সবজির বাজারে আগুন ক্রেতাদের নাভিশ্বাস

ওয়াহিদ রাসেল ॥ নগরীতে সবজির বাজারে আগুন লেগেছে। ধরা ছোয়ার বাইরে চলে যাচ্ছে সবজির দাম। দাম বেশি হওয়ায় ক্রেতারা সবজি কেনাও কমিয়ে দিয়েছেন। যে পরিবারে প্রতিদিন ২ কেজি সবজি দরকার তারা ১ কেজির মধ্যেই সীমাবদ্ধ থাকছেন। কবে সবজির দাম কমবে তা কেউ বলতে পারছেন না। পাইকারী বিক্রেতাদের দাবি, আমদানি ও সরবরাহ কম থাকার কারনে পাইকারি বাজারে সবজির দাম বেড়েছে। এর প্রভাব পড়েছে খুচরা বাজারেও। পাইকারি বেশি দামে ক্রয় করতে হচ্ছে বলে তারাও বেশি দামে বিক্রয় করছে বলে জানান খুচরা সবজি ব্যবসায়িরা। প্রতিদিনই সবজির দাম কম বেশি ওঠা-নামা করছে। দেশে অতিবৃষ্টির ফলে কৃষকদের ফসল নষ্ট হওয়ার কারনে সবজির আমদানি কম হচ্ছে। যার ফলে পাইকারদের কাছে থেকে তাদের বেশি দামে সবজি ক্রয় করতে হচ্ছে। গতকাল শনিবার নগরীর নতুন বাজারের সবজির দোকানগুলো ঘুরে দেখা গেছে, বরবটি ৭০ টাকা, গাজর দেশি ৭০, চায়না ১৪০, মুলা ৪০, শসা ৫৫ থেকে ৬০, মৌ-সিম ৭০, বেগুণ ৭০, পটল ৫০, করলা ৬০, উস্তা ৭০, কাচা কলা আকার অনুযায়ি ১৫ থেকে ২৫ টাকা পর্যন্ত বিক্রি করা হয়। এছাড়াও লাউ ৫০ থেকে ৬০ টাকা, বাধাকপি ৫০, কচুর লতি ২০, কচু শাক ২০, কাচা মরিচ ১৬০, মিষ্টি কুমড়া ৪০, টমেটো ১৫০ থেকে ১৬০, গাডি ২৫ থেকে ৩৫, চিচিঙ্গা ৫০, পেপে ৩০, মান কচু ১৮০ টাকা দরে বিক্রয় করছেন খুচরা সবজি ব্যবসায়িরা। তবে অন্যান্য সবজির চেয়ে শাঁক এর দাম বরাবরই একটু বেশি থাকলেও এখন আরো একটু বেশি দামেই তা বিক্রয় করা হচ্ছে। এর মধ্যে লাল শাঁক আটা প্রতি ২০ থেকে ৩০ টাকা, লাউশাঁক আটা প্রতি ৩০ থেকে ৪০ টাকা ও কাঞ্চন শাঁক, কলমি শাঁক আটা প্রতি ২০ টাকা করে বিক্রয় করা হচ্ছে বলে জানান নতুন বাজারের সবজি ব্যবসায়ি এনামুল ইসলাম। তিনি আরো জানান, বর্তমানে সবজির আমদানি কম থাকার কারনে এবং ক্রেতাদের চাহিদা অনুযায়ি যোগান না হওয়ার কারনে দাম বাড়তি রয়েছে। তারা পাইকারি বাজার থেকে যে দামে সবজি কিনছেন তার চেয়ে ১০ থেকে ১৫ টাকা লাভে বিক্রয় করছেন। অপর এক ব্যবসায়ি গোলাম মোস্তফা জানান, শীত না আসা পর্যন্ত সবজির দাম এমনই অব্যহত থাকবে। তবে পাইকারি বাজারে যদি দাম কমে তবে তারাও কম দামে বিক্রয় করতে পারবেন। ভ্রাম্যমান ব্যবসায়ি দুলাল জানায়, তারা নগরীর বিভিন্ন স্থানে ঘুরে ঘুরে সবজি বিক্রয় করেন। বাজারের সাথে সামঞ্জস্য রেখেই তারা সবজি বিক্রয় করেন। রোদে ঘুরে ঘুরে সবজি’র রং পরিবর্তন হয়ে গেলে অনেক সময় বাজারের থেকে কম দামেও সবজি বিক্রয় করতে হয়। এছাড়া রাত বাড়লেও তাদের পন্য কম দামে বিক্রয় করতে হয়। অপরদিকে সবজি ক্রেতারা জানান, টিভি চ্যানেলে সবজির দাম কমছে বলে জানালেও বাজারে গিয়ে দেখা যায় পুরো উল্টো। বাজারের সব দোকানিরা সিন্ডিকেটের মাধ্যমে সবজি বিক্রয় করার ফলে ক্রেতারা তাদের কাছে জিম্মি হয়ে পড়ে। যার ফলে বাধ্য হয়েই তাদের কাছ থেকে বেশি দামে নিত্য প্রয়োজনীয় সবজি কিনতে হয়।