ভিসি’র পদত্যাগ দাবীতে ববি শিক্ষার্থীদের মহাসড়ক অবরোধ ভিসি’র পদত্যাগ দাবীতে ববি শিক্ষার্থীদের মহাসড়ক অবরোধ - ajkerparibartan.com
ভিসি’র পদত্যাগ দাবীতে ববি শিক্ষার্থীদের মহাসড়ক অবরোধ

3:31 pm , April 4, 2019

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ বরিশাল বিশ^বিদ্যালয়ের উপাচার্যের পদত্যাগ দাবীতে শিক্ষার্থীদের অন্দোলন অব্যাহত রয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার আন্দোলনের ১০ম দিনে তারা বরিশাল-পটুয়াখালী-ভোলা মহাসড়ক অবরোধ বিক্ষোভ প্রদর্শন করেন। টানা এক ঘন্টার সড়ক অবরোধের কারনে মহাসড়কের তিন প্রান্তে বাস-ট্রাক সহ অসংখ্য যানবাহনের দীর্ঘ লাইন পড়ে যায়। সিমাহিন ভোগান্তির শিকার হতে হয় যাত্রীদের। পরে বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার ঘটনাস্থলে গিয়ে শিক্ষার্থীদের দাবী ও ভিসি’রপদত্যাগের বিষয়ে আলোচনা সাপেক্ষে ব্যবস্থা গ্রহনের আশ^াস দিলে অবরোধ তুলে নেন শিক্ষার্থীরা। তবে ক্যাম্পাসের তাদের প্রশাসনিক ভবনের সামনে তাদের অবস্থান কর্মসূচি ও বিক্ষোভ অব্যাহত রয়েছে।
বরিশাল বিশ^বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী শফিকুল ইসলাম জানান, শিক্ষার্থীদের রাজাকারের বাচ্চা বলে গালি দেয়া দুর্নীতিবাজ ভিসি এসএম ইমামুল হক এর পদত্যাগ দাবীতে বৃহস্পতিবার সকাল ১১টায় সদর উপজেলার কর্নকাঠিতে বিশ^বিদ্যালয় সংলগ্ন বরিশাল-পটুয়াখালী-ভোলা মহাসড়ক অবরোধ করেন তারা। কীর্তনখোলা নদীর শহীদ আব্দুর রব সেরনিয়াবাত ও খয়রাবাদ সেতু’র মাঝ বরাবর সড়কে অবস্থান নিয়ে ভিসি’র পদত্যাগ দাবীতে নিজেদের রক্তে লেখা ব্যানার, ফেস্টুন ও মাথায় ফিতা বেঁধে শ্লোগান দেন তারা। তার আগে ক্যাম্পাসের মধ্যে বিক্ষোভ মিছিল ও ক্যাম্পাসের সামনের সড়কে নিজেদের অর্থায়নে জেব্রা ক্রোসিং তৈরী করা হয়েছে। তিনি বলেন, আজ পুলিশ কমিশনারের অনুরোধ এবং যাত্রীদের কথা ভেবে সড়ক অবরোধ তুলে নিয়েছি। তবে দাবী না মানা হলে পুনরায় অনির্দিষ্টকালের জন্য অবরোধ কর্মসূচি পালন করা হবে। এদিকে বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার মো. মোশারফ হোসেন বলেছেন, শিক্ষার্থীদের দাবীর বিষয়ে পুলিশের সাথে বসার আহ্বান জানানো হয়েছে। তাদের দাবীগুলো শুনে তা প্রধানমন্ত্রীর দপ্তরে প্রেরন করা হবে। পাশাপাশি জনদূর্ভোগ সৃষ্টি না করে পূর্বের ন্যায় শান্তিপূর্ন আন্দোলনের জন্য আহ্বান জানিয়ে পুলিশ কমিশনার বলেন, আন্দোলনের নামে জনদূর্ভোগ সৃষ্টি হলে আমরা ফোর্স ব্যবহার করতে বাধ্য হবো। উল্লেখ্য, শিক্ষার্থীদের বাদ দিয়ে ২৬ মার্চ স্বাধীনতা দিব?সের আনুষ্ঠানের আয়োজনের প্রতিবাদ করায় শিক্ষার্থীদের রাজাকারের বাচ্চা বলে গালি দেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি এসএম ইমামুল হক। এর প্রতিবাদে বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা ২৬ মার্চ বিকাল থেকেই জোরদার আন্দোলন শুরু করেন তারা। এর পর ২৮ মার্চ রাতে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ অনির্দিষ্টকালের জন্য বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ ঘোষনা করে হল ত্যাগের নির্দেশ দেন। তবে হল ত্যাগের ঘোষনা বর্জন করে শিক্ষার্থীরা আন্দোলন কর্মসূচি চালিয়ে যান। এর পর বিশ্ববিদ্যালয়ের সিন্ডিকেট সভার মাধ্যমে উপাচার্য দুঃখ প্রকাশ করে বক্তব্য দেন। তার ওই বক্তব্যকে মিথ্যাচার বলে দাবী করে আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছে শিক্ষার্থীরা। আর তাই গত ৩১ মার্চ বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ সকল হলের ডাইনিং বন্ধ করে দেন। সর্বশেষ ভিসি’র পদত্যাগ চেয়ে ১ এপ্রিল বরিশাল জেলা প্রশাসক কার্যালয় ঘেরাও করে বিক্ষোভ প্রদর্শন করেন। পরে ভিসি’র পদত্যাগ দাবী করে জেলা প্রশাসক এর মাধ্যমে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি এবং ৪৮ ঘন্টার আল্টিমেটাম দেন। এতেও ভিসি পদত্যগ না করায় ৩ এপ্রিল শিক্ষার্থীরা নিজেদের শরীর থেকে রক্ত বের করে তা দিয়ে বিশ^বিদ্যালয়ের দেয়ালে লিখে ভিসি’র পদত্যাগ দাবী জানান। সবশেষ আজ বৃহস্পতিবার তারা সড়ক অবরোধ কর্মসূচি পালন করেন।

এই বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০৩১  
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT