বরিশাল বিমান-বন্দরের রানওয়েতে দুর্ঘটনার শংকা বরিশাল বিমান-বন্দরের রানওয়েতে দুর্ঘটনার শংকা - ajkerparibartan.com
বরিশাল বিমান-বন্দরের রানওয়েতে দুর্ঘটনার শংকা

3:01 pm , October 25, 2019

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ অরক্ষিত বরিশাল বিমান-বন্দরের রানওয়ে। নিরাপত্তা কর্মীদের অবহেলায় বিমান উড্ডয়ন-অবতরন করার সময় প্রায়শই রানওয়েতে প্রবেশ করে কুকুরসহ বিভিন্ন প্রানী। যাতে করে যেকোন সময় মারাত্মক দুর্ঘটনার আশংকা করছে বিমান সংশ্লিষ্টসহ যাত্রীরা। আর এ নিয়ে বিমান বন্দরের রক্ষনাবেক্ষনের দায়িত্ব থাকা সিভিল এভিয়েশন কর্তৃপক্ষের তেমন কোন মাথা ব্যথা নেই। গতকাল শুক্রবার এমন এক ঘটনা ঘটেছে। বিমান অবতরনের সময় কয়েকটি কুকুর প্রবেশ করে রানওয়েতে। তখন বিমানের যাত্রীরা এ নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। আর এ বিষয়টি স্বাভাবিক হিসেবে নিয়েছেন বরিশাল বিমান বন্দরের ব্যবস্থাপক। দাম্ভিকতা প্রকাশ করে আমি নাম বলি না জানিয়ে বিমান বন্দরের ব্যবস্থাপক (পরে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে তার নাম রথীন্দ্র নাথ চৌধুরী) তিনি মুঠোফোনে বলেন, কুকুর একটি অবুঝ প্রানী। তাই তারা প্রায় সময় প্রবেশ করে। গতকালও এপ্রোন দিয়ে প্রবেশ করেছে। সেটা নিরাপত্তা কর্মীরা তাড়িয়েও দিয়েছে। এটা কোন সমস্যা নয়।
বিমান বন্দর সূত্র জানিয়েছে, ১৯৬৩ সালে বাবুগঞ্জ উপজেলার রহমতপুর ইউনিয়নে এ বিমান বন্দর করা হয়। আকাশ থেকে শস্যখেতে কীটনাশক ছিটানোর কাজে ব্যবহারের জন্য ‘প্ল্যান্ট প্রোটেকশন’ বন্দর হিসেবে দুই হাজার ফুট রানওয়ে নির্মাণ করা হয়। স্বাধীনতার পর ১৯৮৫ সালে এটিকে বিমান বন্দরে রূপান্তর করা হয়। এরপর ১৯৯৫ সালের ১৭ জুলাই থেকে দিনের বেলা ঢাকা-বরিশাল রুটে বাণিজ্যিক বিমানের চলাচল শুরু হয়। বর্তমানে ১৬০ দশমিক ৫ একর জমির ওপর বরিশাল বিমানবন্দরের রানওয়ের দৈর্ঘ্য ছয় হাজার ফুট এবং প্রস্থ ১০০ ফুট। বর্তমানে এই বিমান বন্দরে সপ্তাহে সাত দিন ১৪টি অভ্যন্তরীণ যাত্রীবাহী বিমান চলাচল করছে। বিমান বন্দরে কর্মরত রয়েছেন ৫৫ জন কর্মকর্তা-কর্মচারী। এর মধ্যে ২৪ নিরাপত্তা কর্মী।
স্থানীয়রা জানিয়েছে, রহমতপুর থেকে বাবুগঞ্জ যাওয়ার সড়কের অংশে নিরাপত্তা প্রাচীর অরক্ষিত। চারপাশের সীমানা প্রাচীরের কয়েক স্থানে ভেঙ্গে গেছে। প্রায়ই এর নিচ দিয়ে যে কেউ রানওয়ের মধ্যে প্রবেশ করতে পারে। এছাড়াও প্রায় সময় কুকুর-গরু-ছাগল রানওয়েতে প্রবেশ করে ছুটে বেড়ায়। রানওয়ের সর্বত্র সিসি ক্যামেরা এবং পর্যাপ্ত মনিটর নেই। তাই নিরাপত্তার দিক বিবেচনায় দক্ষিণাঞ্চলের এই বিমানবন্দরটি একেবারেই অরক্ষিত। এ অবস্থায় বন্দরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিয়েও উদ্বেগ উৎকণ্ঠায় যাত্রীরা বিমানে যাতায়াত করছে।

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT