বরিশাল-ঢাকা রুটের ফ্লাইটের টিকিট তিনগুন টাকায় বিক্রি বরিশাল-ঢাকা রুটের ফ্লাইটের টিকিট তিনগুন টাকায় বিক্রি - ajkerparibartan.com
বরিশাল-ঢাকা রুটের ফ্লাইটের টিকিট তিনগুন টাকায় বিক্রি

3:07 pm , February 22, 2021

সড়ক ও নৌ পথেও দুর্ভোগ

বিশেষ প্রতিবেদক ॥ সাপ্তাহিক দুই দিন ছুটির সাথে রোববার মহান শহীদ ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের ছুটির বন্ধের সুযোগে ঢাকার সাথে দক্ষিণাঞ্চলের সড়ক, নৌ ও আকাশ পথের যাত্রীদের কাছ থেকে বাড়তি ভাড়া আদায়ের অভিযোগ উঠেছে। এতে দুর্ভোগে পড়েছে যাত্রীরা। কিন্তু এসব প্রতিকারে প্রশাসনিক কোন পদক্ষেপ ছিল না। এমনকি রাষ্ট্রীয় আকাশ পরিবহন সংস্থার উড়ান বন্ধের সুবাদে বরিশালÑঢাকার আকাশ পথের মাত্র ৬৭ এ্যরোনটিক্যল মাইল দুরত্বে বেসরকারী দুটি এয়ারলাইন্স তিনগুন বেশি ভাড়ায় যাত্রী পরিবহন করেছে। গত ১৮ ফেব্রুয়ারী থেকে ২২ ফেব্রুয়ারী পর্যন্ত বেসরকারী এয়ার লাইন্স কর্তৃপক্ষ বাড়তি ভাড়া নিয়েছে। শুক্র ও শণিবারের সাথে রোববার ভাষা শহিদ দিবসের ছুটির কারনে ঢাকা প্রবাসী অনেকেই পরিবার পরিজন নিয়ে বরিশাল সহ দক্ষিণাঞ্চলের বিভিন্ন এলাকায় এসেছিলেন নাড়ীর টানে। অনেকেই আবার কুয়াকাটা সমুদ্র সৈকতে এসেছিলেন অবকাশ যাপনে। কিন্তু ঢাকা থেকে বরিশাল, পটুয়াখালী, ভোলা, পিরোজপুর, বরগুনা ও ঝালকাঠিমুখী শতাধিক নৌযানে এ কয়দিন ধারন ক্ষমতার দ্বিগুনেরও বেশী যাত্রী পরিবহন করেও ভীড় সামাল দেয়া যায়নি। এমনকি এসব নৌযানের একটি টিকেট পাওয়াও ছিল ভাগ্যের ব্যাপার। বিশেষ করে এসব নৌযানের সীমিত সংখ্যক ভিআইপি কেবিন ৪ হাজার থেকে ৮ হাজার টাকায় বিক্রি হয়ে অন্তত ১৫ দিন আগে। ফলে একটি কেবিন টিকেটের জন্য যাত্রীদের হন্যে হয়ে ঘুরতে হয়েছে এক নৌযানের অফিস থেকে আরেক অফিসে। কিছু কিছু নৌযানের টিকেট কালো বাজারে বিক্রিরও অভিযোগ ওঠেছে।
সড়ক পথেও প্রতিদিন শতাধিক এসি-নন এসি কোচে একটি সিটের জন্য মানুষকে চরম দূর্ভোগে পড়তে হয়েছে। দক্ষিনাঞ্চলের সাথে রাজধানীর সড়ক পথের মাওয়া ও আরিচা ফেরি সেক্টরে শত শত যানবাহনকে ৬ থেকে আট ঘন্টা পর্যন্ত অপেক্ষায় থাকতে হয়েছে। তিন দিনের ছুটি কাটিয়ে অনেকেই রোববারেও ঢাকায় ফিরতে পারেন নি যানবাহনের অভাবে।
তবে সবচেয়ে রেকর্ড গড়েছে বরিশালÑঢাকা আকাশ পথের বেবসরকারী ‘ইউএসÑবাংলা’ ও ‘নভো এয়ার’। প্রতিদিন একাধিক ফ্লাইট পরিচালনা করেও ভীড় সামাল দিতে না পারায় ৩ হাজার দুশ’ টাকায় কয়েকটি টিকেট বিক্রির পরেই তা ধাপে ধাপে ৯ হাজার টাকায়ও বিক্রি করেছে তারা। ১৮ ফেব্রুয়ারী থেকে গতকাল সোমবার সকাল পর্যন্ত দুটি বেসরকারী আকাশ পরিবহনই প্রতিটি ফ্লাইটে ৯ হাজার টাকা করেও টিকেট বিক্রি করেছে বরিশালÑঢাকা আকাশ পথে।
এ রুটের যাত্রীদের অভিযোগ, সরকারের একটি মহল বেসরকারী দুটি এয়ারওয়েজকে অনৈতিক সুবিধা প্রদানের লক্ষেই বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স-এর ফ্লাইট বন্ধ রেখেছে বরিশাল সেক্টরে। ফলে এখন বরিশালÑঢাকা রুটের ভাড়া ঢাকাÑব্যাংককের চেয়েও বেশী, একপথে ৯ হাজার টাকা করেও আদায় করা হচ্ছে।
উল্লেখ্য, করোনা মহামারীর আগে ঢাকাÑব্যাংককÑঢাকা রুটে ‘থাই লায়ন এয়ারলাইন্স সাড়ে ১২ হাজার টাকায়ও যাত্রী পরিবহন করেছে।
আর করোনা সংকটের কারনে গত বছর ২৩ মার্চ থেকে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স বরিশাল সেক্টরে ফ্লাইট বন্ধ করে দেয়। জুনের প্রথম সপ্তাহ থেকে বরিশাল, যশোর ও কক্সবাজার বাদে অন্য সকল সেক্টরে তা পূণর্বহাল করা হয়। অদ্যাবধি বরিশাল, যশোর ও রাজশাহী সেক্টরে বিমান ফ্লাইট বন্ধ রয়েছে। এমনকি গ্রীষ্মকালীন সময়সূচীতেও বরিশাল ও রাজশাহী সেক্টরে বিমানের শিডিউল নেই। অথচ সরকারী এ আকাশ পরিবহন সংস্থাটির হাতে অভ্যন্তরীন সেক্টরসমুহের জন্য বর্তমানে ৩টি উড়োজাহাজ রয়েছে। মার্চের প্রথম সপ্তাহে অনুরূপ আরো দুটি উড়োজাহাজ বিমান বহরে যূক্ত হচ্ছে।
দক্ষিণাঞ্চলের যাত্রীদের অভিযোগ, বিমান ফ্লাইট বন্ধের পরিপূর্ণ সুযোগ গ্রহন করছে বেসরকারী দুটি এয়ারলাইন্স। এমনকি তিন দিনের ছুটির বাইরেও গত মাসের শেষভাগ থেকে বরিশাল সেক্টরে দুটি বেসরকারী এয়ারলাইন্স যাত্রী ভাড়া ৫শ টাকা বৃদ্ধি করে ২ হাজার ৭শ থেকে ৩ হাজার ২শ টাকায় বৃদ্ধি করেছে।

এই বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮




মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT