বিসিসি’র ৪০ কাউন্সিলর পদের প্রার্থী হয়েছেন যারা বিসিসি’র ৪০ কাউন্সিলর পদের প্রার্থী হয়েছেন যারা - ajkerparibartan.com
বিসিসি’র ৪০ কাউন্সিলর পদের প্রার্থী হয়েছেন যারা

6:44 pm , June 30, 2018

রুবেল খান ॥ বরিশাল সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে ৩০টি সাধারণ ও ১০টি সংরক্ষিত ওয়ার্ডে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন ১৫২ জন। এর মধ্যে মোট ৩৮টি ওয়ার্ডে আওয়ামী লীগ সমর্থীত কাউন্সিলর প্রার্থী রয়েছেন। ওই ৩৮টি ওয়ার্ডের অধিকাংশ ওয়ার্ডেই আবার রয়েছে তাদের বিদ্রোহী প্রার্থী। তবে এবারের নির্বাচনে সরাসরি বিএনপি’র সমর্থিত প্রার্থী না থাকলেও অনেক ওয়ার্ডেই বিএনপি পন্থি নেতারা কাউন্সিলর পদে নির্বাচন করছেন। যাদের মধ্যে রয়েছেন বর্তমান কাউন্সিলরও। অবশ্য ওয়ার্ড পর্যায়ে বিএনপি’র প্রার্থী সংকটের কারনে অনেক ওয়ার্ডে আওয়ামী লীগের প্রার্থীদের মধ্যেই লড়াই হবে। আবার কিছু কিছু ওয়ার্ডে বিএনপি’র বিদ্রোহী প্রার্থীও রয়েছে। আবার সাধারণ সহ ৪০টি ওয়ার্ডে এ পর্যন্ত যারা মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন তার মধ্যে একটি মাত্র ওয়ার্ডে জামায়াত পন্থি নেতা আওয়ামী লীগ সমর্থীত ও বিদ্রোহী প্রার্থীর সাথে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।
তাছাড়া বিএনপি’র অধিকাংশ কাউন্সিলর প্রার্থীই তাদের সাপর্টিং হিসেবে ডামি প্রার্থী রেখেছেন। কেউ তাদের স্ত্রী, ভাই আবার সন্তানদের নামেও মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। বিএনপি পন্থি কাউন্সিলর প্রার্থীরা যাচাই বাছাইতে বাতিল হলে সাপর্টিং প্রার্থী হিসেবে থাকা ব্যক্তিরাই প্রতিদ্বন্দ্বিতায় অংশ নিবেন। আবার বাদ না পড়লে প্রার্থীতা প্রত্যাহার করবেন ডামি প্রার্থীরা। এমন তথ্যই জানিয়েছেন বিএনপি’র প্রার্থীরা।
বরিশাল আঞ্চলিক নির্বাচন কমিশন কার্যালয় সূত্রে জানাগেছে, বিসিসি’র ১নং ওয়ার্ডে মোট তিনজন সম্ভাব্য প্রার্থী মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। এর মধ্যে আওয়ামী লীগের একক প্রার্থী মো. আউয়াল মোল্লা। আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন আমির হোসেন বিশ্বাস। আর বিএনপি থেকে একমাত্র প্রার্থী হয়েছেন বিএনপি’র যুগ্ম মহাসচিব’র শ্যালক ও বর্তমান কাউন্সিলর সৈয়দ সাইদুল হাসান মামুন।
২নং ওয়ার্ডে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন চার জন। এরা হলেন জাতীয় পার্টির মহানগর কমিটির সভাপতি ও বর্তমান কাউন্সিলর এ্যাড. একেএম মুরতজা আবেদীন। ডামি প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন তার স্ত্রী নাছিমা। আওয়ামী লীগের প্রার্থী মো. আমান উল্লাহ্ এবং অপর প্রার্থীর নাম এসএম মাওয়ারদী।
৩নং ওয়ার্ডে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন ৮ জন। এরা হলেন- শামিম খান, মো. মাহবুবুল আলম খান, সাবেক কমিশনার জাহাঙ্গীর মৃধার স্ত্রী হালিমা বেগম, বর্তমান কাউন্সিলর ও বিএনপি নেতা আলহাজ্ব সৈয়দ হাবিবুর রহমান ফারুক, আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী মুহা. কামরুজ্জামান জুয়েল রানা, আওয়ামী লীগ মনোনিত প্রার্থী মো. মজিবর রহমান মৃধা, অপর দুজন হলেন শহিদুল ইসলাম হাওলাদার ও মো. শাহজাহান সিরাজ।
৪নং ওয়ার্ডে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন ৬ জন। এরা হলেন মো. ইলিয়াস তালুকদার, মো. এমরান হোসেন শরীফ, বর্তমান কাউন্সিলর ও বিএনপি নেতা মো. ইউনুছ মিয়া, তার ভাই হারুন অর রশিদ, এসএম কাওছার হোসেন ও আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী তৌহিদুল ইসলাম বাদশা।
৫নং ওয়ার্ডে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন ৭ জন। এরা হলেন- মো. জাহিদুল ইসলাম সবুজ, আওয়ামী লীগ সমর্থীত শেখ আনোয়ার হোসেন ছালেক, আ’লীগের বিদ্রোহী মো. আলম বিশ্বাস, বিএনপি’র প্রার্থী ও বর্তমান কাউন্সিলর মো. মাইনুল হক, স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. কেফায়েত হোসেন রনি, জিয়াউল হক চিশতি নাদির।
৬নং ওয়ার্ডে মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন ৫ জন। এরা হলেন- মো. আতাউল গনি, তার ছেলে ডামী প্রার্থী মো. রফিকুল ইসলাম, খান মোহাম্মদ জামাল হোসেন, বর্তমান কাউন্সিলর ও বিএনপি নেতা এমডি হাবিবুর রহমান টিপু ও আকতার উজ্জামান।
৭নং ওয়ার্ডে মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন ৩ জন। এরা হলেন- শেখ মো. আলম, বিএনপি’র প্রার্থী ও বর্তমান কাউন্সিলর সৈয়দ আকবর ও আওয়ামী লীগ সমর্থীত কাউন্সিলর প্রার্থী এ্যাড. মো. রফিকুল ইসলাম খোকন (মামা খোকন)।
৮নং ওয়ার্ডে মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন ৩ জন। এরা হলেন- আওয়ামী লীগ সমর্থীত প্রার্থী সুরঞ্জিত দত্ত লিটু, বর্তমান কাউন্সিলর ও বিএনপি পন্থি মো. সেলিম হাওলাদার এবং বিএনপি প্রার্থী মো. আল আমিন।
৯নং ওয়ার্ডে মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন ৪ জন। এরা হলেন সাবেক কাউন্সিলর ও বিএনপি নেতা সৈয়দ জামাল হোসেন নোমান, বর্তমান কাউন্সিলর বিএনপি পন্থি মো. হারুন অর রসিদ, আওয়ামী লীগ সমর্থীত এএসএম মোস্তাফিজুর রহমান মাসুম ও মো. শামীম রহমান।
১০নং ওয়ার্ডে মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন মাত্র দু’জন। এখানে বিএনপি’র প্রার্থী নেই। তবে দু’জনই আওয়ামী লীগ নেতা। এরা হলেন আওয়ামী লীগের বর্তমান কাউন্সিলর ও আওয়ামী লীগ সমর্থীত জয়নাল আবেদিন হাওলাদার এবং বিদ্রোহী প্রার্থী সাবেক কাউন্সিলর এটিএম শহিদুল্লাহ কবির।
১১নং ওয়ার্ডে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন ৩ জন। মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ দিন মাত্র এক ঘন্টা আগেও ওয়ার্ডটিতে একজন মাত্র প্রার্থী ছিলেন আওয়ামী লীগ সমর্থীত কাউন্সিলর প্রার্থী ও বর্তমান কাউন্সিলর মো. মজিবর রহমান। কিন্তু মনোনয়ন দাখিলের শেষ মুহুর্তে আরো দু’জন তাদের মনোনয়নপত্র জমা দেন। এরা হলেন- মো. রাজা ও মারুফ আহমেদ। এরা দু’জনই বিএনপি অনুসারী বলে জানাগেছে।
১২নং ওয়ার্ডে দু’জন মাত্র প্রার্থী মনোনয়ন দাখিল করেছেন। এরা হলেন বিসিসি’র প্যানেল মেয়র-১ ও বর্তমান কাউন্সিলর এবং সাবেক ভারপ্রাপ্ত মেয়র আলহাজ্ব কেএম শহীদুল্লাহ এবং আওয়ামী লীগ সমর্থীত প্রার্থী মো. জাকির হোসেন ভুলু। ২০১৩ সালের নির্বাচনেও এ দু’জন প্রার্থীই প্রতিদ্বন্দ্বীতা করেছিলেন।
১৩নং ওয়ার্ডে মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন ৪ জন। এরা হলেন আওয়ামী লীগ সমর্থীত প্রার্থী ও বর্তমান কাউন্সিলর মেহেদী পারভেজ খান আবির, বিএনপি’র প্রার্থী মো, মতিউর রহমান, আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী মো. রেজাউল মোর্শেদ খান ও সাবেক মেয়র শওকত হোসেন হিরন’র ভাই মারুফ খান।
১৪নং ওয়ার্ডে আওয়ামী লীগ সমর্থীত ও দলের বিদ্রোহী প্রার্থীর সাথে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন জামায়াত নেতা ও বর্তমান কাউন্সিলর এ্যাড. সালাউদ্দিন মাসুম। অপর দুই প্রার্থী হলেন আওয়ামী লীগ সমর্থীত প্রার্থী তৌহিদুর রহমান ছাবিদ ও বিদ্রোহী প্রার্থী মো. শাকিল হোসেন পালাশ।
১৫নং ওয়ার্ডে প্রতিদ্বন্দ্বীতার জন্য মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন ৩ জন। এরা হলেন বর্তমান কাউন্সিলর ও বিএনপি নেতা সৈয়দ জাকির হোসেন জেলাল, আওয়ামী লীগ সমর্থীত প্রার্থী লিয়াকত হোসেন খান এবং তার বিদ্রোহী হিসেবে মাঠে রয়েছেন মো. মাকছুদ আলম মাসুদ।
১৬নং ওয়ার্ডে মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন ৩ জন। এরা হলেন বর্তমান কাউন্সিলর ও বিসিসি’র প্যানেল মেয়র-২ আওয়ামী লীগ সমর্থীত প্রার্থী মোশারেফ আলী খান বাদশা, রুবিনা আক্তার ও বিএনপি’র প্রার্থী কামরুল হাসান রতন।
১৭ নং ওয়ার্ডে মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন মাত্র ২ জন। এরা হলেন আওয়ামী লীগ সমর্থীত প্রার্থী ও বর্তমান কাউন্সিলর আকতার উজ্জামান গাজী হিরু ও বিএনপি’র প্রার্থী মো. আনোয়ার হোসেন।
১৮নং ওয়ার্ডে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন-৪ জন। এর মধ্যে একজন ডামি প্রার্থী। তিনি হলেন বর্তমান কাউন্সিলরের স্ত্রী শাহানা বেগম। মনোনয়নপত্র দাখিল করা অন্যান্যরা হলেন- বর্তমান কাউন্সিলর ও বিএনপি নেতা মীর একেএম জাহিদুল কবির, আওয়ামী লীগ সমর্থীত প্রার্থী মো. কামরুজ্জামান সোনা ও বিএনপি’র বিদ্রোহী প্রার্থী মনিরুল ইসলাম।
১৯নং ওয়ার্ডে মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন ৩ জন। এই ওয়ার্ডেও মনোনয়ন দাখিলের শেষ ঘন্টাখানেক পূর্বে প্রার্থী হিসেবে ছিলেন বর্তমান কাউন্সিলর ও আওয়ামী লীগ সমর্থীত প্রার্থী গাজী নঈমুল হোসেন লিটু। কিন্তু শেষ মুহুর্তে চমক সৃষ্টি করেন দুই প্রার্থী। সুমন হাওলাদার আশিষ ও জাতীয় পার্টির প্রার্থী মো. হানিফ চৌধুরী।
২০নং ওয়ার্ডটিতে মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন ৩ জন। এরা সাবাই আওয়ামী লীগ পন্থি। কিন্তু জনসমর্থনের দিক থেকে তিনজনই এগিয়ে থাকায় কাউকেই সমর্থন দেয়নি আওয়ামী লীগ। নির্বাচনের জন্য উম্মুক্ত রাখা হয়েছে ওয়ার্ডটি। সে হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে চলা তিন প্রার্থী হলেন বর্তমান কাউন্সিলর এসএম জাকির হোসেন, জিয়াউর রহমান বিপ্লব ও মো. সাইদুর রহমান ছগির।
২১নং ওয়ার্ডে মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন ৪ জন। এরা হলেন বিসিসি’র সাবেক দায়িত্বপ্রাপ্ত মেয়র ও বর্তমান কাউন্সিলর এবং মহানগর বিএনপি’র সাংগঠনিক সম্পাদক আলহাজ্ব আলতাফ মাহমুদ সিকদার, আওয়ামী লীগ সমর্থীত প্রার্থী শেখ সাঈদ আহমেদ মান্না, মু. শাহরিয়ার সাচিব ও মো. তারিকুল ইসলাম।
২২নং ওয়ার্ডে প্রতিদ্বন্দ্বিতার জন্য মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন ৩ জন। এরা হলেন- আওয়ামী লীগ সমর্থীত আনিছুর রহমান দুলাল, সাবেক কাউন্সিলর আ.ন.ম সাইফুল আহসান আজিম ও তানভীর হোসেন রানা।
২৩নং ওয়ার্ডে মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন ৪ জন। এরা হলেন বর্তমান কাউন্সিলর এনামুল হক বাহার, এমরান চৌধুরী জামাল, মো. মিজানুর রহমান ও মো. শামীম। এই ওয়ার্ডেও আওয়ামী লীগ দলীয় প্রার্থী সমর্থন করেনি।
২৪নং ওয়ার্ডে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন ৫ জন। এরা হলেন- আওয়ামী লীগ সমর্থীত শরীফ মো. আনিছুর রহমান ওরফে আনিছ শরীফ, বিএনপি’র প্রার্থী ও বর্তমান কাউন্সিলর মো. ফিরোজ আহমেদ, জাহাঙ্গীর মোল্লা, মো. জাকির হোসেন ও মো. আবদুল বারেক হাওলাদার।
২৫নং ওয়ার্ডে মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন ৫ জন। এরা হলেন বর্তমান কাউন্সিলর ও মহানগর বিএনপি’র ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক জিয়াউদ্দিন সিকদার জিয়া, সাবেক কাউন্সিলর ও আ’লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী সুলতান মাহমুদ, আওয়ামী লীগ সমর্থীত প্রার্থী এম. সাইদুর রহমান জাকির মোল্লা, মো. আবু হানিফ ও মো. ফজলুর রহমান হাওলাদার।
২৬নং ওয়ার্ডে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন ৩ জন। এরা হলেন বর্তমান বিএনপি পন্থি কাউন্সিলর মো. ফরিদ উদ্দিন হাওলাদার, আওয়ামী লীগ সমর্থীত প্রার্থী মো. হুমায়ুন কবির ও মোহাম্মদ হাসান ইমাম।
২৭নং ওয়ার্ড থেকে মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন ৫ জন। এরা হলেন বর্তমান কাউন্সিলর মো. নূরুল ইসলাম, মো. গিয়াস উদ্দিন বাবুল মোল্লা, মো. মনিরুজ্জামান তালুকদার, মো. আলতাফ হোসেন সিকদার হারুন ও আওয়ামী লীগ সমর্থীত মো. আবদুর রশিদ হাওলাদার।
২৮নং ওয়ার্ড থেকে মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন ৩ জন। এরা হলেন আওয়ামী লীগ সমর্থীত প্রার্থী ও বরিশাল জেলা শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি মো. জাহাঙ্গীর হোসেন, মো. জাহিদ হোসেন ও মো. হুমায়ুন কবির।
২৯নং ওয়ার্ড থেকে মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন ৩ জন। এরা হলেন বর্তমান কাউন্সিলর কাজী মনিরুল ইসলাম, মো. ফরিদ আহমেদ ও মো. মনিরুজ্জামান খান।
৩০নং ওয়ার্ড থেকে মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন ৩ জন। এরা হলেন বর্তমান কাউন্সিলর ও বিএনপি নেতা খায়রুল মামুন, আওয়ামী লীগ সমর্থীত প্রার্থী আজাদ হোসেন মোল্লা কালাম ওরফে কালাম মোল্লা এবং সাবেক কাউন্সিলর মো. নিয়াজ মাহমুদ বেগ।
এছাড়া ১০টি সংরক্ষিত ওয়ার্ডে মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন সম্ভাব্য ৩৮ জন প্রার্থী। এর মধ্যে সংরক্ষিত ১নং ওয়ার্ডে মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন ৪ জন। এরা হলেন বর্তমান কাউন্সিলর ও প্যানেল মেয়র-৩ শরীফ তাসলিমা কালাম পলি, আঞ্জুমান আরা সাথি, সাবেক কাউন্সিলর মিনু রহমান ও নুরুন্নাহার বেগম পুষ্প।
সংরক্ষিত ২নং ওয়ার্ডের প্রতিদ্বন্দ্বিতার জন্য মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন ৬ জন। এরা হলেন- ফাতেমা রহমান, জাহান আরা বেগম, আলমতাজ বেগম, জ্যোৎনা রানী বনিক সুমা, কানন বেগম ও জোছনা বেগম।
সংরক্ষিত ৩নং ওয়ার্ডে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন মাত্র দু’জন। এর মধ্যে একজন আওয়ামী লীগ সমর্থীত প্রার্থী ও বর্তমান কাউন্সিলর কহিনুর বেগম ও অপর জন জোহরা।
সংরক্ষিত ৪নং ওয়ার্ডে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন ৩ জন। এরা হলেন সাবেক কাউন্সিলর ও সাবেক প্যানেল মেয়র আয়শা তৌহিদ লুনা, বর্তমান কাউন্সিলর ও আওয়ামী লীগ সমর্থীত প্রার্থী মাকসুদা আক্তার মিতু এবং তাসমিয়া আহম্মেদ।
সংরক্ষিত ৫নং ওয়ার্ডে মনোনয়পত্র দাখিল করেছেন ৪ জন। এরা হলেন আরাত জাহান, আ’লীগ সমর্থীত প্রার্থী মোসা. কামরুন্নাহার রোজী, সাহিনা পারভীন ও হোসনেয়ারা বেগম।
সংরক্ষিত ৬নং ওয়ার্ডে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন ৯ জন। এরা হলেন নাসিমা হান্নান, মারিয়া ইসলাম মুন্নি, বর্তমান কাউন্সিলর ইশরাত আমান রুপা’র মা মোর্শেদা বেগম কাজল, সালমা আক্তার, বেবী জেসমীন, মজিদা বোরহান, বেলী রানী সাহা, হোসনে আরা বেগম ও আওয়ামী লীগ সমর্থীত প্রার্থী গায়েত্রী সরকার।
সংরক্ষিত ৭নং ওয়ার্ডে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন মাত্র ২ জন। এরা হলেন- আওয়ামী লীগ সমর্থীত সালমা আক্তার শিলা ও রোকসানা বেগম।
সংরক্ষিত ৮নং ওয়ার্ডে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন ৩ জন। এরা হলেন- বর্তমান কাউন্সিলর রেশমী বেগম। পারুল আক্তার ও সাবিনা ইয়াসমিন।
সংরক্ষিত ৯নং ওয়ার্ডে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন ৩ জন। এরা হলেন- ডালিম বেগম, বর্তমান কাউন্সিলর সেলিনা বেগম ও মোসাঃ আয়শা বেগম।
এছাড়া সংরক্ষিত ১০নং ওয়ার্ডে প্রতিদ্বন্দ্বিতার জন্য মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন মাত্র দু’জন প্রার্থী। এরা হলেন- মোসাঃ রোজী বেগম ও রাশিদা পারভীন।

এই বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০৩১  
মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন    
সম্পাদক ও প্রকাশক: কাজী মিরাজ মাহমুদ
 
বার্তা ও বানিজ্যিক কার্যালয়ঃ কুশলা হাউজ, ১৩৮ বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সড়ক,
সদর রোড (শহীদ মিনারের বিপরীতে), বরিশাল-৮২০০।
© প্রকাশক কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Developed by NEXTZEN-IT