জগদ্বীশ সারস্বত বিদ্যালয়ের পরিচালনা পর্ষদের সভাপতিসহ ১৫ জনের বিরুদ্ধে মামলা জগদ্বীশ সারস্বত বিদ্যালয়ের পরিচালনা পর্ষদের সভাপতিসহ ১৫ জনের বিরুদ্ধে মামলা - ajkerparibartan.com
জগদ্বীশ সারস্বত বিদ্যালয়ের পরিচালনা পর্ষদের সভাপতিসহ ১৫ জনের বিরুদ্ধে মামলা

6:31 pm , May 7, 2018

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ এসএসসির ফলাফল বিপর্যয়, অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগে জগদ্বীশ সারস্বত বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি নিজামুল ইসলাম নিজামসহ ১৫ জনের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে। গতকাল সোমবার বিদ্যালয়ের গনিত শিক্ষক জাহাঙ্গীর হোসেন বাদী হয়ে সদর সিনিয়র সহকারী জজ আদালতে মামলাটি দায়ের করেন। আদালতের বিচারক মো. হাদীউজ্জামান মামলাটি পরবর্তী আদেশের জন্য রেখে দেন। মামলায় অন্যান্য বিবাদীরা হলেন, জাগদীশ সারস্বত বালিকা উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও ম্যানেজিং কমিটির সম্পাদক, দাতা সদস্য বিজয় কৃষ্ণ দে, অভিভাবক সদস্য কৃষ্ণ চন্দ্র শীল, ধীরেন কর্মকার, এস. আলাল মিয়া, সাইফুল আলম, রতন দাস গুপ্ত, সালমা কবির, শিক্ষক প্রতিনিধি কাওসার হোসেন, এমদাদুল্লাহ আবদুহ, রোজিনা মমতাজ, বরিশাল শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান, কলেজ পরির্দশক ও অগ্রণী ব্যাংকের ব্যবস্থাপক। মামলা পরিচালানকারী আইনজীবী আজাদ রহমান জানান, প্রধান শিক্ষকের কারণে এবার এসএসসি পরিক্ষায় বিদ্যালয়ের ফলাফলে বিপর্যয় দেখা দিয়েছে। তার অদক্ষতার কারনে ৩৭ জন এসএসসি শিক্ষার্থী অকৃতকার্য হয়। তিনি গত বছরের অক্টোবর মাসে বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক হিসেবে যোগদান করেন। এর পর থেকে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের প্রবৃদ্ধি, বাড়িভাড়া, চিকিৎসা ভাতা ও ভবিষ্যৎ তহবিলের ২ লাখ ৯২ হাজার ৭৪৪ টাকার স্থলে ২ লাখ ৫ হাজার ২৯০ টাকা প্রদান করেন। এছাড়াও পরিচালনা পর্ষদের কোন সিদ্ধান্ত ছাড়াই নিজে অধিকহারে ২০ হাজার ৩শ টাকা গ্রহণ করাসহ বিদ্যালয়ে বিভিন্ন খাতের লাখ লাখ টাকা আত্মসাত করে। এতে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের প্রবৃদ্ধি, বাড়িভাড়া, চিকিৎসা ভাতা ও ভবিষ্যৎ তহবিলের প্রতিষ্ঠানের টাকা চাইলে গত ৬ মে অস্বীকার করে প্রধান শিক্ষক। এ ঘটনায় মামলা করা হলে বিচারক শুনানীর জন্য রাখেন।

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT