বাস মালিক ও মাহেন্দ্রা মালিক সমিতির বিরোধের অবসান
নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ মহাসড়কে থ্রি হুইলার যানবাহন চলাচলের বিষয়ে বরিশালের বাস মালিক সমিতি এবং টেম্পো ও ইজিবাইক (গ্যাসচালিত) মালিক সমিতির মধ্যকার দীর্ঘ দিনের বিরোধ নিস্পত্তি হয়েছে। গতকাল সোমবার মেট্রোপলিটন পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার মো. সায়েদুর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় এ সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। উপ-কমিশনার (ট্রাফিক) কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত সভায় উপস্থিত ছিলেন উপ-পুলিশ কমিশনার (দক্ষিণ) আব্দুর রউফ খান, এসি (ট্রাফিক) আসাদুজ্জামান, টিআই মো. শামসুল আলম, জেলা বাস মালিক গ্রুপের সভাপতি আফতাব হোসেন, বরিশাল-পটুয়াখালী মিনি বাস মালিক সমিতির সভাপতি আজিজুর রহমান শাহীন, সাধারণ সম্পাদক কাওসার হোসেন শিপন, মাহিন্দ্রা মালিক সমিতির সভাপতি জিয়াউর রহমান বিপ্লব, সাধারণ সম্পাদক শাহরিয়ার বাবু, মিলন ভূঁইয়া, গ্যাস চালিত ইজিবাইক মালিক সমিতির সভাপতি কাজী মিরাজ, সাধারণ সম্পাদক তাওহীদ রানা প্রমুখ।
সভায় সিদ্ধান্ত গৃহীত হয় যে, মেট্রোপলিটন পুলিশের ৪ থানার আওতাধীন মহাসড়কে টেম্পো ও ইজিবাইক চলাচলে বাস মালিক সমিতি বাঁধা দিতে পারবে না।
মেট্রোপলিটন পুলিশের উপ-কমিশনার (ট্রাফিক) আবু রায়হান মো. সালেহ বলেন, মেট্রোপলিটন এলাকায় যানবাহন চলাচলের রুট পারমিট দেয় মেট্রোপলিটন পুলিশ। সে হিসেবে বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশের অনুমোদিত যানবাহন ৪ থানার আওতাধীন যে কোন সড়ক-মহাসড়কে চলাচলের বৈধতা রয়েছে। গতকালের সভায় সিদ্ধান্ত হয়েছে, এখন থেকে শহীদ আব্দুর রব সেরনিয়াবাত সেতু (দপদপিয়া ও খয়রাবাদ সেতু) এবং বীরশ্রেষ্ঠ মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সেতু (দোয়ারিকা) পয়েন্টে টেম্পো ও অটোরিক্সা চলাচলে বাস মালিকরা বাঁধা দিতে পারবেন না। এর ফলে পূর্বে লাহারহাট ফেরীঘাট, পশ্চিমে উজিরপুরের গুঠিয়া সেতু এবং উত্তরে বীরশ্রেষ্ঠ মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সেতু (দোয়ারিকা ) পর্যন্ত টেম্পো ও ইজিবাইক চলাচল করতে পারবে।
মহাসড়কে থ্রি-হুইলার যানবাহন চলাচলে হাইকোর্টের নিষেধাজ্ঞা রয়েছে এমন অজুহাতে বরিশাল সিটি করপোরেশন এলাকার মহাসড়কে টেম্পো ও ইজিবাইক চলাচলে বাঁধা দিয়ে আসছিল বাস মালিক সমিতি। তবে মালিক সমিতির নেতৃবৃন্দ সহ সকল মালিকরা আগামী ঈদ-উল-আজহা এবং পরবর্তী কয়েকদিন যাত্রীসেবায় সর্বচ্চ ত্যাগ করবে বলে অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার সায়েদুর রহমানের কাছে অঙ্গীকার ব্যক্ত করেন।