সাদিক আব্দুল্লাহকে চেয়ে তৃণমূল নেতাদের দাবীনামা প্রেরণ

নিজস্ব প্রতিবেদক॥ শওকত হোসেন হিরন’র মৃত্যুর পরে স্থবিরতা নেমে এসেছে বরিশাল মহানগর আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক কার্যক্রমে। ফলে তার মৃত্যুর প্রায় ৬ মাস ধরে এ শাখায় সাংগঠনিক কার্যক্রম নেই বললেই চলে। ফলে এক প্রকার ঝিমিয়ে পড়েছে আ’লীগের এ শাখা কমিটির নেতা-কর্মীরা। তবে এ সমস্যা থেকে পরিত্রান চান মাঠ পর্যায়ের নেতা-কর্মীরা। এজন্য সাংগঠনিক অচলাবস্থা কাটিয়ে উঠতে কেন্দ্রীয় যুবলীগ নেতা সেরনিয়াবাত সাদিক আব্দুল্লাহকে সাধারন সম্পাদক করে দ্রুত মহানগর আওয়ামীলীগের নতুন কমিটির দাবীনামা প্রেরন করেছেন প্রধানমন্ত্রীর কাছে।
নেতা-কর্মীরা জানায়, বরিশাল মহাগর আ’লীগের সভাপতি ও সিটির সাবেক মেয়র শওকত হোসেন হিরন’র মৃত্যুর পরে এ শাখায় সাংগঠনিক কার্যক্রমে নেমে আসে স্থাবিরতা। এ শাখায় এ্যাড. আফজালুল করিম সাধারন সম্পাদক হিসেবে এখনো দায়িত্ব পালন করলেও তিনি ওয়ার্ড এবং তৃনমুল নেতাদের সাথে যোগাযোগ রাখছেন না। কিন্তু ছুটে চলেছেন মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি পদ পেতে। এজন্য গত ৬ মাসে শওকত হোসেন হিরন’র মৃত্যু বার্ষিকী এবং জাতীয় দিবসের একটি কর্মসূচী ছাড়া আর কোন কর্মসূচী পালন হয়েছে কিনা তা জানানেই মাঠ পর্যায়ের নেতা-কর্মীদের।
এসব কারনেই মহানগর আওয়ামীলীগে নতুন কমিটির দাবী তুলেছেন মহানগরীর ৩০টি ওয়ার্ডের নেতা-কর্মীরা। এ লক্ষ্যে সম্প্রতি ওয়ার্ড নেতা বৈঠক করেছেন। এ বৈঠকে ২টি বাদে বাকি ২৮টি ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সভাপতি ও সাধারন সম্পাদকগন উপস্থিত ছিলেন।
বৈঠকে তারা মহানগর আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক কার্যক্রম আরো গতিশীল এবং শক্তিশালী করতে দলীয় সভানেত্রী শেখ হাসিনার কাছে আবেদন জানানোর সিদ্ধান্ত নেন।
সে অনুযায়ী গত বুধবার ওয়ার্ড নেতৃবৃন্দ এবং আ’লীগের সাবেক ও বর্তমান কাউন্সিলরদের স্বাক্ষরিত একটি প্রস্তাব পত্র পাঠানো হয়েছে দলীয় সভানেত্রী এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ধানমন্ডীর রাজনৈতিক কার্যালয়ে। প্রস্তাব পত্রে নগর আ’লীগের সাধারন সম্পাদক পদে কেন্দ্রিয় যুবলীগ নেতা সেরনিয়াবাত সাদিক আব্দুল্লাহকে মনোনয়ন দেয়ার জন্য আবেদন জানানো হয়েছে।
এ ব্যাপারে মহানগরীর ১৯ নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক ও কাউন্সিলর গাজী নাঈমুল হোসেন আজকের পরিবর্তনকে জানান, ২০১২ সালের ২৭ ডিসেম্বর নগর আ’লীগে সর্বশেষ সম্মেলন হয়। সম্মেলনে নির্বাচিত সভাপতি ও সাবেক মেয়র শওকত হোসেন হিরন-এমপি’র মৃত্যুর পর মহানগর আ’লীগের একক সদস্যর কমিটিতে পরিনত হয়। ফলে সাংগঠনিক কার্যক্রমে নেমে এসেছে স্থবিরতা। নগর আ’লীগের মাঠ নেতারা এ অবস্থার অবসান চান। এজন্য তারা বৈঠক করেছেন। এ বৈঠকে ২৮টি ওয়ার্ড আ’লীগের সভাপতি এবং সম্পাদকরা উপস্থিত ছিলেন। তিনি বলেন, বাকি দুটি ওয়ার্ডের মধ্যে ৪ নং ওয়ার্ডের কমিটি নেই এবং ২২ নং ওয়ার্ডে আছেন শুধু একজন আহ্বায়ক।
এদিকে খোঁজ নিয়ে জানাগেছে, যুবলীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য সেরনিয়াবাত সাদিক আব্দুল্লাহকে মহানগর আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক পদে মনোনিত করার জন্য প্রধানমন্ত্রীর নিকট যে আবেদনটি প্রেরণ করা হয়েছে সেই আবেদন পত্রে ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সভাপতি-সম্পাদক ছাড়াও বর্তমান ও সাবেক ২২ কাউন্সিলরের (ভোটার) স্বাক্ষর রয়েছে।
এ ব্যাপারে দলীয় সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ধানমন্ডীর রাজনৈতিক কার্যালয়ের কর্মকর্তা মোঃ আলউদ্দিন এর সাথে আলাপকালে তিনি বলেন, বরিশাল থেকে প্রেরিত এ সংক্রান্ত একটি আবেদনপত্র তারা পেয়েছেন। এমনকি আবেদনপত্রটি সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নিকট পৌছে দেয়া হয়েছে বলেও তিনি নিশ্চিত করেছেন।