তথ্য গোপন করে এসআই পদে চাকুরী তথ্য গোপন করে এসআই পদে চাকুরী - ajkerparibartan.com
তথ্য গোপন করে এসআই পদে চাকুরী

1:00 am , February 26, 2020

 

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ তথ্য গোপন করে পুলিশের সাব ইন্সপেক্টর (এসআই) পদে চাকুরী পাওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে তিনি বর্তমানে পাথরঘাটা থানায় পিএসআই পদে কর্মরত আছেন। তথ্য গোপন করে চাকুরি নেয়া পিএসআই হলো- মো: বেলায়েত হোসেন। বৈবাহিক অবস্থার ক্ষেত্রে মিথ্যা তথ্য দিয়ে বেলায়েত চাকুরী নিয়েছেন। যা বাংলাদেশ পুলিশ প্রবিধানের ৭৪১ এর (চ) দফার ৪ নম্বর উপ-দফা বিরোধী। জেলা পুলিশের দাবী চাকুরী বিধি ভেঙ্গে চাকুরীও যেতে পারে। জানা গেছে, বরগুনা জেলার পাথরঘাটা থানায় পিএসআই পদে নিয়োগ পেয়েছেন পটুয়াখালী জেলার সদর উপজেলার মরিচবুনিয়া ইউনিয়নের মো: আনিসুর রহমানের ছেলে বেলায়েত হোসেন। বাংলাদেশ পুলিশের এসআই পদে নিয়োগে তথ্য গোপন রেখে নিজেকে অবিবাহিত দাবি করে আবেদন করলে চাকরির জন্য বেলায়েত নির্বাচিত হন। পরে বেলায়েত সারদায় এক বছর প্রশিক্ষণ শেষে পাথরঘাটা থানায় যোগদান করে গত সপ্তাহে। এর আগে গত ২০১৮ সালের ফেব্রুয়ারী মাসে বরিশাল নগরীর উত্তর আমানতগঞ্জ এলাকার মাছ ব্যবসায়ী ফরিদ সিকদার এর জেষ্ঠ্য কন্যা তাসমিয়া আহম্মেদ তানজুমকে বিয়ে করেন বেলায়েত। বরিশাল রেঞ্জ ডিআইজি অফিস সূত্রে জানা গেছে, পুলিশ প্রবিধানের ৭৪১ এর (চ) দফার ৪ নম্বর উপ-দফায় বলা হয়েছে, পুলিশের সাব ইন্সপেক্টটর হিসেবে নিয়োগ পেতে হলে প্রার্থীকে অবিবাহিত হতে হবে এবং তার শিক্ষানবিশকাল শেষ না হওয়া পর্যন্ত অবিবাহিত থাকতে হবে।
সূত্র জানায়, বেলায়েত বরিশাল বিএম কলেজে ছাত্র থাকা অবস্থায় নগরীর আমানতগঞ্জ এলাকার বাসিন্দা মাছ ব্যবসায়ী ফরিদ সিকদারের কন্যা তাসমিয়া আহম্মেদ তানজুমকে প্রাইভেট (গৃহ শিক্ষক) পড়াতেন তিনি। এই সুবাদে তানজুমের সাথে প্রেমের সম্পর্ক হয় বেলায়েতের। গত ২০১৮ সালের ফেব্রুয়ারী মাসে তানজুম তার পৈত্রিক বাসা থেকে নিয়ে পালিয়ে পটুয়াখালী জেলার মরিচবুনিয়া ইউনিয়নে বেলায়েতের বাড়ীতে চলে যান। বেলায়েতের পরিবার ২০১৮ সালের ৯ই ফেব্রুয়ারী মরিচবুনিয়া ইউনিয়নের বিয়ের কাজী এবিএম আব্দুল হালিমকে ডেকে এনে ৪ লক্ষ টাকা দেনমোহর ধার্য্য করে বিয়ে দেন তাদেরকে। অন্যদিকে ফরিদ সিকদার মেয়েকে ঘরে না পেয়ে কাউনিয়া মডেল থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন। অভিযোগের ভিত্তিতে তৎকালিন অফিসার ইনচার্জ নুরুল ইসলামের নির্দেশে এসআই গোবিন্দ তার বাহিনী নিয়ে পটুয়াখালী জেলায় বেলায়েতের এক আত্মীয়র বাসা থেকে তানজুমকে উদ্ধার করে বরিশালে নিয়ে আসে। পরে কোতয়ালী মডেল থানা সংলগ্ন ভিকটিম সাপোর্ট সেন্টারে রাখা হয় তানজুমকে। এরপর পরিবারের জিম্মায় ছাড়া পায় তানজুম। এর এক সপ্তাহ পর দুই পরিবার মিলে যায়। তবে জানা গেছে, বেলায়েতের চাকুরীর জন্য বর্তমানে তানজুমকে বরিশালে তার বাবা-মায়ের বাড়ি রেখে আসা হয়েছে। বেলায়েত মাঝে মাঝে বরিশালে এসে দেখে যায়।
তৎকালিন বরিশাল মেট্রোপলিটন থানা কাউনিয়ার এসআই গোবিন্দ বলেন, ‘এ ধরনের একটি ঘটনা ঘটেছিল। কিন্তু বেলায়েতের পুলিশে চাকুরী হয়েছে কি না আমার জানা নেই। পুলিশে চাকুরী পাওয়ার কথা নয়।’ পাথরঘাটা থানার ওসি শাহাবুদ্দিন বলেন, ‘৩/৪ দিন আগে পিএসআই হিসেবে এই থানায় যোগদান করেছে দুই মাসের জন্য।’ তিনি এক প্রশ্নের জবাবে বলেন, বিবাহিত কিনা এ বিষয়ে আমি জানি না, কর্তৃপক্ষ জানতে পারে।’ বরগুনা জেলার পুলিশ সুপার মারুফ হোসেন বলেন, ‘সে আমার জেলা থেকে ভেরিফিকেশন হয়নি। অন্য জেলা থেকে পাথরঘাটায় পিএসআই হয়েছে। যদি তিনি চাকুরী কনডিশন ভাঙেন তবে তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা, তদন্ত সাপেক্ষে চাকুরীও হারাতে পারেন।’ এব্যাপারে অভিযুক্ত বেলায়েত হোসেন বলেন, ‘আমি পাথরঘাটা থানায় কর্মরত আছি। আমার বিয়ে নেই। বিয়ে থাকলে এসআই পদে কিভাবে চাকুরী নেই। এটা ভুল তথ্য।’

এই বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০  




মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT