সড়কের খানা-খন্দে জমে থাকা নোংরা পানিতে যাত্রীরা নাজেহাল

নিজস্ব প্রতিবেদক॥ রাস্তায় খানা-খন্দ আর বর্ষায় জমে থাকা কাদা পানিতে নাস্তানাবুথ অবস্থায় পরিনত হয়েছে নগরীর দুটি বাস টার্মিনাল ও লঞ্চ ঘাট। যে কারনে এ তিনটি গুরুত্বপূর্ণ স্থান থেকে সাধারন মানুষের চলাচল করতে গিয়ে পড়তে হচ্ছে মহা ভোগান্তিতে। বিশেষ করে নগরীর নথুল্লাবাদ কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল এবং রূপাতলী বাস টার্মিনাল সড়কে খানা খন্দলে জমে থাকা নোংড়া পানি ছিটে নষ্ট হচ্ছে পথচারী এবং যাত্রীদের পোশাক। প্রতি ঈদ এবং কুরবানিতে দুটি বাস টার্মিনালের রাস্তা এমন বেহাল দশায় পরিনত হলেও কোন প্রকার ব্যবস্থা নিচ্ছে না সড়ক ও জনপথ বিভাগ। ফলে চরম ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন দূর দুরন্ত থেকে আসা যাত্রীরা।
নগরীর অন্যতম ব্যস্ততম জায়গা নগরীর নথুল্লাবাদ এবং রূপাতলী বাস টার্মিনাল এলাকা। এখানে প্রতিদিন হাজার হাজার মানুষ চলাফেরা করছে। বিশেষ করে ঈদ মৌসুমে পথচারী এবং যাত্রীদের চলাচল ব্যাপকভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে। সেই সাথে বৃদ্ধি পেয়েছে তাদের ভোগান্তিও।
সরেজমিনে দেখা গেছে, নথুল্লাবাদ বাস টার্মিনাল সংলগ্ন বরিশাল-ঢাকা মহাসড়ক এবং পার্শ্ববর্তী বিএম কলেজ রোডের সম্মুখে বিশাল বিশাল গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। পূর্বে থেকেই এই সড়কে খানা-খন্দ থাকলেও চলতি বর্ষা মৌসুমে বৃষ্টির পানি এর আকার আরো বৃদ্ধি পেয়েছে। যে কারনে এখান থেকে স্বাভাবিকভাবে কোন যানবাহন এমনকি সাধারন মানুষও হাটতে পারছে না। তার মধ্যে আবার লাগামহীন বৃষ্টির পানি জমে সৃষ্টি হয়েছে জরাজির্ন পরিবেশ। যানবাহন চলতে গেলে পথচারীদের গায়ে কর্দমক্ত নোংড়া পানি ছিটে নষ্ট হচ্ছে গায়ের পোশাক। আর সমস্যার বেশিটাই সম্মুখীন হচ্ছে বাস যাত্রীরা।
শুধু নথুল্লাবাদ বাস টার্মিনালেই নয়, একই পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছে নগরীর রূপাতলী বাস টার্মিনালেও। এখানকার টার্মিনাল সংলগ্ন ঝালকাঠি এবং পার্শ্ববর্তী পটুয়াখালী সড়কে বিশাল বিশাল গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। বিশেষ করে গোল চত্ত্বরের জিরো পয়েন্টের প্রতিটি রাস্তায় চলাচল অনুপযোগি হয়ে পড়েছে। তার মধ্যে জমে আছে বর্ষার পানি। দেখে মনে হয় যেন পুকুরে পরিনত হয়েছে রাস্তাগুলো।
যানবাহন মালিক, শ্রমিক এবং যাত্রীরা জানায়, দীর্ঘ বছর যাবাত রূপাতলী এবং নথুল্লাবাদ সড়কের একই পরিনতি। কিন্তু সড়ক ও জনপথ বিভাগ এ দুটি গুরুত্বপূর্ণ সড়ক মেরামত করছে না। ফলে ভোগান্তি তাদের পিছু ছাড়ছে না।
জানতে চাইলে সড়ক ও জনপথ বরিশাল এর নির্বাহী প্রকৌশলী খালেদ সাহেদ জানান, সম্প্রতি বরিশাল থেকে ভুরঘাটা পর্যন্ত সড়ক সংস্কার করা হয়েছে। এসময় নথুল্লাবাদের রাস্তাও সংস্কার করা হয়। পরবর্তীতে টানা বৃষ্টির কারনে নথুল্লাবাদ সহ বিভিন্ন সড়কে পূনরায় খানা খন্দের সৃষ্টি হয়। এর মধ্যে ঈদের আগে কিছু কিছু স্থানে জরুরী রিপেয়ার করা হয়েছে। কিন্তু বৃষ্টির কারনে সম্পূর্ণ রাস্তা রিপেয়ার করা সম্ভব হয়নি।
তবে তিনি বলেন, রূপাতলী বাস টার্মিনাল সংলগ্ন সড়কের কাজের জন্য বরাদ্দ পাওয়া যায়নি। তবে ইতোপূর্বে সেখানকার রাস্তাও সংস্কার করা হয়েছে। রাস্তায় যানবাহন চলাচলের চাপ বৃদ্ধি ও বৃষ্টির কারনে পূনরায় ভেঙ্গে গেছে। বর্ষা শেষ হলে এসব স্থানে পূনরায় সংস্কার কাজ করা হবে বলেও জানিয়েছেন সড়ক ও জনপথে এর কর্মকর্তা।
এদিকে দু’টি বাস টার্মিনালের পাশাপাশি বড় বড় খানা খন্দে পরিনত হয়েছে নগরীর আধুনিক নৌ বন্দর সংলগ্ন খেয়াঘাটের রাস্তা। সংস্কার এবং গুরুত্বের অভাবে এ রাস্তায় বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়ে বর্ষার পানি জমে কর্দমাক্ত রাস্তায় পরিনত হয়েছে। এ নিয়ে সম্প্রতি দৈনিক আজকের পরিবর্তনে একটি সংবাদ প্রকাশিত হয়েছে। তবুও বিষয়টির প্রতি গুরুত্ব দিচ্ছে না বন্দর কর্তৃপক্ষ।