শেখ হাসিনার হাতে দেশের পতাকা থাকলে জঙ্গিরা নিশ্চিহ্ন হয়ে যাবে- বাণিজ্য মন্ত্রী

ভোলা প্রতিবেদক ॥ বাণিজ্য মন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বলেছেন, যারা জঙ্গি হিসেবে মারা গেছে তাদের বাবা- মা লাশ নিতে আসে নাই। কিন্তু বেগম খালেদা জিয়া বলেছেন, নিরীহ মানুষকে অস্ত্র হাতে দিয়ে ক্রস ফায়ারে মেরে ফেলা হচ্ছে। মানবতা বিরোধী মীর কাসেম আলীর ফাঁসির রায় কার্যকর হয়েছে। শেখ হাসিনা প্রধানমন্ত্রী ছিলেন বলেই বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচার হয়েছে। যুদ্ধাপরাধীদের বিচার চলছে। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ কলঙ্ক ও জঙ্গিমুক্ত হবে এবং আর্ন্তজাতিক বিশ্বে মর্যাদাশীল দেশে হিসেবে মাথা উঁচু করে দাড়াবে। তোফায়েল আহমেদ দেশের সার্বিক উন্নয়ন চিত্র তুলে ধরে বলেন, বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার কারণে দেশে বিস্ময়কর উন্নয়ন হয়েছে। শেখ হাসিনার হাতে বাংলাদেশের পতাকা থাকলে দেশে জঙ্গি তৎপরতা থাকবে না। নিশ্চিহ্ন হয়ে যাবে জঙ্গিরা। গতকাল রোববার দুপুরে ভোলা সদর উপজেলার পূর্ব ইলিশা ইউনিয়ন পরিষদে নদী ভাঙনে ক্ষতিগ্রস্থদের মাধে নগদ অর্থ প্রদান অনুষ্ঠানে বাণিজ্য মন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ এসব কথা বলেন।
একই অনুষ্ঠানে নৌ পরিবহন মন্ত্রী শাজাহান খান বলেছেন, আমাদের দেশ এখন পাপমুক্ত হচ্ছে। মীর কাসেম আলীর ফাঁসির মধ্যদিয়ে আরেক ধাপ পাপ মুক্তির দিকে এগিয়ে গেলো । খুন যদি পাপ হয়, ধর্ষণ যদি পাপ হয়, তাহলে ১৯৭১ সালে যারা খুন করেছে ধর্ষণ করেছে, বঙ্গবন্ধুকে স্বপরিবারে যারা খুন করেছে তারা সবাই পাপি। এত দিন পাপিদের বিচার হয়নি বলেই দেশের উন্নয়ন হয়নি। শেখ হাসিনা একের পর এক পাপীদের বিচার করছে আর বাংলাদেশের উন্নয়ন হচ্ছে। দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। অনুষ্ঠানে দুই মন্ত্রী মেঘনার ভাঙনে ক্ষতিগ্রস্থ পূর্ব ইলিশা ইউনিয়নের ৫শ’ পরিবারের মধ্যে নগদ ১৫ লাখ টাকা বিতরণ করেন। এসময় জেলা প্রশাসক মোহাং সেলিম উদ্দিন, জেলা পরিষদ প্রশাসক আবদুল মমিন টুলু, পুলিশ সুপার মোকতার হোসেন, সদর উপজেলা চেয়ারম্যান মোশারেফ হোসেন, ইউএনও কাজী তোফায়েল হোসেন, মুক্তিযোদ্ধা সংসদের জেলা কমা-ার দোস্ত মাহমুদ, জেলা আওয়ামী লীগ যুগ্ম সম্পাদক জহুরুল ইসলাম নকীব, সাংগঠনিক সম্পাদক মাইনুল হোসেন বিপ্লব ও মোঃ ইউনুছ স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান হাচনাই আহমেদ হাচানসহ জেলা আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। এদিকে বিকালে প্রায় ৩ কোটি টাকা ব্যায়ে নির্মিত ভোলা নদী বন্দর টার্মিনাল ভবন উদ্বোধন করেছে বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ ও নৌ-পরিবহন মন্ত্রী শাজাহান খান নতুন এ টার্মিনাল ভবনের উদ্বোধন করেন। নদী পথে চলাচলকারী যাত্রীদের উন্নত সেবা প্রদানের লক্ষে ভোলা নদী বন্দরে ৩ হাজার বর্গফুটের একটি দ্বিতল ভবন, ৩শ’ ফিট ছাউনিযুক্ত হাটার পথ, ৩টি গ্যাংওয়ে, ৬টি নতুন পিলার ও ৩টি পন্টুন স্থাপন করা হয়েছে। এতে অপেক্ষমাণ যাত্রীদের বিশ্রাম নেয়াসহ আধুনিক সুযোগ সুবিধা বৃদ্ধি হয়েছে। টার্মিনাল ভবন উদ্বোধন উপলক্ষে নদীবন্দর চত্বরে এক জনসভার আয়োজন করা হয়। আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন, বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ, নৌ-পরিবহন মন্ত্রী শাজাহান খান, বিআইডব্লিউটিএ-এর চেয়ারম্যান ভোলা নাথ দে, বিআইডব্লিউটিসির চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান, জেলা পরিষদ প্রশাসক আবদুল মমিন টুলু, জেলা আওয়ামী লীগ যুগ্ম সম্পাদক জহুরুল ইসলাম নকীব, ইউপি চেয়ারম্যান ইয়ানুর রহমান বিপ্লব মোল্লা সহ স্থানীয় নেতৃবৃন্দ।