শৈত্য প্রবাহ ও ঘন কুয়াশায় জনজীবনে বিপর্যয়

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ সম্প্রতিককালের ভয়াবহ হিম ঠান্ডায় কাঁপছে সমগ্র দক্ষিণাঞ্চল। গতকাল সকালে বরিশাল তাপমাত্রার পারদ ৭.৮ ডিগ্রী সেলসিয়াসে নেমে যায়। যা স্বাভাবিকের তুলনায় ৪.১ ডিগ্রী সেলসিয়াস কম। গত শুক্রবার বরিশালে মৌসুমের সর্বনি¤œ তাপমাত্রা ৯.৫ ডিগ্রী সেলসিয়াসে হ্রাস পাবার পরদিনই তা মৌসুমের প্রায় স্বাভাবিক অবস্থানে ১১.২ ডিগ্রী সেলসিয়াসে বৃদ্ধি পেলেও মাত্র ২৪ ঘন্টার মাথায়ই গতকাল তা ৭.৮ ডিগ্রী সেলসিয়াসে হ্রাস পেল। তাপমাত্রার পারদ স্বাভাবিকের চেয়ে প্রায় ৪ ডিগ্রী নিচে নেমে যাবার পাশাপাশি উত্তর-পশ্চিমের হিমেল হাওয়ায় সমগ্র দক্ষিণাঞ্চল এখন কাঁপছে।
ফলে সমগ্র দক্ষিণাঞ্চলের জনজীবনে চরম বিপর্যয় নেমে এসেছে। মৌসুমের দ্বিতীয় এ শৈত্য প্রবাহে দেশের প্রধান দানাদার খাদ্য ফসল বোরো বীজতলা ‘কোল্ড ইনজুরী’তে আক্রান্ত হবার শংকাও ক্রমশ বাড়ছে। চলতি রবি মৌসুমে দেশে প্রায় ৪৭ লাখ ৫০ হাজার হেক্টর জমিতে বোরো আবাদের লক্ষ স্থির করেছে কৃষি মন্ত্রনালয়। চাল উৎপাদনের লক্ষ্য রয়েছে প্রায় ১ কোটি ৯২ লাখ টন।
দক্ষিণাঞ্চলের ১১টি জেলায় এবার প্রায় ৩ লক্ষাধিক হেক্টর জমিতে বোরো আবাদের মাধ্যমে ১২ লাখ ১৮ হাজার টন চাল উৎপাদনের লক্ষ্য নির্ধারিত রয়েছে। কিন্তু সাম্প্রতিককালের নজিরবিহীন এ শৈত্য প্রবাহে সারা দেশেই বোরো বীজতলা এখন কোল্ড ইনজুরীর আশংকার কবলে। পাশাপাশি গোল আলুর উৎপাদনও এ শৈত্য প্রবাহের কারনে ক্ষতিগ্রস্থ হবার আশংকা ক্রমশ বাড়ছে।
অপরদিকে তাপমাত্রার পারদ দ্বিতীয় দফায় আকষ্মিকভাবে স্বাভাবিকের নিচে নেমে যাবার কারনে সমগ্র দক্ষিণাঞ্চলের জনজীবনে চরম বিপর্যয় নেমে এসেছে। গতকাল সন্ধ্যার পর পরই বরিশাল মহানগরীর রাস্তাঘাট ফাঁকা হয়ে যায়। অন্যান্য জেলা ও উপজেলা সদরগুলোর অবস্থাও প্রায় একই। এ শৈত্য প্রবাাহে বরিশাল মহাগরীর ১৪টি বস্তি সহ দক্ষিণাঞ্চলের লক্ষ লক্ষ ছিন্নমূল মানুষের জীবন এখন অনেকটাই দূর্বিসহ।
এদিকে হিম শীতল ঠান্ডার সাথে মেঘনা অববাহিকায় মাঝারী কুয়াশায় গতকাল রাতের শেষ প্রহরে রাজধানীর সাথে বরিশাল সহ দক্ষিণাঞ্চলের নৌ-যোগাযোগও চরম বিপর্যয়ের কবলে পরে। ঢাকা ও বরিশাল সহ দক্ষিণাঞ্চলের বিভিন্ন রুটের যাত্রীবাহী নৌযানগুলো মেঘনা ও এর শাখা নদ-নদীগুলোতে ২-৩ ঘন্টা আটকে ছিল শেষ রাতে। ফলে অর্ধ লক্ষাধীক যাত্রীকে চরম দূর্ভোগে পড়তে হয় গতকাল সকালে।
আবহাওয়া বিভাগের মতে, দক্ষিণ-পূর্ব বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন আন্দামান সাগরে একটি লঘু চাপ সৃষ্টি হয়েছে। উপমহাদেশেীয় উচ্চ বলয়ের বর্ধিতাংশ ভারতের পশ্চিমবঙ্গ ও বাংলাদেশের উত্তরÑপশ্চিমাংশ পর্যন্ত বিস্তৃত রয়েছে। অস্থায়ী মেঘলা আকাশ সহ সারা দেশের আবহাওয়া শুষ্ক থাকবে। মধ্যরাত থেকে সকাল পর্যন্ত নদী অববাহিকায় হালকা থেকে মাঝারী কুয়াশা পড়তে পারে বলেও জানিয়েছে আবহাওয়া বিভাগ।