‘জীবন সঙ্কটে’ ওবায়দুল কাদের ‘জীবন সঙ্কটে’ ওবায়দুল কাদের - ajkerparibartan.com
‘জীবন সঙ্কটে’ ওবায়দুল কাদের

3:12 pm , March 3, 2019

বিডি নিউজ ॥ হৃদরোগে আক্রান্ত আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের অবস্থা ‘সঙ্কটজনক’ বলে চিকিৎসকরা জানিয়েছেন। তার চিকিৎসার জন্য গঠিত মেডিকেল বোর্ডের প্রধান বঙ্গবন্ধু মেডিকেলের কার্ডিওলজির অধ্যাপক সৈয়দ আলী আহসান জানিয়েছেন, সেতুমন্ত্রীর তিনটি রক্তনালীতে ব¬ক ধরা পড়েছে, যার একটি স্টেন্টিংয়ের মাধ্যমে অপসারণ করা হয়েছে। উনার অবস্থা ওঠানামার মধ্যে আছে। দোয়া করা ছাড়া আর কোনো উপায় নেই। যেহেতু উনি ভেন্টিলেশনে আছেন, সেহেতু উনি জীবনশঙ্কায় আছেন বলতে পারেন।” এই অবস্থায় উন্নত চিকিৎসার জন্য ওবায়দুল কাদেরকে সিঙ্গাপুর জেনারেল হাসপাতালে নেওয়ার প্রস্তুতি চলছে বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ। তবে এই শারীরিক অবস্থায় কাদেরকে দেশের বাইরে নেওয়া সম্ভব কি না, সে বিষয়ে নিশ্চিত নন চিকিৎসকরা। হঠাৎ গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়লে রোববার সকাল সাড়ে ৭টার দিকে ওবায়দুল কাদেরকে বঙ্গবন্ধু মেডিকেলে এনে করোনারি কেয়ার ইউনিটে ভর্তি করা হয়। খবর পেয়ে আওয়ামী লীগ নেতারাও হাসপাতালে ছুটে আসেন। পরে বঙ্গবন্ধু মেডিকেলের উপাচার্য অধ্যাপক কনক কান্তি বড়–য়া এবং আওয়ামীলীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ এক ব্রিফিংয়ে ওবায়দুল কাদেরর সর্বশেষ পরিস্থিতি সাংবাদিকদের সামনে তুলে ধরেন। হানিফ বলেন, “প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ডাক্তার ও পরিবারের সঙ্গে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রাখছেন, পরিস্থিতি মনিটর করছেন। উনি নির্দেশনা দিয়েছেন যেন হাসপাতালে অহেতুক ভিড় করা না হয়।” দলের নেতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, ভোরে ফজরের নামাজের পর হঠাৎ করেই কাদেরের শ্বাসকষ্ট শুরু হয়। অবস্থার দ্রুত অবনতি হতে থাকলে তাকে বঙ্গবন্ধু মেডিকেলে নিয়ে আসেন তার স্ত্রী ইশরাতুন্নেসা কাদের। কার্ডিওলজি বিভাগের প্রধান অধ্যাপক সৈয়দ আলী আহসান বেলা ১১টার দিকে সাংবাদিকদের বলেন, হাসপাতালে আনার সঙ্গে সঙ্গে ওবায়দুল কাদেরের সিটি স্ক্যান করা হয়। রক্তচাপ কিছুটা স্থিতিশীল হলে করা হয় এনজিওগ্রাম। তাতে কাদেরের তিনটি আর্টারিতে ব¬ক ধরা পড়ে। এর মধ্যে একটি অপসারণ করা হয়। কিন্তু যে কোনো মুহূর্তে পরিস্থিতির অবনতি হতে পারে জানিয়ে সৈয়দ আলী আহসান সে সময় বলেন, উন্নত চিকিৎসার জন্য সেতুমন্ত্রীকে দেশের বাইরে নিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন তারা। ঘণ্টাখানেক পর আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ বলেন, তাদের সাধারণ সম্পাদককে সিঙ্গাপুর জেনারেল হসপিটালে নিয়ে যাওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছেন তারা। সেই প্রস্তুতির জন্য বাসায় ফিরে যান কাদেরের স্ত্রী ইশরাতুন্নেসা। বেলা সোয়া ২টার দিকে আবারও তিনি হাসপাতালে আসেন। আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য আমির হোসেন আমু ও তোফায়েল আহমেদ, সভাপতিম-লীর সদস্য মতিয়া চৌধুরী, প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা এইচ টি ইমাম, প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি খাত, শিল্পায়ন ও বিনিয়োগ বিষয়ক উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান, জাসদ সভাপতি হাসানুল হক ইনু, আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল-আলম হানিফ, জাহাঙ্গীর কবির নানক, আব্দুর রহমান ও শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি, আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আহম্মেদ হোসেন, বি এম মোজাম্মেল হক ও আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাসিম, সাংস্কৃতিক সম্পাদক অসীম কুমার উকিল, দপ্তর সম্পাদক আব্দুস সোবহান গোলাপ, কার্যনির্বাহী সংসদের সদস্য এস এম কামাল হোসেন, ইকবাল হোসেন অপু, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল, পানি সম্পদ উপ-মন্ত্রী এনামুল হক শামীম, সাবেক বস্ত্র ও পাট প্রতিমন্ত্রী মির্জা আজম, বিএমএ সভাপতি মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন, যুব মহিলা লীগের সাধারণ সম্পাদক অপু উকিল ততক্ষণে হাসপাতালে এসে ওবায়দুল কাদেরের খোঁজ খবর নিয়ে যান। ওবায়দুল কাদেরের সর্বশেষ পরিস্থিতি জানাতে বেলা সোয়া ২টার পর হাসপাতালের নিচে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হন ডা. সৈয়দ আলী আহসান। তিনি বলেন, “তিনটা নালীতে ব¬ক ছিল। যেটা ক্রিটিকাল ছিল, এলইডি বলে, এলইডিতে ৯৯ পারসেন্ট, যেটার জন্য উনার এ প্রবলেমটা হয়েছে, আমরা শুধু সেটাকে সারাই করেছি। তবে সেটা পর্যাপ্ত নয়। যেহেতু তিনটা নালী সারানো দরকার। এ মুহূর্তে সেগুলো সারানো যাবে না। সারাতে গেলে আরো বিপদ ঘটবে।” সেতুমন্ত্রীর অবস্থা এখন কেমন- সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নে এই চিকিৎসক বলেন, “উনার পরিস্থিতি অনেক উন্নতির দিকে গিয়েছিল। কিন্তু পরে আবার খারাপের দিকে গেছে। এ পর্যায়ে ওঠানামার মধ্যে আছে। ২৪ থেকে ৭২ ঘণ্টা না গেলে বলা যাবে না যে পরিস্থিতি স্থিতিশীল।” সৈয়দ আলী আহসান জানান, বাকি যে দুটি রক্তনালীতে ব¬ক আছে, তার একটি ৮০ শতাংশ বন্ধ। আগে কোনো এক সময় হার্ট অ্যাটাকে অন্য নালীটি ১০০ শতাংশ বন্ধ হয়ে যায়। এই অবস্থায় সিঙ্গাপুরে নেওয়া যাবে কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, “পরিস্থিতি এ মুহূর্তে বোঝা যাচ্ছে না। আমি বলব, এখনই পাঠানো যাবে না।” এদিকে, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালের করোনারি কেয়ার ইউনিটে ভর্তি হওয়ার দশ ঘণ্টা পর চিকিৎসকদের পক্ষ থেকে জানানো হয়, ওবায়দুল কাদেরের অবস্থার সামান্য উন্নতি হওয়ায় ডাকে সাড়া দিয়ে তিনি চোখ মেলতে পারছেন, তবে এখনও তার অবস্থা শঙ্কামুক্ত নয় বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা। ৬৭ বছর বয়সী ওবায়দুল কাদের ২০১৬ সালের ২৩ অক্টোবরে আওয়ামী লীগের জাতীয় সম্মেলনে সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। তার আগে ছয় বছর তিনি দলের সভাপতি ম-লীতে দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৭৫ সালে বঙ্গবন্ধু হত্যাকা-ের পর আড়াই বছর কারাগারে ছিলেন কাদের। সেখান থেকেই তিনি ছাত্রলীগের সভাপতি নির্বাচিত হন। পর পর দুই মেয়াদে তিনি ওই দায়িত্বে ছিলেন। মুক্তিযুদ্ধ চলাকোলে কোম্পানীগঞ্জ থানা মুজিব বাহিনীর (বিএলএফ) অধিনায়ক কাদের প্রথম সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন ১৯৯৬ সালের নির্বাচনে। মোট চারবার তিনি নোয়াখালী-৫ আসনের ভোটারদের প্রতিনিধি হিসেবে সংসদে এসেছেন। ১৯৯৬ সালের নির্বাচনে জিতে আওয়ামী লীগ দীর্ঘদিন পর সরকার গঠন করলে ওবায়দুল কাদেরকে যুব, ক্রীড়া ও সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব দেন। পরের নির্বাচনে আওয়ামী লীগ হেরে গেলে ২০০২ সালের সম্মেলনে দলের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পান ওবায়দুল কাদের। ২০০৭ সালে সেনা নিয়ন্ত্রিত তত্ত্বাবধায়ন সরকারের সময়ে জরুরি অবস্থার মধ্যে দেশের বহু রাজনীতিবিদের মত ওবায়দুল কাদেরও গ্রেপ্তার হয়ে কারাগারে যান। প্রায় ১৮ মাস কারাগারে কাটানোর পর ২০০৮ সালে নবম সংসদ নির্বাচনের দুই মাস আগে তিনি জামিনে মুক্তি পান। ওই নির্বাচনে জয়ী হয়ে আবার ক্ষমতায় ফেরে আওয়ামী লীগ। প্রথমে তাকে তথ্য মন্ত্রণালয় সংক্রান্ত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতির দায়িত্ব দেওয়া হয়। সরকারের মেয়াদের মাঝামাঝি সময়ে তাকে যোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী করেন প্রধানমন্ত্রী। তখন থেকেই ওই মন্ত্রণালয়ের দেখভাল করছেন ওবায়দুল কাদের। বর্তমানে এ মন্ত্রণালয়ের নাম সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়।

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT