সুখে দুঃখে নগরবাসীর পাশে থাকতে চাই-দৈনিক কীর্তনখোলার ইফতার মাহফিলে সাদিক আবদুল্লাহ

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ যেদিন দাদা-বাবার পথ অনুসরণ করে রাজনীতিতে প্রবেশ করেছি, সেদিন থেকেই আমি আমার জীবন বরিশালবাসীকে উৎসর্গ করেছি। যা আমার মরন পর্যন্ত অব্যাহত থাকবে। ঘর-সংসার বলতে আমি আমার বরিশালবাসীকেই বুঝি। আমার পরিবার বলতেও আমি বরিশালবাসীকে বুঝি। তাদের সুখে কাছে না যেতে পারলেও দুঃখ-কষ্টে তাদের পাশে থেকে সেবা করতে চাই। আর এটি মানুষকে দেখানো সেবা নয়। এ সেবা আমার মন থেকে বরিশালবাসীর জন্য। যে সেবা আমি নগরীর প্রতিটি ঘরে ঘরে দিতে চাই। এ জন্য সাংবাদিক থেকে শুরু করে সুশীল সমাজ, রাজনৈতিক কর্মী সহ সর্বস্তরের জনগণের সাহায্য চাইলেন যুবরতœ খ্যাতি পাওয়া বরিশাল মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সেরনিয়াবাত সাদিক আবদুল্লাহ। গতকাল শনিবার দৈনিক কীর্তনখোলা পত্রিকার উদ্যোগে সংবাদপত্র এজেন্সি মালিক সমিতি এবং হকার্স সমিতির সম্মানে অনুষ্ঠিত ইফতার মাহফিলে সংক্ষিপ্ত বক্তৃতায় তিনি এসব কথা বলেন। এ সময় উপস্থিত পত্রিকার এজেন্সি মালিক ও হকার্স নেতৃবৃন্দ সাদিক আবদুল্লাহকে আগামী সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে মেয়র প্রার্থী হওয়ার দাবি জানান। একই সাথে তার পক্ষে সার্বক্ষনিক কাজ করারও অঙ্গীকার করেন। দৈনিক কীর্তনখোলা পত্রিকার প্রকাশক কাজী মিরাজের সভাপতিত্বে মিলাদ ও দোয়া-মাহফিলে উপস্থিত ছিলেন মহানগর আওয়ামী লীগের শিল্প ও বাণিজ্য বিষয়ক সম্পাদক নীরব হোসেন টুটুল, দৈনিক কীর্তনখোলা পত্রিকার ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক সালেহ টিটু, নির্বাহী সম্পাদক এ.এফ.এম আনোয়ারুল হক, যুগ্ম সম্পাদক কাজী আফরোজা, সময় টেলিভিশনের ব্যুরো প্রধান ফিরদাউস সোহাগ, বাংলাদেশ প্রতিদিন ও চ্যানেল-২৪ এর ব্যুরো প্রধান রাহাত খান, মাছরাঙ্গা টেলিভিশনের স্টাফ রিপোর্টার গিয়াসউদ্দিন সুমন, বাংলাদেশ সংবাদপত্র এজেন্ট এসোসিয়েশনের সভাপতি ও এম রহমান নিউজ এজেন্সির স্বত্বাধিকারী হারুন-অর-রশীদ, রকি এজেন্সির স্বত্বাধিকারী মো. দুলাল, সংবাদপত্র হকার্স ইউনিয়নের সভাপতি মাইনুল ইসলাম মনির, সাধারণ সম্পাদক আবুল কালাম কালু, সহ-সভাপতি নেছার জমাদ্দার, যুগ্ম-সম্পাদক শাহীন মোল্লা, কোষাধ্যক্ষ ইউনুস হাওলাদার, প্রচার সম্পাদক বেল্লাল হোসেন, ফুল মিয়া, ক্রীড়া সম্পাদক মো. সবুর, কার্যনির্বাহী সদস্য আল-আমিন, দৈনিক কীর্তনখোলার বার্তা সম্পাদক জসিম জিয়া, চীফ রিপোর্টার মর্তুজা জুয়েল, সিনিয়র স্টাফ রিপোর্টার অপু রয়, ফটো সাংবাদিক নাসির উদ্দিন ও জুয়েল রানা, ব্যবস্থাপক হারুন-অর-রশীদ প্রমুখ।