জমিজমা ও হামলার অভিযোগে ভোলা ছাত্রলীগ সভাপতির বিরুদ্ধে ছোট বোনের সংবাদ সম্মেলন জমিজমা ও হামলার অভিযোগে ভোলা ছাত্রলীগ সভাপতির বিরুদ্ধে ছোট বোনের সংবাদ সম্মেলন - ajkerparibartan.com
জমিজমা ও হামলার অভিযোগে ভোলা ছাত্রলীগ সভাপতির বিরুদ্ধে ছোট বোনের সংবাদ সম্মেলন

3:05 pm , November 3, 2020

 

মো: আফজাল হোসেন, ভোলা ॥ জমিজমা ও হামলার অভিযোগে ভোলা জেলা ছাত্রলীগ সভাপতির বিরুদ্ধে ছোট বোন সংবাদ সম্মেলন করেছে। এ সময় ছাত্রলীগ সভাপতির বিরুদ্ধে বাবার সম্পত্তি থেকে বাদ দিতে ওয়ারিশ থেকে তাকে বাদ দেয়াসহ নানান অভিযোগ তুলে ধরেন আপন ছোট বোন পাপিয়া চৌধুরী। তবে সমস্যা হয়েছে পৌরসভা থেকে দেয়া একই পরিবারের নামে দুটি ওয়ারিশ নামা নিয়ে। গতকাল মঙ্গলবার বেলা ১২টায় ভোলা প্রেসক্লাবের সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যম অভিযোগ তুলে ধরেন পাপিয়া চৌধুরী। লিখিত অভিযোগে পাপিয়া চৌধুরী বলেন, ভোলা জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি ইব্রাহিম চৌধুরী পাপন দীর্য দিন ধরেই তার উপর নির্যাতন চালিয়ে আসছে। তার ভয়ে শহরের কালিবাড়ি এলাকায় বাসা ভাড়া নিয়েও থাকতে পারছে না। সেখানেও গিয়ে সন্ত্রাসীদের নিয়ে গিয়ে গত ৩১ অক্টোবর দুপুরে হামলা করেছে। এ ঘটনায় ভোলা সদর থানায় ১ নভেম্বর মামলা করেছেন তিনি। শুধু তাই নয়,পাপন চৌধুরী বাবার সম্পত্তি থেকে বঞ্চিত করতে ভোলা পৌরসভা থেকে একটি ভুয়া ওয়ারিশ সার্টিফিকেট নিয়েছে। সেখানে তাকে বাদ দেয়া হয়েছে। বর্তমানে পাপিয়া চৌধুরী নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে উল্লেখ করে তদন্ত করে সুষ্ঠ বিচাঁর দাবীর পাশাপাশি যাতে বাবার সম্পত্তির অংশ পেতে পারে তার জন্য প্রধানমন্ত্রী ও সাবেক মন্ত্রী তোফায়েল আহমদ এর হস্তক্ষেপ কামনা করেন। এ সময় পাপিয়া চৌধুরীর স্বামী মো: মাজেদুর রহমান ও শিশু সন্তান উপস্থিত ছিলৈন। এছাড়া সংবাদ সম্মেলনে সংবাদকর্মী ছাড়াও ছাত্রলীগের বিভিন্ন স্তরের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। অপরদিকে একই পরিবারের নামে দেয়া দুটি ওয়ারিশ নামা উপস্থাপন করা হয়েছে। যেখানে দেখা যাচ্ছে ২০১৭ সালের ১৯ মার্চ দেয়া একটি ওয়ারিশ নামায় পৌর নিবাসী মৃত: আব্দুল মজিদ চৌধুরীর ওয়ারিশ হিসেবে রয়েছে ২ জন। যারা হচ্ছেন মৃত আব্দুল মজিদ চৌধুরীর স্ত্রী নুরুন নাহার দিপা ও ছেলে বর্তমান জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি ইব্রাহিম চৌধুরী পাপন এর নাম। যার ঠিকানা হচ্ছে, পৌরসভার ৮নং ওয়ার্ড এর চর জংলা এর নাম। যাতে স্থানীয় কাউন্সিলর হিসেবে স্বাক্ষর দিয়েছেন মো: মাইনুল ইসলাম শামীম। ভারপ্রাপ্ত মেয়র হিসেবে স্বাক্ষর রয়েছে ১নং ওয়ার্ড পৌরসভা এর কাউন্সিলর মো: মঞ্জুরুল আলম। যার ক্রমিক নং হচ্ছে ২০১৬-১৭/২০৬। এছাড়া ২০২০ সালের ৫ ফ্রেব্রুয়ারীতে অপর একটিওয়ারিশ নামা পৌরসভা থেকে দেয়া হয়েছে। যাতে ওয়ারিশ দেখানো হয়েছে ৩ জনকে। মৃত: আব্দুল মজিদ চৌধুরীর স্ত্রী নুর নাহার দিপা, ছেলে মো: ইব্রাহিম চৌধুরী পাপন ও মেয়ে হিসেবে রয়েছে নুসরাত জাহান বুশরার নাম। ঐ ওয়ারিশ নামায় সংরক্ষিত ওয়ার্ড নং-৩ এর কাউন্সিলর রাজিয়া সুলতানা এবং ভারপ্রাপ্ত মেয়র হিসেবে স্বারক্ষর রয়েছে প্যানেল মেয়র ও ৭নং ওয়ার্ড এর কাউন্সিলর মো: শাহ আলম। এদিকে ভোলা জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি ইব্রাহিম চৌধুরী পাপনের সাথে মুঠোফোনে আলাপ করলে, তিনি বলেন, তার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ সম্পুর্ন মিথ্যা। তার বোনটাই আসলে তার মায়ের গায়ে বিভিন্ন সময়ে হাত দিয়েছে, যা আমি সহ্য করতে না পেরে গালমন্দ করেছি। তাছাড়া আমি এখন পর্যন্ত কোন ওয়ারিশ সার্টিফিকেট তুলিনি, এসব সাজানো। আমার বোন তুলেছে হয়তো। আমি বাবার সম্পত্তি থেকে কেন বোনকে বঞ্চিত করবো। আমার নামে কোন নামজারি করিনি বরং আমার বোন শহরের যুগীর ঘোলের ৬ শতাংশ জমি ওর নামে নামজারি করেছে। বাবার সম্পত্তি যেভাবে পাবে সেই ভাবে নিবে আমার কোন আপত্তি নেই। আমাকে রাজনৈতিক ভাবে সম্মানহানি করার জন্য এসব করছে। আমি অন্যায় করলে যে বিচাঁর হবে মাথা পেতে নিব। এ বিষয় প্যানেল মেয়র মো: শাহ আলম বলেন, যেহেতু আমার স্বাক্ষর রয়েছে সেক্ষেত্রে আমি স্বাক্ষর অবশ্যই দিয়েছি। তবে এখানে কোন ঘাপলা আছে কি না সেটা খোজ নিয়ে দেখতে হবে। তবে আমিও শুনেছি এর আগে একটা ওয়ারিশ নামা হয়েছে একজন ওয়ারিশকে বাদ দিয়ে।

এই বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২
১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
২০২১২২২৩২৪২৫২৬
২৭২৮  
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT