বাকেরগঞ্জে ধর্ষণে তালাক প্রাপ্তা নারী অন্তঃসত্তা ! বাকেরগঞ্জে ধর্ষণে তালাক প্রাপ্তা নারী অন্তঃসত্তা ! - ajkerparibartan.com
বাকেরগঞ্জে ধর্ষণে তালাক প্রাপ্তা নারী অন্তঃসত্তা !

1:00 am , February 11, 2020

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ কিছু দিন পূর্বে বাকেরগঞ্জে প্রধান শিক্ষক কর্তৃক ৫ম শ্রেনীর এক ছাত্রী ধর্ষনে অন্তসত্তা অতৎপর শেবাচিম হাসপাতালে বসে সন্তান প্রসবের ঘটনাটি সারা দেশে আলোড়ন সৃষ্টি করেছিলো। সেই ঘটনার রেশ কাটতে না কাটতে এবার এই বাকেরগঞ্জেই সন্ধান মিললো অপর এক অমানবিক ঘটনার। এবার আর শিশু শিক্ষার্থী নয় ধর্ষনে ৭ মাসের অন্ত.সত্তা হয়েছে সালমা নামের তালাক প্রাপ্ত এক মধ্য বয়সী নারী। কিন্তু নিতান্তই গরীব ঘরে জন্ম নেয়ায় ধর্ষনের বিষয়ে মুখ খুলতে সাহস পাচ্ছে না হত ভাগ্য ওই মেয়েটি ও তার পরিবার। যে কারনে স্থানীয়দের মাঝে প্রশ্ন উঠেছে কে ওই অনাগত সন্তানের পিতা। কার পিতৃ পরিচয়েই বা বড় হবে শিশুটি।
স্থানীয় সুত্রে জানা গেছে, কয়েক বছর পূর্বে ১০ নং গাড়ুড়িয়া ইউনিয়নের বালী গ্রামের আবদুস সত্তার গাজীর মেয়ে সালমার সাথে ৭ নং কবাই ইউনিয়নের চুনাখালী গ্রামের আবদুল বারেক কুরমান এর ছেলে আবদুর রহিমের সাথে পারিবারিক ভাবে বিয়ে হয়েছিলো। যেখানে সালমার ১৪ বছর বয়সী একটি কন্যা সন্তানও জন্ম নেয়। কিন্তু ২ বছর পূর্বে তালাক প্রাপ্ত হয় সালমা। এক মাত্র মেয়েটির মুখ দেখার আশায় ওই খোদাবক্স কাঠি গ্রামেই তাজেম সর্দারের বাড়িতে কাজের বুয়া হিসাবে কাজ শুরু করেন সালমা। থাকতেনও ওই বাড়িতে। আর সুযোগ হলেই এক নজর দেখে আসতেন মেয়েটিকে। এভাবেই চলছিলো সালমার দিনগুলি। কিন্তু কয়েক মাস পর বিস্ময়কর ভাবে গর্ভবতী হয়ে পড়েন সালমা। বর্তমানে তার গর্ভের বয়স ৭ মাস। প্রথম দিকে এ বিষয়ে সালমাকে জিজ্ঞাসা করা হলে ওই বাড়ির (যেখানে কাজ করে) এক পুরুষের নাম জানিয়েছে সালমা। বলেছে তাকে বিয়ে করবে বলে তার সাথে শারীরিক সম্পর্ক স্থাপন করেছে ওই পুরুষ। কিন্তু সাম্প্রতিক সময়ে এ বিষয়ে কোন কথাই বলছে না সালমা। অনেকটা বাক রুদ্ধের মত নিথর দেহ নিয়ে বাবার বাড়িতে দিনাতিপাত করছে সালমা। স্থাণীয়রা জানান ধর্ষক প্রভাবশালী হওয়ায় তার ভয়ে মুখ খুলছে না সালমা ও তার পরিবার। কিন্তু প্রশাসন এ বিষয়ে পদক্ষেপ নিলে বেড়িয়ে আসবে প্রকৃত ঘটনা ও অপরাধী।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে বরিশাল জেলা পুলিশ সুপার মোঃ সাইফুল ইসলাম বলেন অবশ্যই এ বিষয়ে পৃুলিশ পদক্ষেপ গ্রহন করবে। ধর্ষক বা অপরাধী যতই প্রভাবশালী হোক না কেন তাকে আইনের আওতায় আনা হবে। তিনি বলেন স্থাণীয় থানায় ভিকটিমের পক্ষ থেকে একটি লিখিত অভিযোগ করলেই ব্যবস্থা ওসি সেটি মামলা হিসাবে গ্রহন করবে। ভিকটিম তাও যদি করতে সমর্থ না হয় তাহলে ব্যক্তিগত ভাবে আমাকে কেউ নাম ঠিকানা ইনফর্ম করলে আমি লোকাল থানায় বলে এখনই ব্যবস্থা নেব।

এই বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০৩১  
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT