১০ বছরে দক্ষিণাঞ্চলে কৃষি জমি কমেছে ১.৯৮ একর ১০ বছরে দক্ষিণাঞ্চলে কৃষি জমি কমেছে ১.৯৮ একর - ajkerparibartan.com
১০ বছরে দক্ষিণাঞ্চলে কৃষি জমি কমেছে ১.৯৮ একর

3:22 pm , May 7, 2019

খান রুবেল ॥ নানা কারনে দক্ষিণাঞ্চলে কমে যাচ্ছে ফসলি জমির পরিমান। বিগত দশ বছরের ব্যবধানে এ অঞ্চলে কমে গেছে প্রায় ১ দশমিক ৯৮ একর জমি। বিশেষ করে গত ৫ বছরে কমে যাওয়ার হার পূর্বের পাঁচ বছরের তুলনায় বেশি। ২০১৪ সাল হতে চলতি বছরের মার্চ মাস পর্যন্ত জমির পরিমান কমেছে শূণ্য দশমিক ৯৯ একর। সংখ্যায় যার পরিমান দাড়িয়েছে ৭ হাজার ২২৬ একর। যদিও ফসলি জমির পরিমান কমলেও কমেনি উৎপাদন। বরং বিগত ১০ বছরে দক্ষিণাঞ্চলে চাল, ডাল, সবজি, ভুট্টা সহ বিভিন্ন মসলা জাতীয় পণ্যের উৎপাদন বেড়েছে বহুগুন। ফসল ফলাতে উপশী ও হাইব্রিড সহ উচ্চ ফলনশিলজাত ব্যবহারের কারনেই কম জমিতে ফসলের উৎপাদন বৃদ্ধি পাচ্ছে বলে জানিয়েছেন কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তর বরিশাল বিভাগীয় উদ্যান বিশেষজ্ঞ জিএমএম কবির খান। কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তর বরিশাল বিভাগীয় উপ-পরিচালকের কার্যালয় খামার বাড়ি সূত্রে জানাগেছে, দক্ষিণাঞ্চলে প্রতি বছর গড়ে দশমিক ২ শতাংশ ফসলি জমি কমে যাচ্ছে। সে হিসেবে গত ১০ বছরে ১ দশমিক ৯৮ ভাগ ফসলি জমি কমেছে। তবে তুলনামুলক জমির পরিমান কমেছে বিগত পাঁচ বছরে। কমে যাওয়া ফসলিম জমির পরিমান অন্যান্য জেলার তুলনায় ভোলা ও পটুয়াখালী জেলায় বেশি। বিগত ৫ বছরে এ দুটি জেলায় জমির পরিমান কমেছে ১ হাজার ৫০০ একর। এর মধ্যে ভোলা জেলায় জমির পরিমান কমেছে ৬ হাজার ৩০০ একর এবং পটুয়াখালী জেলায় কমেছে ৬ হাজার একর। পাঁচ বছর পূর্বে ২০১৪ সালে ভোলা জেলায় মোট ফসলি জমির পরিমান ছিলো ১ লাখ ৯২ হাজার ৬৮২ একর। পাঁচ বছর পরে এসে সেই জমির পরিমান দাড়িয়েছে ১ লাখ ৮৬ হাজার ৩৮২ একর। আর পটুয়াখালী জেলায় জমির পরিমান ছিলো ২ লাখ ১৩ হাজার ৬০০ একর। তা কমে দাড়িয়েছে ২ লাখ ১৩ হাজার একরে। এছাড়া বরিশাল জেলায় ২০১৪ সালে ছিলো ১ লাখ ৭৫ হাজার ৬০০ একর। যার বর্তমানে পরিমান ১ লাখ ৭৫ হাজার ৫৩০ একর। কমেছে ৭০ একর। পিরোজপুর জেলায় ছিলো ৮২ হাজার ৪১৪ একর। বর্তমান পরিমান ৮২ হাজার ৩১৪ একর। কমেছে ১০০ একর। ঝালকাঠি জেলায় জমির পরিমান ছিলো ৫৪ হাজার ২৫৬ একর। বর্তমানে ফসলি জমির পরিমান ৫৪ হাজার ২০০ একর। কমেছে ৫৬ একর। বরগুনা জেলায় জমির পরিমান ছিলো ১ লক্ষ ২ হাজার ৯৯৬ একর। তা থেকে কমে এসেছে ১ লাখ ২ হাজার ৮৯৬ একরে। বিগত ৫ বছরে ফসলি জমি কমেছে ১০০ একর। এদিকে ফসলি জমি’র পরিমান কমে গেলেও বেড়েছে ফসলের উৎপাদন। কৃষি বিভাগের এক পরিসংখ্যানে দেখাগেছে ২০১৪ সালে আউশ, রূপা আমন ও বোর ফসলের উৎপাদন হয়েছিলে ২৫ লাখ ৫৯ হাজার ৫৭৩ মেট্রিক টন। তবে বর্তমানে ২০১৮-১৯ সালে উৎপানকৃত ফসলের পরিমান ২৯ লাখ ৯৯ হাজার ৭৯৩ মেট্রিকটন। গড় অনুপাতে ফসলের উৎপাদন বৃদ্ধি পেলেও পটুয়াখালী জেলায় এর পরিমান কমেছে। ২০১৪ সালে এ জেলায় ধান উৎপাদন হয়েছে ৬ লাখ ৪০ হাজার ৬৮৪ মেট্রিক টন। চলতি মৌসুমে উৎপাদনের পরিমান দাড়িয়েছে ৬ লাখ ২৮ হাজার ৪৯২ মেট্রিক টন। সে অনুযায়ী উৎপাদন কমেছে ১২ হাজার ১৯২ মেট্রিক টন।
কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তর বরিশাল বিভাগীয় কার্যালয়ের উদ্যান বিশেষজ্ঞ জিএমএম কবির খান বলেন, জমি কমলেও প্রযুক্তির ব্যবহারের কারনে উৎপাদন বেড়েছে। তবে জমির পরিমান কমে যাওয়ায় আমাদের উপশী বা হাইব্রিড সহ উচ্চফলনশীল তাজ বীজ এর প্রতি নির্ভরশীল হতে হচ্ছে। যার কারনে বৈরী আবহাওয়া এবং জলোচ্ছাস বা অতি বর্ষণের কারনে কৃষকদের ক্ষতির সম্ভাবনা থাকে। কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তর বরিশাল বিভাগীয় কার্যালয় (খামার বাড়ি) এর উপ-পরিচালক তাওফিকুল আলম বলেন, জমির পরিমান কমে যাওয়ার কারন হিসেবে চলমান উন্নয়ন, ইমরাত ও স্থাপনা নির্মানকেই চিহ্নিত করা যায়। পাশাপাশি ইটভাটাকেও দায়ী করা যেতে পারে। কেননা ইটভাটার কালো ধোয়ার কারনে জসলি জমির উরবরতা কমে যায়। যে কারনে ওই জমি ফসল উৎপাদনের জন্য কাজে আসে না। তিনি বলেন, বিগত পাঁচ বছরের হিসেবে ভোলা ও পটুয়াখালী অঞ্চলে জমির বেশি কমেছে। এর মধ্যে পটুয়াখালী জেলায় পায়রা সমুদ্র বন্দর, তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্র, লেবুখালীতে সেনানিবাস নির্মানে অনেক জমির প্রয়োজন হয়েছে। যে গুলো সবই ফসলি জমি ছিলো। সমুদ্র বন্দর ও তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রকে ঘিরে কলাপাড়া, কুয়াকাটা ও বরগুনার আমতলির ফসলি জমিতে বানিজ্যিক স্থাপনা গড়ে উঠছে। সমস্ত করনেই ওই অঞ্চলে জমির পরিমান বেশি কমেছে। ফসলি জমি নষ্ট করে এমন উন্নয়ন চলতে থাকলে একসময় দক্ষিণাঞ্চলে ফসল উৎপাদন হুমকির মুখে পড়বে বলে মনে করছেন ওই কৃষি কর্মকর্তা।

এই বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০৩১  
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT