হার দুই পরিবারের জয় প্রেমের

নিজস্ব প্রতিবেদক॥ শেষ পর্যন্ত প্রেমিকার যাওয়া পথে যাত্রা করেছে বানারীপাড়ার আত্মহত্যার চেষ্টা করা প্রেমিক তরুন। শেবাচিম হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যাওয়া তরুন সজিব (২০) বানারীপাড়া উপজেলার খড়পাড়া গ্রামের আফজাল হোসেনের ছেলে। গত ২৭ জুলাই আত্মহত্যার জন্য প্রেমিক সজিব ও প্রেমিকা কিশোরী কলি আক্তার (১৫) এক সাথে গলায় ফাঁস দেয়। এতে উপজেলার উত্তরকুল গ্রামের ট্রলার চালক মো. হানিফের কন্যা কলির মৃত্যু হলেও গুরুতর অবস্থায় অচেতন হয়ে বেচেঁ থাকে সজিব।
তাকে উদ্ধার করে শেবাচিম হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। জ্ঞান ফিরে পেয়ে নিজের বেচেঁ থাকা ও আর প্রেমিকা কলির চলে যাওয়া সজিব মেনে নিতে পারেনি। তাকে সুস্থ করার কোন চেষ্ঠায় সহায়তা করেনি সে। পরিবার ও চিকিৎসকদের সকল চেষ্ঠা ব্যর্থ করে প্রেমিকা কলির চলে যাওয়া পথে পারি দিয়েছে সজিব।
জ্ঞান ফিরে পাওয়ার পর সজিব জানিয়েছিলো, ৬ বছর ধরে কলির সাথে তার প্রেম ছিলো। মান অভিমান নিয়ে তাদের মধ্যে বিরোধ হয়। অভিমান একটু বেশি করে কলি যোগাযোগ বন্ধ করে। এমনকি সম্পর্ক ছেদ করার হুমকি দেয়। তখন তাকে ছেড়ে বেচেঁ থাকা সম্ভব নয় বলে নিজেই নিজেকে শেষ করার পরিকপ্লনা করে সজিব।
সে জানায়, হাত-পা বেধে পুকুরে ঝাপ দেয় সে। এ যাত্রায় রক্ষা পেলেও বিষয়টি উভয় পরিবারের কাছে প্রকাশ হয়। তখন
সন্তানের জন্য পরিবারের সদস্যরা বিয়ের প্রস্তাব নিয়ে কলির বাড়িতে যায়। কিন্তু কলির বাবা মা রাজি হয়নি।
তাই দুজনে পৃথিবী ছেড়ে চলে যাওয়ার সিদ্বান্ত নেয়। সিদ্বান্ত ছিলো নিজ নিজ বাড়ীতে এক সময়ে গলায় ফাঁস পড়ে আত্মহত্যা করবে। সেই সিদ্বান্ত অনুযায়ী গত ২৭ জুলাই দুজনে নিজ নিজ বাড়িতে একই সময় গলায় ফাঁস দেয়।
কলির চেষ্টা সফল হয়। কিন্তু বেচেঁ থেকেও সজিবসহ তার পরিবারের বিরুদ্ধে মামলা করে কলির বাবা।