শিশুদের উৎসবের আমেজ এনে দিয়েছে গ্রীন সিটি পার্কে

নিজস্ব প্রতিবেদক ॥ নগরীর শিশুদের মাঝে উৎসবের আমেজ ছড়িয়ে দিয়েছে গ্রীন সিটি পার্ক। বরিশাল সিটি কর্পোরেশনের উদ্যোগে নব নির্মিত এই সিটি পার্ক শুধু শিশুদেরই নয় পছন্দের স্থানে পরিণত হয়েছে সব বয়সি হাজারো দর্শনার্থীর। পরিবার নিয়ে অবসর সময় কাটানোর এমন একটি উপযুক্ত স্থানে নগরবাসী প্রকাশ করেছে সন্তুষ্টি। শুধু সন্তুষ্টিই নয় নগরবাসীকে এমন একটি বিনোদনের স্থান উপহার দেয়ায় তারা বিসিসি কর্তৃপক্ষকে প্রাণঢালা অভিনন্দন জানিয়েছেন। ২৪ ঘন্টা নিচ্ছিদ্র নিরাপত্তা ব্যবস্থায় ঘেরা এই পার্কটি এখন পরিণত হয়েছে সব বয়সের দর্শনার্থীদের মিলন মেলায়। প্রতিদিন নগরী ও বাইরে থেকে আসছে হাজারো দর্শনার্থী। বিসিসির তথ্যমতে, ১ কোটি ৪২ লাখ টাকা ব্যয়ে নির্মিত হয়েছে গ্রীন সিটি পার্ক। বিকেল ৩ টা থেকে রাত ৯ টা পর্যন্ত পার্কটি সব ধরনের দর্শনার্থীদের জন্য উন্মুক্ত রাখা হয়েছে। দেশের স্বনামধন্য খেলনা প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে কেনা খেলনাগুলোতে একই সাথে ৭৫ জন শিশু খেলা করতে পারবে। একটি বৈদ্যুতিক ফুলের গাছ, রঙিন বৈদ্যুতিক বাতি, সীমানা প্রাচীর বাতি, গার্ডেন লাইট, শিশুদের একটি খেলার মাঠ, মোট ১৪টি খেলনা, ছোট বড় ফুলের বাগান, বাথরুম, ৫০০ অভিভাবক একই সাথে বসার সুযোগ পাবে। বাচ্চাদের জন্য খাবার ঘর এবং বিশ্রামাগার এই মিনিপার্কটিকে স্বয়ংসম্পূর্ণ করেছে। পার্কের সৌন্দর্য বর্ধনের জন্য সজ্জার সরঞ্জামাদি আনা হয়েছে চীন থেকে। জানুয়ারি মাসের শুরুতেই এই পার্কের নির্মাণ কাজ সম্পন্ন করে ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান। ২৯ জানুয়ারি থেকে সিটি মেয়র আহসান হাবিব কামালের শুভ উদ্বোধনের মধ্য দিয়ে উন্মুক্ত হয় পার্কটি। এরপর থেকেই দর্শনার্থীদের তিল ধরার ঠাঁই নেই পার্কটিতে। বিশেষ করে শুক্রবার বন্ধের দিনে পার্কটি শিশু-কিশোরদের পদচারণায় মুখরিত হয়। শিশুরা খেলনাগুলো উপভোগ করতে লাইন দিয়ে দাড়িয়ে অপেক্ষা করে। অভিভাবকদেরও দেখা গেছে উৎসবমুখর আমেজে। নিজের শহরে এমন একটি স্থান পেয়ে প্রিয়জনকে সাথে নিয়ে আসছে হাজারো দর্শনার্থী। গতকাল শুক্রবার বিকেলে পার্কে আসা এক ছোট শিশু রাইসার পার্কটি তার কেমন লেগেছে এই প্রশ্নে সে জানায় তার অনেক আনন্দের কথা। পার্কে আসা অভিভাবক অনি ইসলাম বলেন, এমন একটি স্থান বরিশালে আগেই প্রয়োজন ছিল যেখানে শিশু ও অভিভাবক উভয়ই বিনা টিকেটে বিনোদন নিতে পারবে। শিশুদের মানসিক ও শারীরিক বৃদ্ধিতে এমন স্থান অনেকটাই জরুরী ছিল। গ্রীন সিটি পার্কে এসে তারা অনেক খুশি এবং যারা এই পার্ক তৈরির উদ্যোক্তা তাদেরকে অসংখ্য ধন্যবাদ জানান ওই অভিভাবক। গ্রীন সিটি পার্কের নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা নিকড় দাস জানান, ২৪ ঘন্টার নিরাপত্তা ব্যবস্থার জন্য বর্তমানে ৭ জন বিসিসির নিরাপত্তা কর্মী দায়িত্বে রয়েছেন। কোন ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে সদা সতর্ক রয়েছেন তারা। পরিচ্ছন্নতার জন্য রয়েছে আরও ২ জন। পার্কটি উদ্বোধনের পর থেকে দর্শনার্থীদের প্রচুর ভীড় বেড়েছে। এই গ্রীন সিটি পার্কটি বিসিসি থেকে নগরবাসীর প্রতি একটি অনন্য উপহার জানিয়ে সার্বিক সেবা দেয়ার প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করেছেন সিটি কর্পোরেশন কর্তৃপক্ষ।