নগরীতে স্বর্ণ চোরকারবারি সহ আটক ২ ॥ চোরাই স্বর্ণ ও টাকা উদ্ধার নগরীতে স্বর্ণ চোরকারবারি সহ আটক ২ ॥ চোরাই স্বর্ণ ও টাকা উদ্ধার - ajkerparibartan.com
নগরীতে স্বর্ণ চোরকারবারি সহ আটক ২ ॥ চোরাই স্বর্ণ ও টাকা উদ্ধার

3:26 pm , July 22, 2019

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ নগরীতে স্বর্ণ চোরাকারবারির অপরাধে এক স্বর্ণ ব্যবসায়ী ও চোরাই সিন্ডিকেটের এক নারী সদস্যকে আটক করেছে পুলিশ। এসময় তাদের কাছ থেকে চুরি হওয়া স্বর্ণালংকার, চোরাই স্বর্ণ বিক্রির টাকা, ঘুমের ওষুধ ও ভুয়া ভোটার আইডি কার্ড উদ্ধার করা হয়েছে। রোববার রাতে ও গতকাল সোমবার পৃথক স্থান হতে তাদের আটক করা হয়। এই ঘটনায় বরিশাল মেট্রোপলিটন কোতয়ালী মডেল থানায় ৩২৮ ও ৩৮০ ধারায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। ২১ জুলাই দায়েরকৃত মামলা নম্বর ৬৫। আটককৃতরা হলো- বরিশাল নগরীর সদর রোডস্থ আগরপুর রোডের সম্মুখে জুয়েলারী ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান শাহাদাৎ এন্ড সন্স এর মালিক শেখ মোহাম্মদ ইদ্রিস ও প্রতারক চক্রের সদস্য তপু বালা (৩৯)। এদের মধ্যে তপু বালা মাদারীপুরের রাজৈর থানাধিন উত্তর পাখুল্লা গ্রামের সুনীল বালা’র মেয়ে। এছাড়া স্বর্ণ ব্যবসায়ী শেখ মোহাম্মদ ইদ্রিস নগরীর এন হোসেন গলির বাসিন্দা ও সদর রোডের নির্মানাধীন এসএস টাওয়ারের মালিকানা অংশিদার।
তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করে কোতয়ালী মডেল থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) ফিরোজ আল মামুন জানান চলতি বছরের ১ ফেব্রুয়ারী তপু বালা বরিশাল নগরীর ২০ নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা সৌদি প্রবাসী সিদ্দিকুর রহমানের মালিকানাধীন বাড়ির পঞ্চম তলার একটি ফ্লাট ভাড়া নেয়।
সেই সুবাধে ভবনের তৃতীয় তলার ফ্লাটে থাকা প্রবাসির স্ত্রী সাথী আক্তার ও তাদের মেয়ে ঐশি আক্তারের সাথে সু-সম্পর্ক গড়ে তোলেন। এর প্রেক্ষিতে গত ২১ জুলাই দুপুর ২টার দিকে প্রতারক ভাড়াটিয়া তপু বালা সাথী আক্তারের ফ্লাটে গিয়ে অতিরিক্ত মাত্রার ঘুমের ওষুধ মিশিয়ে কফি বানিয়ে সাথী ও তার মেয়েকে দেয়।
যা খেয়ে তারা দু’জনেই অচেতন হয়ে ঘুমিয়ে পড়ে। বিকাল সাড়ে চারটায় মেয়ে ঐশি আক্তারের জ্ঞান ফিরলে মা সাথী আক্তারকে অচেতন অবস্থায় ঘরের মেঝেতে পড়ে থাকতে দেখেন। পাশাপাশি মা এবং মেয়ের সাথে থাকা ১ ভরি চার রত্তি ওজনের একটি স্বর্ণের চেইন, ৩ আনা এক রত্তি ওজনের একটি আংটি ও ৪ আনা ৩ রত্তি ওজনের এক জোড়া কানের দুল খুজে পায়না। পরে অন্যান্য ফ্লাটের ভাড়াটিয়ারা তাদের উদ্ধার করে বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে ভর্তি করে দেয়।
এসআই মামুন বলেন, খবর পেয়ে রাতেই তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। পাশাপাশি এই ঘটনায় রাতেই সাথী আক্তার বাদী হয়ে একটি মামলাও দায়ের করেন। ওই মামলার সূত্র ধরে অভিযান চালিয়ে রাত সাড়ে ১২টার দিকে কলেজ এভিনিউ এলাকা থেকে চোর চক্রের সদস্য তপু বালাকে গ্রেফতার করা হয়। পরে তার দেয়া তথ্য অনুযায়ী সদর রোডের জুয়েলারি দোকান থেকে স্বর্ণালংকার ও স্বর্ণ বিক্রির টাকা উদ্ধার করা হয়।
কোতয়ালী মডেল থানার অফিসার ইন-চার্জ (ওসি) নুরুল ইসলাম জানান, তপু বালা নামের প্রতারক খুবই ধুরন্দার এবং চালাক। তিনি চক্রের অন্যতম সদস্য হলেও তার সাজসজ্জা দেখে কিছু বোঝার উপায় নেই। সে চুরি করা স্বর্ণালংকার প্রথমে গির্জা মহল্লার একটি জুয়েলারি দোকানে মাপিয়ে ৭৫ হাজার টাকা মূল্য নিশ্চিত হয়। পরে তা সদর রোডের শাহাদাৎ এন্ড সন্স নামক জুয়েলারী দোকানে ৬৫ হাজার টাকায় বিক্রি করে। দোকানের মালিক শেখ মোহাম্মদ ইদ্রিস চোরাই স্বর্ণ জানা সত্বেও তা ক্রয় করেন। ওসি জানিয়েছেন, স্বর্ণ ব্যবসায়ী শেখ মো. ইদ্রিস এর কাছ থেকে চোরাই স্বর্ণ উদ্ধার করা হয়েছে। যে কারনে তাকে একই মামলায় সন্নিগ্ন আসামী করা হয়েছে। তিনি চোরা কারবারির সাথে জড়িত কিনা তা তদন্তে বেরিয়ে আসবে।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় কয়েকজন স্বর্ণ ব্যবসায়ী জানান, শাহাদাৎ এন্ড সন্স এর মালিক শেখ মোহাম্মদ ইদ্রিস দীর্ঘ দিন ধরেই চোরাই স্বর্ণ বেচা-কেনার সাথে জড়িত। সে চোর চক্রের কাছ থেকে স্বর্ণ বেচা-কেনা করে থাকে। তবে খুব চতুর হওয়ার কারনে ইতিপূর্বে কেউ তাকে ধরতে পারেনি। তাছাড়া গ্রেফতার হওয়া চোর চক্রের ওই রমনীকে ইতিপূর্বে তার দোকানে আসা যাওয়া করতে দেখেছেন অনেক ব্যবসায়ী। এ প্রসঙ্গে বাংলাদেশ জুয়েলার্স সমিতি বরিশাল জেলার সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ আলী জসিম বলেন, শাহাদাৎ এন্ড সন্স অনেক পুরানো স্বর্ণ ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান। তবে এই প্রতিষ্ঠানে কোন পুরাতন স্বর্ণ বেচা-বিক্রি হয় না। তারা নতুন স্বর্ণের কারবারি করেন।
তিনি বলেন, আটক হওয়া চোর চক্রের ওই নারী সদস্য ইতিপূর্বে কাষ্টমার হিসিবে শাহাদাৎ এন্ড সন্স প্রতিষ্ঠানে আসে। অনেক স্বর্ণালংকারও কিনেছেন ওই প্রতিষ্ঠান থেকে। এ থেকেই প্রতিষ্ঠানের মালিক ও কর্মচারীদের সাথে তার সু-সম্পর্ক হয়। সেই সম্পর্কের খাতিরেই তিনি তপু বালা’র কাছ থেকে স্বর্ণ ক্রয় করেছেন। তবে তা চোরাই স্বর্ণ কিনা সে বিষয়টি শেখ মোহাম্মদ ইদ্রিস জানতেন না। তাই এই বিষয়ে সুষ্ঠু তদন্তের দাবীও জানান জুয়েলার্স সমিতির এই নেতা।নগরীতে স্বর্ণ চোরকারবারি সহ আটক ২ ॥ চোরাই স্বর্ণ ও টাকা উদ্ধার
নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ নগরীতে স্বর্ণ চোরাকারবারির অপরাধে এক স্বর্ণ ব্যবসায়ী ও চোরাই সিন্ডিকেটের এক নারী সদস্যকে আটক করেছে পুলিশ। এসময় তাদের কাছ থেকে চুরি হওয়া স্বর্ণালংকার, চোরাই স্বর্ণ বিক্রির টাকা, ঘুমের ওষুধ ও ভুয়া ভোটার আইডি কার্ড উদ্ধার করা হয়েছে। রোববার রাতে ও গতকাল সোমবার পৃথক স্থান হতে তাদের আটক করা হয়। এই ঘটনায় বরিশাল মেট্রোপলিটন কোতয়ালী মডেল থানায় ৩২৮ ও ৩৮০ ধারায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। ২১ জুলাই দায়েরকৃত মামলা নম্বর ৬৫। আটককৃতরা হলো- বরিশাল নগরীর সদর রোডস্থ আগরপুর রোডের সম্মুখে জুয়েলারী ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান শাহাদাৎ এন্ড সন্স এর মালিক শেখ মোহাম্মদ ইদ্রিস ও প্রতারক চক্রের সদস্য তপু বালা (৩৯)। এদের মধ্যে তপু বালা মাদারীপুরের রাজৈর থানাধিন উত্তর পাখুল্লা গ্রামের সুনীল বালা’র মেয়ে। এছাড়া স্বর্ণ ব্যবসায়ী শেখ মোহাম্মদ ইদ্রিস নগরীর এন হোসেন গলির বাসিন্দা ও সদর রোডের নির্মানাধীন এসএস টাওয়ারের মালিকানা অংশিদার।
তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করে কোতয়ালী মডেল থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) ফিরোজ আল মামুন জানান চলতি বছরের ১ ফেব্রুয়ারী তপু বালা বরিশাল নগরীর ২০ নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা সৌদি প্রবাসী সিদ্দিকুর রহমানের মালিকানাধীন বাড়ির পঞ্চম তলার একটি ফ্লাট ভাড়া নেয়।
সেই সুবাধে ভবনের তৃতীয় তলার ফ্লাটে থাকা প্রবাসির স্ত্রী সাথী আক্তার ও তাদের মেয়ে ঐশি আক্তারের সাথে সু-সম্পর্ক গড়ে তোলেন। এর প্রেক্ষিতে গত ২১ জুলাই দুপুর ২টার দিকে প্রতারক ভাড়াটিয়া তপু বালা সাথী আক্তারের ফ্লাটে গিয়ে অতিরিক্ত মাত্রার ঘুমের ওষুধ মিশিয়ে কফি বানিয়ে সাথী ও তার মেয়েকে দেয়।
যা খেয়ে তারা দু’জনেই অচেতন হয়ে ঘুমিয়ে পড়ে। বিকাল সাড়ে চারটায় মেয়ে ঐশি আক্তারের জ্ঞান ফিরলে মা সাথী আক্তারকে অচেতন অবস্থায় ঘরের মেঝেতে পড়ে থাকতে দেখেন। পাশাপাশি মা এবং মেয়ের সাথে থাকা ১ ভরি চার রত্তি ওজনের একটি স্বর্ণের চেইন, ৩ আনা এক রত্তি ওজনের একটি আংটি ও ৪ আনা ৩ রত্তি ওজনের এক জোড়া কানের দুল খুজে পায়না। পরে অন্যান্য ফ্লাটের ভাড়াটিয়ারা তাদের উদ্ধার করে বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে ভর্তি করে দেয়।
এসআই মামুন বলেন, খবর পেয়ে রাতেই তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। পাশাপাশি এই ঘটনায় রাতেই সাথী আক্তার বাদী হয়ে একটি মামলাও দায়ের করেন। ওই মামলার সূত্র ধরে অভিযান চালিয়ে রাত সাড়ে ১২টার দিকে কলেজ এভিনিউ এলাকা থেকে চোর চক্রের সদস্য তপু বালাকে গ্রেফতার করা হয়। পরে তার দেয়া তথ্য অনুযায়ী সদর রোডের জুয়েলারি দোকান থেকে স্বর্ণালংকার ও স্বর্ণ বিক্রির টাকা উদ্ধার করা হয়।
কোতয়ালী মডেল থানার অফিসার ইন-চার্জ (ওসি) নুরুল ইসলাম জানান, তপু বালা নামের প্রতারক খুবই ধুরন্দার এবং চালাক। তিনি চক্রের অন্যতম সদস্য হলেও তার সাজসজ্জা দেখে কিছু বোঝার উপায় নেই। সে চুরি করা স্বর্ণালংকার প্রথমে গির্জা মহল্লার একটি জুয়েলারি দোকানে মাপিয়ে ৭৫ হাজার টাকা মূল্য নিশ্চিত হয়। পরে তা সদর রোডের শাহাদাৎ এন্ড সন্স নামক জুয়েলারী দোকানে ৬৫ হাজার টাকায় বিক্রি করে। দোকানের মালিক শেখ মোহাম্মদ ইদ্রিস চোরাই স্বর্ণ জানা সত্বেও তা ক্রয় করেন। ওসি জানিয়েছেন, স্বর্ণ ব্যবসায়ী শেখ মো. ইদ্রিস এর কাছ থেকে চোরাই স্বর্ণ উদ্ধার করা হয়েছে। যে কারনে তাকে একই মামলায় সন্নিগ্ন আসামী করা হয়েছে। তিনি চোরা কারবারির সাথে জড়িত কিনা তা তদন্তে বেরিয়ে আসবে।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় কয়েকজন স্বর্ণ ব্যবসায়ী জানান, শাহাদাৎ এন্ড সন্স এর মালিক শেখ মোহাম্মদ ইদ্রিস দীর্ঘ দিন ধরেই চোরাই স্বর্ণ বেচা-কেনার সাথে জড়িত। সে চোর চক্রের কাছ থেকে স্বর্ণ বেচা-কেনা করে থাকে। তবে খুব চতুর হওয়ার কারনে ইতিপূর্বে কেউ তাকে ধরতে পারেনি। তাছাড়া গ্রেফতার হওয়া চোর চক্রের ওই রমনীকে ইতিপূর্বে তার দোকানে আসা যাওয়া করতে দেখেছেন অনেক ব্যবসায়ী। এ প্রসঙ্গে বাংলাদেশ জুয়েলার্স সমিতি বরিশাল জেলার সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ আলী জসিম বলেন, শাহাদাৎ এন্ড সন্স অনেক পুরানো স্বর্ণ ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান। তবে এই প্রতিষ্ঠানে কোন পুরাতন স্বর্ণ বেচা-বিক্রি হয় না। তারা নতুন স্বর্ণের কারবারি করেন।
তিনি বলেন, আটক হওয়া চোর চক্রের ওই নারী সদস্য ইতিপূর্বে কাষ্টমার হিসিবে শাহাদাৎ এন্ড সন্স প্রতিষ্ঠানে আসে। অনেক স্বর্ণালংকারও কিনেছেন ওই প্রতিষ্ঠান থেকে। এ থেকেই প্রতিষ্ঠানের মালিক ও কর্মচারীদের সাথে তার সু-সম্পর্ক হয়। সেই সম্পর্কের খাতিরেই তিনি তপু বালা’র কাছ থেকে স্বর্ণ ক্রয় করেছেন। তবে তা চোরাই স্বর্ণ কিনা সে বিষয়টি শেখ মোহাম্মদ ইদ্রিস জানতেন না। তাই এই বিষয়ে সুষ্ঠু তদন্তের দাবীও জানান জুয়েলার্স সমিতির এই নেতা।

https://youtube.com/mubinmuyein

এই বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০  




মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT