আদালত তার বিরুদ্ধে সমন জারী করেছেন। আগামী ১১ এপ্রিল ইউনিয়নে ভোট। ওই ভোটে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন না দেয়ার দাবী করা হয়েছে। এ ছাড়াও একাধিক গ্রামবাসী সংবাদ সম্মেলনে অংশ নিয়ে পার্বত্য শান্তিচুক্তি বাস্তবায়ন কমিটির আহবায়ক (মন্ত্রী) আবুল হাসানাত আব্দুল্লাহ’র কাছে দাবী করেছেন।

এই বিভাগের আরও খবর

বসুন্ধরা বিটুমিন

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০৩১
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT