হাসপাতালে দালাল নির্মূলে পদক্ষেপ গ্রহন

নিজস্ব প্রতিবেদক॥ সরকারী হাসপাতাল দালাল মুক্ত রাখতে কঠোর অবস্থানে গেছে স্বাস্থ্য মন্ত্রনালয়। রোগীদের দালালদের খপ্পরের হাত থেকে রক্ষা করতে শেবাচিম হাসপাতালসহ দক্ষিণাঞ্চলের প্রতিটি সরকারী প্রতিষ্ঠানে ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য প্রজ্ঞাপন জারি করেছেন। জারিকৃত প্রজ্ঞাপন হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের নিকট পৌছেছে। স্বাস্থ্য মন্ত্রনালয়ের প্রজ্ঞাপন পেয়ে দালাল নির্মূল করতে নানামুখি পদক্ষেপ গ্রহন করেছে শেবাচিমসহ বিভিন্ন সরকারী চিকিৎসা সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠানের প্রধানরা। ইতোমধ্যে তারা এ বিষয়ে রোগীদের সতর্ককরন সাইনবোর্ড এবং মাইকিংয়ের মাধ্যমে দালাল বিরোধী প্রচারনা শুরু করেছেন। পাশাপাশি দালাল নির্মূলে মনিটরিং কমিটি গঠন প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে বলে জানিয়েছেন শেবাচিম হাসপাতালের পরিচালক ডা. মু. কামরুল হাসান সেলিম।
স্বাস্থ্য মন্ত্রনালয়ের নিজস্ব ওয়েব সাইডে দেয়া প্রজ্ঞাপনে উল্লেখ করা হয়েছে, দেশের প্রতিটি সরকারী হাসপাতালে দালালদের কারনে চিকিৎসা নিতে আসা অসহায় ও গরিব রোগীরা নিঃস্ব হচ্ছে। সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের চিকিৎসক এবং কর্মকর্তা-কর্মচারীদের নিয়ম-শৃঙ্খলা না মানার কারনে দালালরা হাসপাতালে জড়ো হয়। তারা হাসপাতালের কর্মকর্তা-কর্মচারী পরিচয় দিয়ে রোগীদের বাইরে ক্লিনিক বা চেম্বারে নিয়ে যায়। বিনিময়ে পেয়ে থাকে মোটা অংকের কমিশন। হাসপাতালের দালাল নির্ভর চিকিৎসক, কর্মকর্তা এবং কর্মচারীদের ছত্র-ছায়ায় থেকে সরকারী হাসপাতাল থেকে রোগী নেয়ার দালাল চক্র দিন দিন আরো সক্রিয় হয়ে উঠছে। অসহায় এবং গরিব রোগীদের স্বার্থে সরকারী হাসপাতালে দালাল নির্মূল করতে সকল চিকিৎসক, কর্মকর্তা এবং কর্মচারীদের দায়িত্ব পালনকালিন সময় নির্দিষ্ট পোশাকের ব্যবস্থা করার জন্য প্রজ্ঞাপনে নির্দেশ দেন স্বাস্থ্য মন্ত্রী। সেই সাথে দায়িত্ব শেষ হওয়ার পর কোন কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বিনা কারনে হাসপাতালে ঘোরা ফেরা না করার জন্যও নির্দেশ দিয়েছেন।
এছাড়া দালালদের খপ্পর থেকে অসহায় রোগীদের রক্ষায় হাসপাতালে দালাল বিরোধী শ্লোগান সহ সাইন বোর্ড এবং দেয়াল লিখনের জন্য আদেশ করেন মন্ত্রনালয়। প্রজ্ঞাপনে সার্বক্ষনিক মাইকিং ব্যবস্থা, সন্দেহজনক ব্যক্তিদের হাসপাতালের অভ্যন্তরে প্রবেশ করতে না দেয়া এবং দালালদের কঠোর হস্তে দমনে হাসপাতালে মনিটরিং টিম গঠনের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। ।
শেবাচিম হাসপাতালের পরিচালক ডা. মু. কামরুল হাসান সেলিম বলেন, প্রজ্ঞাপন জারির পূর্ব থেকে শেবাচিম দালালমুক্ত করনে কাজ করে যাচ্ছি। তারপরে মন্ত্রনালয়ের প্রজ্ঞাপন পেয়ে তা সকল চিকিৎসক এবং কর্মকর্তা-কর্মচারীদের অবহিত করেছি। দালাল বিরোধী সাইন বোর্ড প্রস্তুতির কাজ চলছে। পাশাপাশি বহিঃবিভাগ এবং ওয়ার্ডে নিয়মিত মাইকিং করে রোগীদের সতর্ক করন কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে। এর বাইরেও দালাল নির্মূলে মনিটরিং টিম গঠনের সিদ্ধান্তও নেয়া হয়েছে বলে নিশ্চিত করেন তিনি। তবে এ বিষয়ে প্রশাসনের সহযোগিতার পাশাপাশি রোগী এবং স্বাজনদের সচেতন হওয়ার জন্য আহবান জানান তিনি।