শেবাচিম থেকে নবজাতক চুরির ঘটনায় মা-মেয়ে সহ গ্রেপ্তার ৩

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ নবজাতক চুরির অভিযোগে মা-মেয়ে সহ তিনজনকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব-৮। শের-ই-বাংলা চিকিৎসা মহাবিদ্যালয় (শেবাচিম) হাসপাতালে মায়ের কোল থেকে নবজাতক চুরির অভিযোগে নারায়নগঞ্জ থেকে তাদের আটক করে র‌্যাব-৮। একই সাথে চুরি হওয়া নবজাতক শিশু তাসকিনকে গতকাল বৃহস্পতিবার তার বাবা-মায়ের কাছে ফিরিয়ে দিয়েছে র‌্যাব-৮ এর কর্মকর্তারা। হারানো নবজাতক শিশু সন্তানকে ফিরে পেয়ে আনন্দে আত্মহারা বাবা-মা চোখে পানি ধরে রাখতে পারেনি। আনন্দের অশ্রু ঝড়েছে তাদের চোখ থেকে।
এদিকে নবজাতক চুরির ঘটনায় আটককৃতরা হলেন রিনা বেগম (২২), তার স্বামী মো. সোলায়মান হোসেন (২৮) ও মা হাওয়া বিবি (৪৫)। এদের বাড়ি বরগুনা জেলার তালতলি উপজেলার নলবুনিয়া গ্রামে। সন্তান হওয়ার ক্ষমতা হারিয়ে ফেলায় অন্যের নবজাতককে চুরি করে মা হওয়ার স্বপ্ন দেখেছিলো রিনা বেগম।
গতকাল বৃহস্পতিবার বেলা ১১টায় বরিশাল নগরীর রূপাতলী এলাকায় র‌্যাব-৮’র সদর দপ্তরে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের এসব তথ্য জানিয়েছেন র‌্যাব-৮ এর অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল আনোয়ার উজ জামান।
তিনি বলেন, গত ১ জুন মেহেন্দিগঞ্জ পৌরসভার ৬নং ওয়ার্ডস্থ খোরকী এলাকার বাসিন্দা দিনমজুর আনোয়ার হোসেন আকন’র স্ত্রী ছালমা বেগমকে (২৩) বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ওই দিনই দিবাগত রাতে সিজারের মাধ্যমে তার একটি পুত্র সন্তান জন্মায়। হাসপাতালের প্রসূতী ওয়ার্ডে জায়গা না থাকায় পার্শ্ববর্তী বারান্দার প্রবেশ পথের মেঝেতে রেখে গৃহবধূকে চিকিৎসা দেয়া হয়। ছালমার পাশেই আসামী রিনা বেগম চিকিৎসাধীন ছিলো। সেখানে তার স্বামী ও মা উপস্থিত ছিলেন।
গত ৪ জুন সকালে তিন দিন বয়সী নবজাতককে নিয়ে আাসামীরা হাসপাতাল থেকে কৌশলে পালিয়ে যায়। এ ঘটনায় নবজাতকের বাবা আনোয়ার হোসেন আকন বাদী হয়ে বরিশাল মেট্রোপলিটন কোতয়ালী মডেল থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। যার নম্বর ০৮। তাছাড়া ৫ জুন নবজাতক অপহরনের অভিযোগ এনে র‌্যাব-৮ এর অধিনায়ক বরাবর লিখিত আবেদন করেন তার বাবা।
এরই পরিপ্রেক্ষিতে বরিশাল র‌্যাব-৮ এর সিপিএসসির ভারপ্রাপ্ত কোম্পানী কমান্ডার সহকারী পরিচালক মোঃ হাছান আলী এর নেতৃত্বে একটি বিশেষ আভিযানিক দল গত ৭ জুন রাত পৌনে ১১ টার দিকে নারায়নগঞ্জ জেলার ফতুল্ল¬ায় অভিযান চালায়। এ সময় সেখান থেকে শেবাচিম হাসপাতাল থেকে উধাও হওয়া রোগী রিনা বেগম এর মা হাওয়া বিবিকে (৪৫) আটক করা হয়। পরে হাওয়া বিবি’র দেয়া তথ্য অনুযায়ী তাকে সাথে নিয়েই নারায়নগঞ্জ জেলার ফতুল্লা এলাকায় অভিযান চালানো হয়। ৮ জুন (বৃহস্পতিবার) ভোর ৩ টায় ওই এলাকার একটি ভাড়া বাসা থেকে নবজাতককে উদ্ধার ও তাকে চুরি করা রিনা বেগম (২২) এবং তার স্বামী মোঃ সোলায়মান হোসেনকে (২৮) আটক করা হয়।
র‌্যাব-৮ এর কমান্ডিং অফিসার (সিও) আনোয়ার উজ জামান জানিয়েছেন, শিশু অপহরনের বিষয়টি আটককৃতরা স্বীকার করেছে। এর কারন হিসেবে তারা দাবী করেছে রিনা বেগম এর সন্তান হবে না। এ্যাব্রোসনের মাধ্যমে তার মাতৃত্বের ক্ষমতা হারিয়ে ফেলেছে। এজন্যই লালন পালনের জন্য নবজাতককে তারা চুরি করেছে বলে জানিয়েছেন র‌্যাবের ওই কর্মকর্তা।
হারানো সন্তানকে ফিরে পেয়ে ছালমা বেগম র‌্যাব-৮ এর প্রতি গভীর কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন।