শিক্ষা ধ্বংসকারী সহিংসতা বন্ধে হয়েছে মানববন্ধন

নিজস্ব প্রতিবেদক॥ শিক্ষা ধ্বংসকারী সহিংসতার প্রতিবাদে নগরীর বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে মানববন্ধন ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। “শঙ্কা মুক্ত জীবন চাই, নিরাপদে ক্লাস করতে ও পরীক্ষা দিতে চাই” শ্লোগান নিয়ে গতকাল শনিবার বেলা ১১টায় এক যোগে এই কর্মসূচি পালন করেছে শিক্ষক এবং শিক্ষার্থীরা। জাতীয় বিশ্ব বিদ্যালয়ের কতৃপক্ষের ডাকে এই কর্মসূচি স্ব-স্ব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সামনে অনুষ্ঠিত হয়।
এর মধ্যে বিএম কলেজের সামনে শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের সমন্বয়ে বিশাল মানববন্ধন কর্মসূচিতে সভাপতিত্ব করেন বিএম কলেজ অধ্যক্ষ অধ্যাপক ফজলুল হক। এ সময় বক্তব্য রাখেন কলেজের রাজনৈতিক এবং সামাজিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।
একই সময়ে সরকারি সৈয়দ হাতেম আলী কলেজ অধ্যক্ষ অধ্যাপক ইমানুল হাকিমের সভাপতিত্বে মানববন্ধনে শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা অংশ নিয়েছে। শিক্ষা ধ্বংসকারী সহিংসতা বন্ধের দাবীতে সরকারি বরিশাল কলেজ কর্তৃপক্ষের আয়োজনে অনুষ্ঠিত মানববন্ধন কমসূচিতে সভাপতিত্ব করেন অধ্যক্ষ অধ্যাপক একেএম মজিবর রহমান। বরিশাল ইসলামিয়া কলেজের অধ্যক্ষ মহসিন উল ইসলাম হাবুলের সভাপতিত্বে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সভা হয়েছে। জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের লিখিত নির্দেশে আয়োজিত ওই কর্মসূচিতে শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা অংশ নেয়। সমাবেশে বক্তব্য রাখেন শিক্ষক পরিষদের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক মিজানুর রহমান সহিদ, শিক্ষক প্রতিনিধি অধ্যাপক শাহানারা বেগম, ফাইজুর নাহার সেলি, ইদ্রিস হাওলাদার প্রমুখ।
এছাড়াও নগরী এবং সদর উপজেলার বিভিন্ন সরকারি এবং বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা সকাল ১১টায় শিক্ষা ধ্বংসকারী সহিংসতা বন্ধের দাবীতে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। এসময় শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের পাশাপাশি উপস্থিত ছিলেন সংশ্লিষ্ট শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা-কর্মীরা।
মানববন্ধন কর্মসূচিতে শিক্ষক এবং শিক্ষার্থীরা তাদের বক্তব্যে বলেন, শিক্ষা না থাকলে দেশের উন্নতি সম্ভব নয়। শিক্ষা জাতির মেরুদন্ড। এই মেরুদন্ড ভেঙ্গে দিতে একটি পক্ষ তৎপরতা চালাচ্ছে।
হরতাল অবরোধ দিয়ে শিক্ষা ব্যবস্থাকে বাধাগ্রস্ত করা হচ্ছে দাবি করে বক্তারা বলেন, এসএসসি ও সমমানের মত একটি গুরুত্বপূর্ণ পরীক্ষা হরতালের কারণে বার বার পিছিয়ে যাচ্ছে। আগামী ১ এপ্রিল থেকে শুরু হতে যাওয়া এইচএসসি পরীক্ষা একইভাবে পিছিয়ে যাওয়ার হুমকিতে রয়েছে। শিক্ষার্থীরা পড়াশুনায় মনযোগি হতে পারছে না। তাই শিক্ষা ধ্বংসকারী সহিংসতা বন্ধের দাবী জানানোর পাশাপাশি শিক্ষাকে ব্যবস্থাকে আন্দোলনের আওতা মুক্ত করণের দাবী জানান তারা।