ভাষানচর ইউপি চেয়ারম্যান পদে নতুন নেতত্বেই আস্থা খুজছে ইউনিয়নবাসী ভাষানচর ইউপি চেয়ারম্যান পদে নতুন নেতত্বেই আস্থা খুজছে ইউনিয়নবাসী - ajkerparibartan.com
ভাষানচর ইউপি চেয়ারম্যান পদে নতুন নেতত্বেই আস্থা খুজছে ইউনিয়নবাসী

3:23 pm , January 2, 2021

 

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ সরকার দলীয় চেয়ারম্যান তিনি। তাও আবার এক মেয়াদে নয় টানা দুই মেয়াদ পার করেছেন। আবার ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতির পদও তার দখলে। স্বাভাবিক কারনেই এলাকার উন্নয়নে যথাযথ ভুমিকা রাখার সর্বেসর্বা ছিলেন তিনি। কিন্তু প্রত্যাশিত দূরের কথা ১০ বছরে গোটা ইউনিয়নে স্বাভাবিক উন্নয়নের ছোয়াও লাগেনি। মেহেন্দীগঞ্জ উপজেলার ভাষানচর ইউনিয়নের বাস্তব দৃশ্যপট। সার্বিক বিবেচনায় অফুরন্ত সুযোগ থাকলেও ভাষানচরকে উন্নয়নের জোয়ারে না ভাসিয়ে ডুবিয়েছেন চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম চুন্নু। এই ইউনিয়নে নির্বাচন হব এ বছর। দলীয় প্রার্থী কে হবেন তা নিয়ে চলছে আলোচনা। জানা গেছে আওয়ামীলীগের একটি বড় অংশ ও ইউনিয়নের সাধারন মানুষ নতুন মুখ আওয়ামীলীগ নেতা আসাদুজ্জামান আসাদ আকনকে সমর্থন জানিয়েছেন। উদীয়মান এই নেতাকে দলীয় প্রার্থী করতে একাট্টা হয়েছে স্থানীয় আওয়ামীলীগ ও অঙ্গ সহযোগী সংগঠনের নেতা কর্মীরা।
জানা গেছে, ২০২১ সালের মার্চে এই ইউনিয়নে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে। তাই একটু আগে ভাগেই মাঠে নেমেছে সম্ভাব্য প্রার্থীরা। চেয়ারম্যান পদে বর্তমান চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম চুন্নু ছাড়াও আসাদুজ্জামান আসাদ আকনসহ ক্ষমতাসীন দলের একাধিক প্রার্থী মাঠে রয়েছেন। তবে এখনো মাঠে নেই বিএনপি সহ অন্য কোন দলের সম্ভাব্য প্রার্থীরা। ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের নেতা কর্মীরা বলেন, আসাদ ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড পর্যায়ের সকল নেতাকর্মীদের সাথে শোভনীয় আচরন করেন। যোগাযোগ রাখেন নিয়মিত। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, সামাজিক কর্মকান্ড এবং তৃনমূলের নেতৃবৃন্দের সাথে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক থাকার কারণে মনোনয়ন দৌড়ে অনেকটাই এগিয়ে রয়েছেন তরুন নেতা আসাদুজ্জামান আসাদ আকন। তবে মনোনয়ন প্রত্যাশীরা সবাই দক্ষিনাঞ্চলের রাজনৈতিক অভিভাবক বরিশাল জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ্ব আবুল হাসানাত আবদুল্লাহ এমপির আর্শিবাদ চাচ্ছেন । সেক্ষেত্রে কে মনোনয়ন পাবেন সেটা এখনই বলা কঠিন। ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের এক সিনিয়র নেতা তার ক্ষোভ থেকে বলেন আমরা দলীয় এমন একজন চেয়ারম্যান পেয়েছি যার পরিচয় দিতে আমরা লজ্জা পাই। তিনি সালাম দিলে সালামের জবাবও দেন না, বরং বিভিন্ন সময় ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত হেনে কথা বলে। এবারে নির্বাচনে আলহাজ্ব আবুল হাসানাত আব্দুল্লাহ ভাই এবং বরিশাল সিটি মেয়র যুবরতœ সেরনিয়াবাত সাদিক আব্দুল্লাহর কাছে অনুরোধ এমন লোককে যেন দলীয় মনোনয়ন না দেয়। দলের বেশ কয়েকজন নেতা বলেন চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম চুন্নু, বিগত ১০ বছর ইউনিয়নের দায়িত্ব পালনের সময় সাধারণ মানুষের সাথে খারাপ আচরন করেছেন। নিজ প্রয়োজন ছাড়া দলীয় নেতা কর্মীদের সাথেও যোগাযোগ রাখতেন না তিনি। আর উন্নয়নের চিত্র তো বাস্তবেই দৃশ্যমান।সার্বিক বিষয় নিয়ে আলাপ কালে আসাদুজ্জামান আসাদ আঁকন বলেন, আমার রাজনৈতিক অভিভাবক মেয়র যুবরতœ সেরনিয়াবাত সাদিক আবদুল্লাহ ভাই যদি যোগ্য মনে করেন, তাহলে অবশ্যই আমি নির্বাচনে অংশ নেব। তিনি আমাকে একটি সুযোগ দিবেন। ইউনিয়নের সাধারন মানুষ বলেন, আসাদ ভাই করোনার সময়ে অনেক গরিব কর্মহীন মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন এবং গভীর রাতে নিজে গিয়ে মানুষের বাড়িতে বাড়িতে খাদ্য সামগ্রীসহ প্রয়োজনীয় ত্রান পৌছে দিয়েছেন। যা কোন জনপ্রতিনিধি করেনি। নির্বাচনে প্রতিদ্বন্ধিতা করলে আমরা তাকেই বেছে নেব।

এই বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT