মহিপুরের প্রতিবন্ধি পরিবার ৩২ বছর পর ঠাঁই পেয়েছে নিজ জমিতে মহিপুরের প্রতিবন্ধি পরিবার ৩২ বছর পর ঠাঁই পেয়েছে নিজ জমিতে - ajkerparibartan.com
মহিপুরের প্রতিবন্ধি পরিবার ৩২ বছর পর ঠাঁই পেয়েছে নিজ জমিতে

2:48 pm , December 14, 2020

কুয়াকাটা প্রতিবেদক ॥ পানি উন্নয়ন বোর্ডের অধিগ্রহণকৃত জমির অপ্রয়োজনী অব্যবহৃত অংশ ১৯৮৭ সালে আদালতের নির্দেশনা অনুযায়ী জেলা প্রশাসক মালিক হাজী এলেম গাজী ও উজ্জত আলীকে ফেরত দেয়। কিন্তু দীর্ঘ ৩২ বছর ধরে হাজী এলেম গাজীর পরিবার এবং উজ্জত আলীর পরিবার সেই জমি ফেরত পায়নি। অবশেষে গত ১৩ ডিসেম্বর রবিবার উভয় পরিবার এলাকার সাংবাদিক, সমাজ সেবকদের সহযোগিতায় ৩২ বছর বাদে ঘর তুলে মাথা গুজার ঠাঁই পেতে সক্ষম হয়। শেষ আশ্রয় ফিরে পায় অসহায় প্রতিবন্ধী মোঃ আলাউদ্দিন (৫০) এবং দৃষ্টি প্রতিবন্ধী বোন মোসাঃ আলেয়া বেগম (৭০)। জানা যায়, পানি উন্নয়ন বোর্ড কর্তৃক অব্যবহৃত অপ্রয়োজনীয় জমি পূর্বের মালিক হাজী এলেম গাজী ও উজ্জত আলীকে ফেরত দিলেও ৩২ বছর যাবৎ হাজী এলেম গাজীর পরিবার এবং উজ্জত আলীর পরিবার ফেরত পায়নি। উপরোন্তু সেখানে অবৈধ ভাবে ভুয়া কাগজপত্র দিয়ে শত শত লোক বসবাস করতেছে।
অবশেষে স্থানীয় কিছু স্থানীয় সমাজ সেবক, ইউ,পি সদস্য, গনমাধ্যম প্রতিষ্ঠানের আন্তরিক সহযোগীতায় অবশেষে তাদের নিজ পৈত্রিক সম্পত্তিতে ঘর তুলে একটু আশ্রয়ের ব্যবস্থা করতে পারলো এই ভিক্ষুক প্রতিবন্ধী পরিবার। জানা যায় কলাপাড়া পানি উন্নায়ন বোর্ডের কর্তৃপক্ষ মহিপুর থানা পুলিশের সহযোগীতায় ঘর তুরলতে বাঁধা দেয়ার চেষ্টা করে কিন্তু মহিপুর থানার ইনচার্জ মোঃ মনিরুজ্জামান অসহায় পরিবারের প্রতি অন্তরিক হওয়ার কারনে, আদালতের আদেশ এবং পটুয়াখালী জেলা প্রশাসকের জমি বুঝিয়ে দেয়ার অনুলিপি যাচাই বাছাই করে পাউবো কতৃপক্ষের করা অভিযোগ প্রত্যাহার করে, এবং বাঁধা দেওয়া থেকে বিরত থাকেন।
প্রতিবন্ধী পরিবার জানায়, আদালত থেকে নির্দেশ অনুযায়ী জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে জমির প্রকৃত মালিক অথবা তার অংশীদারদের ফিরে দেওয়া সত্ত্বেও, এক দল স্বার্থপরায়ণ গোষ্ঠী বিগত ৩২ বসর যাবৎ তাদের এই জমি দখল করতে দেয়নি। প্রতিবন্ধী এই পরিবারটি ভিক্ষা করে জীবিকা নির্বাহ করতে হয়েছে। তবে স্থানীয় যে ব্যক্তিদের আন্তরিক সহযোগিতায় তাদের শেষ আশ্রয়টুকো ফিরে পেতে সক্ষম হয়েছে তাদের প্রতি চিরো কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন এই প্রতিবন্ধীর পরিবার।
স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, কিছু স্বার্থপরায়ণ গোষ্ঠী এই অসহায় প্রতিবন্ধীদের সাথে বিগত বহু বছর ধরে অন্যায় ভাবে জুলুম করেই ক্ষান্ত হয়নি বরং জমি দখল না করতে দেওয়ার সকল অপচেষ্টা করে আসছিল। দৃষ্টি প্রতিবন্ধী আলেয়া জানান, ৭০ বছর বয়সে নিজেদের মালিকানা সম্পত্তিতে ঘর তুলে থাকতে পারেনি স্থানীয় কিছু ভুমি দস্যুদের জন্য এবং তারা যেন তাদের মালিকানা জমি ফিরে না পায়, সেই জন্য উঠেপরে লেগে ছিলো।
মহিপুর প্রেসক্লবের সভাপতি মোঃ মনিরুল ইসলাম ও রিপোর্টাস ইউনিটর সভাপতি মোঃ আরিফ সুমন বলেন, গনমাধ্যম অসহায়, বঞ্চিত মানুষের অধিকার আদায়ের সব থেকে গুরুত্বপূর্ণ একটি মাধ্যম। তাদের এই গনমাধ্যম সংগঠন সব সময় সমাজের উন্নায়ন ও অসহায়, বঞ্চিত মানুষের পাশে থেকেছে এবং ভবিষ্যতেও এই ধারা অব্যাহত থাকবে।
বিগত ৩২ বছর পর এই প্রতিবন্ধী পরিবারের জমি ফিরে পাওয়ায় স্বস্তি প্রকাশ করলো স্থানীয় সাধারন মানুষ।

এই বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT