হিজলায় গনপিটুনিতে ডাকাত নিহত

নিজস্ব প্রতিবেদক॥ আন্তঃজেলা ডাকাত দলের ইউসুফ বাহিনীর প্রধান ডাকাত সরদার ইউসুফ অবশেষে গন পিটুনিতে নিহত হয়েছে। গতকাল শনিবার রাতে ডাকাতীর প্রস্তুতি কালে স্থানীয় জনতা তাকে গনধোলাই দিলে ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয় তার। খবর পেয়ে হিজলা থানা পুলিশ ডাকাত সরদার ইউসুব এর লাশ উদ্ধার করে।
নিহত ডাকাত সরদার ইউসুফ হিজলা উপজেলার খুন্না গবিন্দপুর গ্রামের বাসিন্দা। তার বিরুদ্ধে হিজলা সহ বিভিন্ন থানায় ডাকাতির ঘটনায় একাধিক মামলা ও অভিযোগ রয়েছে। তবে তাৎক্ষনিক ভাবে মামলা এবং অভিযোগের সংখ্যা জানাতে পারেননি হিজলা থানা পুলিশ।
থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সরোয়ার হোসেন প্রত্যক্ষদর্শীদের বরাত দিয়ে জানান, হিজলার চিহ্নিত ডাকাত দলের সরদার ইউসুফ তার দলের সেকেন্ড ইন কমান্ড মামুন সহ তিনজন মিলে ডাকাতীর প্রস্তুতি নিচ্ছিল। পরে ইউসুফ ও মামুন সহ তাদের ডাকাত দল একটি ট্রলারে হিজলার একতা বাজার খেয়া ঘাটে অবস্থান নেয়। পরবর্তীতে ইউসুফ’র নেতৃত্বাধিন ডাকাত দল হিজলা উপজেলার গৌরব্দী ইউনিয়নের একতা নামক এলাকায় পৌছায়। এসময় তাদের গতিবিধি স্থানীয়দের কাছে সন্দেহজনক মনে হয়। তারা ডাকাতির উদ্দেশ্যে ঐ এলাকায় ডাকাত দল প্রবেশ করেছে এমনটি আচ করতে পেরে মাইকের মাধ্যমে বিষয়টি গ্রাম বাসীর মাঝে প্রচার করে দেয়। তখন হাজার হাজার গ্রামবাসী চার দিক থেকে ডাকাতদের ঘেরাও করে ফেলে। এক পর্যায় ডাকাত দল আত্ম রক্ষায় দৌড়ে পালিয়ে নদীতে ঝাপ দেয়। ডাকাত দলটির সেকেন্ড ইন কমান্ড মামুন সহ দলের অন্যান্য সদস্যরা পালিয়ে যেতে সক্ষম হলেও স্থানীয়দের কাছে ধরা পড়ে ডাকাত সরদার ইউসুফ। এসময় জনতা তাকে গনপিটুনি দিলে সেখানেই তার মৃত্যু হয়।
হিজলা থানার ওসি সরোয়ার হোসেন আরো জানান, খবর পেয়ে তিনি সহ পুলিশের দল ট্রলার যোগে ঘটনাস্থলে পৌছে নিশ্চিত হয়েছেন যে গনপিটুনিতে ডাকাত সরদার ইউসুফ মারা গেছে। পরে লাশের সুরতহাল শেষে মরদেহটি উদ্ধার করেন। সেখানে একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করে আজ সকালে লাশ ময়না তদন্তের জন্য শেবাচিমের মর্গে প্রেরন করা হবে বলে ওসি নিশ্চিত করেছেন।