গৌরনদীতে ধর্ষণে ব্যর্থ হয়ে কলেজ ছাত্রীকে শারীরিক নির্যাতন ॥ আটক-২ গৌরনদীতে ধর্ষণে ব্যর্থ হয়ে কলেজ ছাত্রীকে শারীরিক নির্যাতন ॥ আটক-২ - ajkerparibartan.com
গৌরনদীতে ধর্ষণে ব্যর্থ হয়ে কলেজ ছাত্রীকে শারীরিক নির্যাতন ॥ আটক-২

3:21 pm , November 25, 2018

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ গৌরনদীতে কলেজ ছাত্রীকে আটকে রেখে ধর্ষণে ব্যর্থ হয়ে শারীরিক নির্যাতন করা হয়েছে। নির্যাতনের শিকার ছাত্রীকে মুমুর্ষ অবস্থায় শনিবার রাতে শেবাচিম হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। সে গৌরনদীর ডিগ্রি কলেজের ছাত্রী। এদিকে শনিবার রাতেই শেবাচিম হাসপাতাল থেকে নির্যাতনকারী যুবক শান্ত ও সহযোগী হিসেবে তার কথিত বান্ধবী সীমা ঢালীকে আটক করেছে গৌরনদী থানা পুলিশ। এর আগে একই দিন বিকেলে উপজেলার টরকী এলাকায় নির্যাতনের শিকার হয় ওই ছাত্রী।
আটক শান্ত আগৈলঝাড়া উপজেলার বাকাল ইউনিয়নের কোদালধোয়া এলাকার জীবন গুপ্তের ছেলে এবং সীমা ঢালী গোপালগঞ্জের কোটালিপাড়ার বাসিন্দা। তবে সে গৌরনদীর টরকিতে বাস করে।
নির্যাতনের শিকার কলেজ ছাত্রী জানান, শান্ত শনিবার বিকেলে কৌশলে তাকে গৌরনদীর টরকিতে তার কথিত বান্ধবী সীমার বাসায় নিয়ে যায়। সেখানে কলেজ ছাত্রীকে ধর্ষণের চেষ্টা করে শান্ত। এতে ব্যর্থ হয়ে কলেজ ছাত্রীকে মারধর ও গাল সহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে কামড়ে রক্তাক্ত জখম করে। এসময় স্থানীয়রা বিষয়টি টের পেয়ে গৌরনদী থানা পুলিশকে অবহিত করে। পুলিশ ঘটনাস্থলে গেলেও কলেজ ছাত্রী মুখে গুরুতর জখমের কারনে কথা বলতে না পারার সুযোগে একটি চক্র ঘটনাটি ধামাচাঁপা দেয়ার চেষ্টা করে। তারা পুলিশকে মিথ্যা তথ্য দিয়ে কলেজ ছাত্রীকে আশোকাঠী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করান। তবে এ হাসপাতালে ভর্তির পরে মুল ঘটনা বেরিয়ে আসে। হাসপাতাল থেকে গৌরনদী থানা পুলিশকে খবর দেয়া হলে তারা এসে নির্যাতনকারী শান্ত ও তার সহযোগি সীমাকে আটক করে। হাসপাতালের মহিলা সার্জারী বিভাগের সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, ছাত্রীকে হাসপাতালে নিয়ে আসা গৌরনদীর বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক চিন্ময় পান্ডে নির্যাতনকারী যুবক শান্ত ও তার কথিত বান্ধবী সীমা এবং সীমার ভাই মিলে ঘটনাটি ভিন্ন খাতে প্রভাহিত করতে চেষ্টা করেছে। তারাই ওই ছাত্রীকে হাসপাতালে নিয়ে এসেছিলো। গৌরনদীর দেয়া ছাড়পত্রে সেক্সুয়াল এ্যাসল্ট লেখা ছিলো। কিন্তু শেবাচিম হাসপাতালে ভর্তি’র সময় তথ্য গোপন করে ফিজিক্যাল এ্যাসল্টের কথা উল্লেখ করেছে। তবে হাসপাতালের মহিলা সার্জারী ইউনিট-১ এর চিকিৎসকরা ছাত্রীর চিকিৎসা দিতে গিয়ে মুল তথ্য বেরিয়ে আসে। চিকিৎসকরা দেখতে পান ছাত্রীর বামপাশের গালে কামড়ের দাগ। সেখান থেকে রক্ত বেরুচ্ছে। এমনকি তখন কলেজ ছাত্রী নিয়েই ঘটনা খুলে বলেন। অবশ্য ছাত্রীকে শারীরিক ও পাশবিক নির্যাতনের ঘটনাটি ধাঁমা চাপা দেয়ার চেষ্টার অভিযোগ সত্য নয় দাবী করে শিক্ষক চিন্ময় পান্ডে বলেন, স্থানীয় মেম্বার আমাকে দিয়ে কলেজ ছাত্রীকে চিকিৎসার জন্য বরিশালে পাঠিয়েছেন। সে কিভাবে আহত হয়েছেন তা আমি নিজেই জানি না। গৌরনদী থানার ওসি গোলাম সরোয়ার বলেন, খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে যায়। তখন শান্ত ও কলেজ ছাত্রী স্বামী-স্ত্রী এবং তাদের নিজেদের মধ্যে একটু ঝামেলা হয়েছে বলে পুলিশকে জানায়। এজন্য ওই ছাত্রীকে চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে পাঠানো হয়।
তবে রাতে প্রকৃত ঘটনা যখন জানতে পেরেছি তখন বরিশাল মেডিকেলে গিয়ে নির্যাতনকারী যুবক শান্ত ও তার কথিত বান্ধবী সীমাকে আটক করা হয়। তাছাড়া ঘটনার সাথে শিক্ষক চিন্ময় পান্ডেকেও জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় নিয়ে আসা হয়েছে। এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে বলেও জানিয়েছেন ওসি।

এই বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০৩১  
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT