উজিরপুরের দুই লাখ মানুষ আট দিন ধরে বিদ্যুতবিহীন উজিরপুরের দুই লাখ মানুষ আট দিন ধরে বিদ্যুতবিহীন - ajkerparibartan.com
উজিরপুরের দুই লাখ মানুষ আট দিন ধরে বিদ্যুতবিহীন

2:45 pm , November 16, 2019

 

শাকিল মাহমুদ বাচ্চু, উজিরপুর ॥ ঘূর্নিঝড় বুলবুলের আঘাতে লন্ডভন্ড উজিরপুরের ৮ দিন অন্ধকারে প্রায় ২ লাখ মানুষ। গতকাল শনিবারও বন্ধ রয়েছে মিলসহ বেশকয়েটি ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান। তবে কবে নাগাদ পুরো উজিরপুরের বিদুৎ ব্যবস্থা সচল হবে তা স্পট ভাবে বলতে পারছেন না বিদুৎ বিভাগ। উজিরপুর উপজেলার উপরদিয়ে বয়ে যাওয়া ঘুর্নিঝড় বুলবুলের আঘাতে প্রায় ১৮০ টি বিদুৎ খাম্বা উপরে পড়েছে। কয়েক হাজার গ্রাহকের বিদুৎ সংযোগ ছিন্নভিন্ন হয়েছে। গ্রামগঞ্জের মানুষ বিদুৎহীন অবস্থায় চরম দূভোগের মধ্যদিয়ে দিন পার করছে। সরোজমিনে ঘুরে দেখা গেছে উপজেলার ৯ টি ইউনিয়নের কমবেশী বিদ্যুত লাইন ছিন্নভিন্ন হয়ে পড়ে রয়েছে মাটিতে। তার মধ্যে সবচেয়ে বেশী ক্ষতিগ্রস্ত বামরাইল ইউনিয়ন। এ ইউপির গ্রামের খুটির উপর বড়বড় গাছ পড়ে রয়েছে এখনোও। উজিরপুর উপজেলা সদরের অফিস আদালতে ও ব্যাংক এনজিও গুলোতে দিনের বেলায় মোমবাতি জ্বালিয়ে অফিস করতে দেখাগেছে । বিদ্যুৎ ব্যবস্থা নাজুক হওয়ার কারনে উজিরপুরের গ্রামঞ্চলের পোল্ট্রি খামারীর পড়েছে মহা বিপাকে। বিদ্যুতের অভাবে তাদের খামারের মুরগী মরে যাচ্ছে অহরহ। ফলে তারা আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে। অন্যদিকে ব্যাটারীচালিত রিক্সা ও অটো রিক্সা বিদ্যুৎ ব্যবস্থার কারনে চলাচলের অনুপোযুগী হয়ে পড়ায় চালকরা বেকার হয়ে পড়েছে। তাই সাধারন মানুষের বাড়ছে জনদুর্ভোগ। উজিরপুরের গ্রামঞ্চলের সাধারণ মানুষ নানা সমস্যায় পড়েছে। বিদ্যুত না থাকার কারনে মোবাইল নেটওয়ার্ক সমস্যার সৃষ্টি হচ্ছে। শোলক ইউপি চেয়ারম্যান কাজী হুমায়ুন কবির জানান, তাঁর ইউনিয়নের অধিকাংশ মানুষ এখন অন্ধকারে । বামরাইল ইউনিয়নের হস্তিশুন্ডর কাজিরা গ্রামের মনির মাস্টার জানিয়েছেন গত ৮ দিন ধরে বিদ্যুৎ না থাকায় চরম দুর্ভোগের মধ্যে দিন পার করছেন। তার এলাকায় ঘুর্ণিঝড় বুলবুলের আঘাতে বিদ্যুৎ ব্যবস্থা লন্ডভন্ড হয়ে পড়ে আছে। সাতলার নয়াকান্দি এলাকার জিব্রান কাদির জানিয়েছেন, সাতলার বিভিন্ন এলাকায় বৈদ্যুতিক খুটি ও তার ছিন্ন হয়ে পরে রয়েছে ঝড়ের দিন থেকে। তাই ৮দিন ধরে তারা অন্ধকারে রয়েছে। পল্লী বিদুৎ সমিতি ২ উজিরপুর এরিয়ার দায়িত্বরত (এজিএম) বিএম আবুল কালাম জানিয়েছেন, বুলবুল ঘূর্নিঝড়ের কারনে উজিরপুরের বিদুৎ ব্যবস্থার প্রায় কয়েক কোটি টাকা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। তারা দ্রুত বিদুৎ লাইন চালু করার জন্য দিনরাত কাজ করছেন। এমনকি অন্য জেলা থেকেও জনবল এনে উজিরপুরের বিদুৎ ব্যবস্থা চালু করার চেষ্টা করছেন। তাদের হিসাবে উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় ১৭৫টি বিদুৎ খুটি উপরে পড়েছে।

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT