নগরীতে বিধবাকে জমি বিক্রিতে বাধ্য করতে চলাচলের পথ বন্ধ ও অস্থায়ী ঘর নির্মান নগরীতে বিধবাকে জমি বিক্রিতে বাধ্য করতে চলাচলের পথ বন্ধ ও অস্থায়ী ঘর নির্মান - ajkerparibartan.com
নগরীতে বিধবাকে জমি বিক্রিতে বাধ্য করতে চলাচলের পথ বন্ধ ও অস্থায়ী ঘর নির্মান

1:00 am , February 19, 2020

 

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ স্বামীর মৃত্যুর পর ১২ বছর পূর্বে ছোট ছেলের কষ্টার্জিত আয় দিয়ে নগরীর সিকদারপাড়ায় সোয়া এক শতাংশ জমি ক্রয় করেন বিধবা ফরিদা বেগম। এরপর সেখানে ছোট একটি ঝুপড়ি টিনের ঘরে বসবাস করছিলেন বিধবা ফরিদা বেগম ও তার সন্তানরা। এতে করে মাস শেষে বাড়ি ভাড়ার চিন্তা ছিল না থাকায় তিন বেলা কোনভাবে খেয়ে দিন চলে যাচ্ছিল মৃত সোহরাব সিকদারের পরিবারের সদস্যদের। ৫ মাস পূর্বে মৃত সোহরাব সিকদারের ছোট ছেলে জুনায়েদ সিকদার তাদের ক্রয়কৃত জমিতে টিনশেড ঘর তোলার জন্য ইট ও বালু এনে কাজ শুরু করে। কিন্তু তা কোনভাবে সহ্য করতে পারছিল না জমি বিক্রয়দাতা একই এলাকার বাসিন্দা ইউসুফ সিকদার। সে কোনভাবেই তাকে সেখানে ঘর উত্তোলণ করতে দেবে না। এ জন্য কাজ শুরুর পর থেকে বাধা দিয়ে আসছে ইউসুফ সিকদার ও তার পরিবারের সদস্যরা। প্রথমে তাদের চলাচলের পথ বন্ধ করে দেয়া হয়। এরপর ঘর উত্তোলনের জন্য সেখান থেকে জুনায়েদ পরিবার-পরিজনসহ নেমে যাওয়ার সুযোগে চারিদিকের সড়ক বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। এমনকি ওই জমি বিক্রিতে চাপ দেয়া হচ্ছে। বর্তমানে সবমিলিয়ে জমির মূল্য ১০ লাখ টাকা থাকলেও ইউসুফ সিকদার ওই জমি বাবদ জুনায়েদকে মাত্র ৩ লাখ টাকা নিয়ে সেখান থেকে সরে যাওয়ার জন্য হুমকি-ধামকি দিয়ে আসছে। এমনকি জুনায়েদের ক্রয়কৃত জমিতে যাতে সে যেতে না পারে এ জন্য জমির চারিদিকে অস্থায়ী ঘর ও উত্তোলন করছে ইউসুফ সিকদার। এ নিয়ে স্থানীয় কাউন্সিলরের কাছে একাধিকবার অভিযোগ জানানো হলেও তার কথাও শুনছেন না ইউসুফ সিকদার। এদিকে ছোট একটি ঘর ভাড়া নিয়ে থাকায় এখন ওই ভাড়া গুনতে গিয়ে তিনবেলা খাবার নিয়ে মারাত্মক সমস্যায় পড়েছেন ওই পরিবারটি। স্থানীয়রা বিষয়টি দেখলেও ইউসুফ সিকদার ও তার ছেলে ফারুক সিকদারের সন্ত্রাসী ভূমিকার কারনে তারাও কিছু বলতে পারছেন না। বিধবা ফরিদার বেগম তার ছেলের জমি উদ্ধারে মেয়র থেকে শুরু করে পুলিশ কমিশনার ও র‌্যাবের কাছে আবেদন-নিবেদন জানিয়েছেন। এদিকে ওই জমি ছেড়ে অন্যত্র চলে যেতে ইউসুফ সিকদারের ছেলে ফারুক হতদরিদ্র জুনায়েদকে বিভিন্নভাবে হুমকি-ধামকি দিয়ে আসছে। ফারুকের সাফ কথা তোকে (জুনায়েদ) মেরে ফেললে কিছুই হবে না। এ ব্যাপারে ১৩নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মেহেদী পারভেজ আবির বলেন, বিষয়টি সমাধানের জন্য ইউসুফ সিকদারকে ডেকে মীমাংসার চেষ্টা চালানো হয়েছে। এমনকি ঘটনাস্থলে গিয়ে সমাধানের চেষ্টা চালিয়ে ব্যর্থ হয়েছি। এ ব্যাপারে কথা বলার জন্য ইউসুফ সিকদারের মোবাইলে কল দেয়া হলে তিনি তা রিসিভ করেননি।

এই বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
৩১  




মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT