সদর রোডে ডিবির হাতে রোগী ধরা ২ দালাল আটক ॥ বাকিরা পলাতক সদর রোডে ডিবির হাতে রোগী ধরা ২ দালাল আটক ॥ বাকিরা পলাতক - ajkerparibartan.com
সদর রোডে ডিবির হাতে রোগী ধরা ২ দালাল আটক ॥ বাকিরা পলাতক

6:13 pm , September 20, 2018

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ নগরীর সদর রোডের রোগীর দালালের আখড়ায় হানা দিয়েছে মহানগর গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশ। তবে তেমন একটা সুবিধা করতে পারেনি তারা। দু’জনকে আটক করতে পারলেও বাকিরা সবাই পালিয়ে গেছে। গতকাল বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে ডিবি পুলিশের সহকারী কমিশনার নাসির উদ্দিন মল্লিক’র নেতৃত্বে এসআই ফিরোজ আলম’র দল এই অভিযান পরিচালনা করে। অভিযানে আটক দুই দালাল হলো বাদল ও শাহ আলম। অভিযোগ অভিযানের বিষয়টি আগেভাগেই জানতে পেরে আত্মগোপনে যায় দালাল সিন্ডিকেটের অন্যান্য সদস্যরা।
খোঁজ নিয়ে জানাগেছে, নগরীর সদর রোডস্থ বিবির পুকুরের পশ্চিম পাড় ডাক্তার পাড়া হিসেবে পরিচিত। এখানে নামি-দামী চিকিৎসকদের ব্যক্তিগত চেম্বার। সেই সুবাদে প্রতিদিন দক্ষিণাঞ্চলের বিভিন্ন জেলা উপজেলা থেকে প্রতিদিন হাজার হাজার রোগী আসছে চিকিৎসা নিতে। এসেই পড়ে যাচ্ছে দালালদের খপ্পড়ে। বাটার গলি সহ আশপাশের গলির মুখে অবস্থান নিয়ে থাকা দালালরা কৌশলে ফাঁদে ফেলছে রোগীদের। নির্দিষ্ট কোন হাতুড়ে কিংবা নামসর্বস্ব চিকিৎসকদের কাছে ধরে নিয়ে যাচ্ছে তারা। বিনিময়ে চিকিৎসক এর ভিজিট এবং পরীক্ষা নিরীক্ষা থেকে পাচ্ছে মোটা অংকের পার্সেন্টেজ। কিন্তু নাম সর্বস্য চিকিৎসকের দেয়া চিকিৎসা আসছে না রোগীদের কোন উপকারে। বরং অর্থের দন্ডি এমনকি ঘটছে ওষুধের রিয়াকশন।
স্থানীয়রা জানায়, সদর রোডে বিবির পুকুর পাড় এলাকার চিকিৎসক পাড়া দখল নিয়ে থাকে প্রায় অর্ধশত দালাল। সদর রোডেই নয়, লঞ্চঘাট, বাস টার্মিনাল এলাকাতেও তাদের অবস্থান। রিক্সা চালক, অটো চালক বেশে দালাল চক্র ফাঁদ পেতে থাকে রোগী ধরার আশায়। তবে ভ্রাম্যমান দালালের সংখ্যাই বেশি। যার মধ্যে সদর রোড এলাকায় স্বপন, রমজান, মাসুম, সুমন, বাদল, রিক্সা চালক শাহ আলম, শুক্কুর, মাসুম, সাদ্দাম, মিজান, রিক্সা চালক নগা অন্যতম। প্রায় সময় এদের মধ্যে অনেকেই আটক হচ্ছে পুলিশ কিংবা ডিবি’র হাতে। কিন্তু দুর্বল আইনের ফাঁক ফোকড় দিয়ে আবার বেরিয়ে আসছে দালাল সদস্যরা। রোগী ধরতে পুনরায় তৈরী করছে নতুন ফাঁদ।
স্থানীয়রা জানায়, দালালরা এতটাই চতুর যে মুহুর্তের মধ্যেই রোগীরা তাদের পাতা জালে আটকে যাচ্ছে। রোগীদের ফাঁদে ফেলতে কখনো কখনো কথার ছলে খ্যাতনামা চিকিৎসকদের মেরেও ফেলছে। পাঠিয়ে দিচ্ছে দেশের বাইরেও। দালালদের সাজানো গোছানো মিথ্যাচারগুলো খুব সহজেই মেনে নিতে হচ্ছে রোগীদের। শুধু তাই নয়, দালাল চক্র এতোটাই চতুর যে তারা প্রশাসনের চোখেও ধুলা দিচ্ছে খুব সহজে। কেননা প্রশাসন মাঝে মধ্যে ওই এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে। কিন্তু হাতে গোনা দু’চারজন আটক হলেও বাকিরা থেকে যাচ্ছে ধরা ছোয়ার বাইরে। অবশ্য অভিযোগ রয়েছে থানা এবং ডিবি পুলিশের কতিপয় অসাধু সদস্য দালালদের কাছ থেকে মাসোয়ারা পাচ্ছে। যে কারনে অভিযানের আগেই দালালরা টের পেয়ে যাচ্ছে। চলে যাচ্ছে আত্মগোপনে। ঠিক তেমনটাই ঘটেছে গতকাল বৃহস্পতিবার। ডিবির অভিযান টের পেয়েই সটকে পড়ে দালাল চক্র।
মহানগর গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশের সিনিয়র সহকারী কমিশনার মো. নাসির উদ্দিন মল্লিক বলেন, গতকাল বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে আমাদের কয়েকটি টিম এক যোগে সদর রোড এলাকায় অভিযানে নামে। এসময় এসআই ফিরোজ আলম এর টিম দুই দালালকে আটক করে। এরা হলো বাদল ও শাহ আলম। তাদেরকে কোতয়ালী থানায় সোপর্দ করা হয়েছে। তবে একাধিক টিম নামলেও বাকিরা কাউকে ধরতে পারেনি। ডিবির উপস্থিতি টের পেয়ে তারা পালিয়ে গেছে। তবে ডিবি পুলিশের অভিযান এবং দালালদের বিষয়ে নজরদারী অব্যাহত থাকবে বলে জানান তিনি।

এই বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০  
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT