মুলাদী উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদকের বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন মুলাদী উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদকের বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন - ajkerparibartan.com
মুলাদী উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদকের বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন

3:02 pm , December 3, 2020

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ বরিশালে নগদ অর্থ ও স্বর্ণালংকারসহ ২৪ লক্ষাধিক টাকাসহ প্রবাসীর স্ত্রীকে বাগিয়ে নেয়ার ঘটনায় মুলাদী উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক কাজী মুরাদ এর বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১১টায় শহীদ আব্দুর রব সেরনিয়াবাত বরিশাল প্রেসক্লাবের সভা কক্ষে প্রবাসীর বাবা আবুল হাসেম কাজী এ সংবাদ সম্মেলনের করেন। সংবাদ সম্মেলনে বাবার পক্ষে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন মুলাদী উপজেলার তেরোচর গ্রামের বাসিন্দা ও প্রবাসী মোতালেব কাজীর ছোট ভাই কাজী লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, ‘২০০৩ সালে আমার কুয়েত প্রবাসী ছেলে মোতালেব কাজীর সাথে আসমা খানম লাকীর বিয়ে হয়। তাদের দাম্পত্য জীবনে ২ সন্তানও রয়েছেন। তিনি বলেন, ‘বিয়ের পরে মুলাদী উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক কাজী মুরাদ এর সাথে পরকীয়া প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলে লাকী। বিষয়টি একাধিকবার আমাদের কাছে ধরাও পড়ে। তবে দুটি শিশু সন্তানের মুখের দিকে তাকিয়ে লাকীকে সুযোগ দেয়া হয়। এমনকি সে নিজেও পবিত্র কোরআন শরীফ ছুঁয়ে কাজী মুরাদের সঙ্গে সম্পর্ক রাখবে না বলে শপথ করে। কিন্তু এর পরেও গোপনে ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক কাজী মুরাদের সঙ্গে পরকীয়ার সম্পর্ক অব্যাহত রাখে। তিনি জানান, ‘বিয়ের পরে আমার প্রবাসী ছেলে মোতালেব কাজী তার স্ত্রী আসমা খানম লাকী‘র নামে খোলা ব্যাংক হিসাব নম্বরে টাকা পাঠানো শুরু করে। ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক কাজী মুরাদ লাকীকে পরকীয়ার ফাঁদে ফেলে বিদেশ থেকে পাঠানো মোতালেবের কষ্টার্জিত টাকা হাতিয়ে নেয়। সবশেষ গত ১৬ নভেম্বর কাজী মুরাদ নগদ ৫০ হাজার এবং ব্যাংকে থাকা ২০ লক্ষ টাকা ও স্ত্রী ও কন্যা সন্তানের জন্য বিদেশ থেকে পাঠানো ৪ লক্ষ টাকা মূল্যের স্বর্ণালংকারসহ পুত্রবধূ আসমা খানম লাকীকে নিয়ে পালিয়ে যায় কাজী মুরাদ। পরে তারা রোটারি পাবলিক এর মাধ্যমে বিয়ে করে। কাজী মুরাদ পরকীয়ার ফাঁদে ফেলে শুধুমাত্র প্রবাসীর ১৭ বছরের সংসারই ভাঙেনি বরং গৌরব ঐতিহ্যের সংগঠন ছাত্রলীগের সুনাম ক্ষুন্ন করেছে বলে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘এই ঘটনায় কাজী মুরাদ ও আসমা খানম লাকী’র বিচার এবং অর্থ সম্পদ ফেরত পেতে ১৭ নভেম্বর মুলাদী থানায় মামলা নিয়ে যাই। কিন্তু কাজ মুরাদ ছাত্রলীগ নেতা হওয়ার পুলিশ তাঁর বিরুদ্ধে মামলা না নিয়ে নামমাত্র একটি অভিযোগ গ্রহণ করে। আমরা কাজী মুরাদের বিরুদ্ধে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় ও জেলার সভাপতি-সম্পাদক বরাবর অভিযোগও দিয়েছি। কিন্তু আদৌ তার বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়নি। এ কারণে মুরাদ ও তার সন্ত্রাসী বাহিনীর ভয়ে দেশে ফিরতে পারছে না আমার অসহায় ছেলে। আমরাও আছি নিরাপত্তা হিনতায়। আবুল হাসেন কাজী অভিযোগ করেন, ‘অভিযোগ দেয়ার ঘটনা জানাজানি হলে কাজী মুরাদ আরও ক্ষুব্ধ হয়। সে আমাদের নানাভাবে হুমকি-ধামকী এবং তার সন্ত্রাসী বাহিনী দিয়ে পাহারা বাসিয়ে টানা ১৫ দিন গৃহবন্ধি করে রাখে। এ কারণে ইচ্ছা থাকতেও আমরা আদালতের দারস্থ হতে পারিনি। গত বুধবার স্থানীয়দের সহায়তায় কোন মতে পালিয়ে বরিশালে এসে আত্মগোপন করি এবং সাংবাদিকদের দারস্থ হই। এসব কারণে জীবনের নিরাপত্তা, প্রবাসী পুত্রের কষ্টার্জিত অর্থ ও আদরের দুই নাতি-নাতনিরদের ফিরে পেতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, পার্বত্য শান্তিচুক্তি বাস্তবায়ন পরিবিক্ষণ কমিটির মন্ত্রী মর্যায় আহ্বায়ক আবুল হাসানাত আবদুল্লাহ-এমপি ও বরিশাল সিটি মেয়র সেরনিয়াবাত সাদিক আবদুল্লাহসহ কেন্দ্রীয় ও বরিশাল জেলা ছাত্রলীগ নেতৃবৃন্দ’র কাছে আবেদন জানিয়েছেন তিনি।

এই বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০৩১




মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT