সাত খুনের মামলায় র‌্যাব সদস্য রুহুল আমিন ৭ দিনের রিমান্ডে

পরিবর্তন ডেক্স ॥ নারায়ণগঞ্জের বহুল আলোচিত সাত খুনের ঘটনায় গ্রেফতার র‌্যাব সদস্য ল্যান্স কর্পোরাল রুহুল আমিনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ৭ দিনের রিমা-ে নেয়া হয়েছে। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা  জেলা ডিবির ওসি মামুনুর রশিদ জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ১০ দিনের রিমান্ড চেয়ে রুহুল আমিনকে বুধবার সকালে আদালতে পাঠান। নারায়ণগঞ্জ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট এএইচএম শফিকুল ইসলামের আদালত শুনানি শেষে ৭ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।
ল্যান্স কর্পোরাল রুহুল আমিনকে মঙ্গলবার সকালে পটুয়াখালীর বাউফল উপজেলার সনেশ্বর গ্রাম থেকে পুলিশ ও ডিবির একটি দল গ্রেফতার করে। সাত খুনের ঘটনার সময় নারায়ণগঞ্জে র‌্যাব-১১ তে কর্মরত ছিলেন তিনি। সম্প্রতি তিনি বাড়ি গিয়ে আর ফেরেননি।
নারায়ণগঞ্জ জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি সাখাওয়াত হোসেন জানান, সাত খুনের ঘটনায় দু’টি মামলার মধ্যে নিহত প্যানেল মেয়র নজরুল ইসলামের স্ত্রী সেলিনা ইসলামের দায়ের করা মামলায় রিমান্ড চেয়ে রুহুল আমিনকে আদালতে পাঠানো হয়। শুনানি শেষে আদালত ৭ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। এছাড়া সাত খুনের ঘটনায় নিহত অ্যাডভোকেট চন্দন সরকারের জামাই বিজয় পালের দায়ের করা অপর মামলায় রুহুলকে শ্যোন অ্যারেস্ট দেখানো হয়েছে। চাঞ্চল্যকর এ সেভেন মার্ডারের ঘটনায় এখন পর্যন্ত র‌্যাবের ১১ সদস্যকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

গত ২৭ এপ্রিল নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের প্যানেল মেয়র ও দুই নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর নজরুল ইসলাম এবং আইনজীবী চন্দন কুমার সরকারসহ সাতজন অপহৃত হন। ৩০ এপ্রিল শীতলক্ষ্যা নদীতে ভেসে ওঠা ছয়জনের মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। পরদিন ১ মে অপরজনের মরদেহও নদীতে পাওয়া যায়।