হিজলায় যুবককে নির্যাতন করে মলমুত্র খাওয়ানোর ভিডিও ভাইরাল ॥ আটক ৩ হিজলায় যুবককে নির্যাতন করে মলমুত্র খাওয়ানোর ভিডিও ভাইরাল ॥ আটক ৩ - ajkerparibartan.com
হিজলায় যুবককে নির্যাতন করে মলমুত্র খাওয়ানোর ভিডিও ভাইরাল ॥ আটক ৩

3:12 pm , October 8, 2019

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ হিজলায় তেল ব্যবসায়ীকে নির্যাতনের পরে মুখে মল-মুত্র ঢেলে দেয়ার ঘটনায় ওয়ার্ড স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতিসহ তিনজনকে আটক করেছে পুলিশ। গতকাল মঙ্গলবার সকাল থেকে পৃথক অভিযানে তিন জনকে আটক করা হয়। এছাড়াও নির্যাতনের শিকার ব্যবসায়ীর বাবা বাদী হয়ে হিজলা থানায় মামলা করেছেন। মামলায় তিনজনসহ অজ্ঞাতনামাদের আসামী করা হয়েছে। বিষয়টি নিয়ে আজ জেলা পুলিশ সুপার কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করে বিস্তারিত জানানো হবে বলে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার নাইমুল ইসলাম জানিয়েছেন। আটককৃতরা হলো- হরিনাথপুর লঞ্চ ঘাটের সুপারভাইজার আব্দুল খালেক সিকদারের ছেলে প্রধান অভিযুক্ত স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা মাহাবুব সিকদার, উপজেলার হরিনাথপুর ইউনিয়নের টুমচর গ্রামের বাসিন্দা শরিফ মাতুব্বরের ছেলে আব্দুর রশিদ ও একই এলাকার বাসিন্দা কবির। এদের মধ্যে আব্দুর রশিদ ইউনিয়নের ৬ নং ওয়ার্ড স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি বলে জানাগেছে। হিজলা থানার পরিদর্শক (তদন্ত) ইলিয়াস তালুকদার বলেন, গত সপ্তাহে হিজলার হরিনাথপুর তালতলা জামে মসজিদ রোডের তেল ব্যবসায়ী ও টুমচরের বাসিন্দা মহিউদ্দিন বেপারীর ছেলে আজম বেপারী (২৫) কে হাত-পা বেঁধে নির্মমভাবে নির্যাতনের পরে মুখে মলমুত্র ঢেলে দেয় প্রভাবশালীরা। এ ঘটনার সময় কেউ প্রতিবাদ না করলেও গোপনে নির্যাতনের দৃশ্য ভিডিও করে। পরে ফেসবুকসহ অন্যান্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে ভাইরাল হয়। এ নিয়ে বিভিন্ন অনলাইন গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশ হয়। ফেসবুকে ভাইরাল হওয়া ওই ভিডিওতে দেখা যায়, ‘আজম বেপারীকে হাত-পা বেধে হেরিংবনের রাস্তার ওপর শোয়ানো হয়। তার চার দিক ঘিরে দাড়িয়ে ছিল ৭-৮ জন লোক। এর মধ্যে একজন আজমের বুকের ওপর পা দিয়ে দাড়িয়ে আছে। এছাড়া অপর একজন লোক আজমের পা এবং একজন লোক তার মাথা মাটির সাথে চেপে ধরে আছে।
একটু পরেই বুকের উপর পা দিয়ে দাড়িয়ে থাকা ব্যক্তি বিশেষ পাত্রে মল-মুত্র নিয়ে তা জোর করে আজমের মুখে ঢালার চেষ্টা করছে। তখন আজম অনেক অনুনয় বিনয় এবং ধস্তা ধস্তি করেও তাদের থেকে রক্ষা পায়নি। এ সময় পাশে দাড়িয়ে কিছু লোক ওই ঘটনা উপভোগ করলেও কেউ প্রতিরোধে এগিয়ে আসেনি। আর পুরো ঘটনাটি পাশ থেকে দাড়িয়ে কেউ একজন মোবাইল ফোনে ভিডিও করে।
অভিযোগের বিষয়ে নিজের ভুল স্বীকার করে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের নেতা দাবি করে মাহবুব সিকদার বলেন, ‘আজম বেপারী ঝাড়-ফুক দিয়ে গ্রামের মেয়ে এবং বউদের সাথে অনৈতিক কর্মকান্ড করে। সম্প্রতি সে স্থানীয় জহির খান এর স্ত্রী পারভীন বেগম ও তার মেয়ে’র সঙ্গে অবৈধ সম্পর্ক করে। এমনকি পারভীন বেগমকে নিয়ে পালিয়ে যায়। এর কিছুদিন পরে তারা পুনরায় এলাকায় ফিরে এসেছে। এখানে এসে আমাকে (মাহবুব) ও পারভীনের স্বামী জহিরকে ২৪ ঘন্টার মধ্যে মেরে ফেলতে খুফ্ফরি দিয়ে বান মারে। আর এই বিষয়টি অন্য এক ওঝার কাছ থেকে জানতে পারি। পরে আজম বেপারীকে মেমানিয়া গাল্স স্কুল থেকে ধরে আনা হয়।
তিনি বলেন, আজম বেপারীকে ধরে স্থানীয় যুবলীগ সভাপতি ও সাবেক ইউপি চেয়ারম্যানের কাছে নিয়ে গেলে তাদের সামনে নিজের অপরাধ স্বীকার করে নেয় সে। তাই রাগের মাথায় আজিমকে নির্যাতনের পরে মুখে মলমুত্র ঢেলে দিয়ে অপরাধ করেছেন বলে স্বীকার করেন মাহবুব সিকদার।
হিজলা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আমিনুল ইসলাম বলেন, ‘একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে। যা আমি দেখেছি। এই বিষয়ে ব্যবস্থা নিতে থানা পুলিশকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। বিষয়টি পুলিশ এখন খুবই তৎপর। খুব দ্রুতই অভিযুক্তরা আইনের আওতায় চলে আসবে বলে জানিয়েছেন তিনি।
এ বিষয়ে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার নাইমুল ইসলাম জানান, জহির খানের সাথে আজম বেপারীর পূর্ব বিরোধ ছিল। সেই বিরোধের জেরে তাকে ধরে এনে নির্যাতন করে ঝাড়-ফুকের স্বীকার করায়। পরে তাকে আরো নির্যাতনের পর মল-মুত্র খাওয়ানো হয়। বিষয়টি ভিডিও দেখার পর তিনজনকে আটক করা হয়েছে। বাকিদের আটকের চেষ্টা করা হচ্ছে।

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT